গবেষণা নকশার উদ্দেশ্য কী এবং গবেষণা নকশা কেন গুরুত্বপূর্ণ?

সুষ্ঠুভাবে গবেষণা পরিচালনার জন্য গবেষণা নকশার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে

কোনো বিশেষ গবেষণা (Research) কার্য সম্পাদনের পরিকল্পনা কিংবা রূপরেখা (Blue Print) প্রণয়ন করার নামই হলো গবেষণা গবেষণা নকশা বা রিসার্চ ডিজাইন (Research Design)। সমগ্র গবেষণা কর্মটি পরিচালিত হয় গবেষণা নকশা অনুযায়ী। মূল গবেষণায় প্রবেশের পূর্বে নকশা প্রণয়ন এবং প্রণীত নকশা অবলোকন করে গবেষণা সম্পর্কে একটি ধারণা লাভ করা যায়, যা গবেষণাকর্মে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যায়; একে গবেষণা নকশা প্রণয়নের অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য বলা যায়।

গবেষণা নকশার উদ্দেশ্য

বিভিন্ন গবেষক ‘গবেষণা নকশার উদ্দেশ্য’ বিভিন্নভাবে বর্ণনা করেছেন। 

গবেষণা নকশার উদ্দেশ্য হলো- প্রথমত, কোনো প্রপঞ্চ সম্পর্কে পরিচিতি লাভ করা। দ্বিতীয়ত, কোনো কিছুকে বর্ণনা করা এবং তৃতীয়ত, চলকসমূহের মধ্যে সংস্রব নির্ধারণ করা বা অনুকল্প অভীক্ষণ করা (শেলিজ এবং অন্যান্য, ১৯৫৯)। 

বিখ্যাত বিজ্ঞানী পি. ভি. ইয়াং এবং অন্যান্যদের (P. V. Young et al) মতে গবেষণা নকশার উদ্দেশ্যকে যেভাবে দেখছে বর্ণিত হলো: 

  • গবেষণার ক্ষেত্র  (field) নির্ধারণ ও নির্দিষ্টকরণ করা।
  • তথ্য ও উপাত্তের উৎস ও প্রকৃতি নির্ধারণ করা।
  • প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন কাজের সময় নির্ধারণ করা।
  • প্রয়োজনীয় উপকরণ ও উপাদান নিরূপণ করা।
  • গবেষণার জন্য লোকবল সংগ্রহ ও এর যথাযথ ব্যবহার সম্পর্কে ধারণা প্রস্তুত।
  • গবেষণার জন্য উপযুক্ত পরিবেশে রয়েছে এমন জায়গার খোঁজ করা প্রাথমিক ধারণা যায়।
  • সমগ্রক (population), নমুনা (sample)-এর l স্বরূপ নির্ধারণ করা।
  • গবেষণার কৌশল চিহ্নিতকরণ।
  • তথ্য ও উপাত্তের প্রক্রিয়াজাতকরণ, বিশেস্নষণ ও উপস্থাপনের কৌশল নির্ণয়।
  • বিস্তারিত আর্থিক বাজেট প্রস্তুত করা।
  • প্রতিবেদন তৈরি ও উপস্থাপন কৌশল নির্ণয়। 

গবেষণা নকশার নানাবিধ উদ্দেশ্যর মধ্যে প্রধান কয়েকটি উদ্দেশ্য নিম্নে  উল্লেখ করা হলো: 

১. ধারণা লাভ: গবেষণা কার্যের ধারাবাহিকতা, গতিবিধি ইত্যাদি গবেষণা নকশা দেখে বোঝা যায়। ফলে গবেষণার বিষয়বস্তু সম্পর্কে ধারণা জন্মে। গবেষণা নকশা বিষয়বস্তু সম্পর্কে পূর্ব ধারণা প্রদান করে। 

২. গবেষণা ত্রুটি ও অস্পষ্টতা চিহ্নিত করা: গবেষণা ক্ষেত্রে অনেক ধরনের ত্রুটি ও অস্পষ্টতা থাকতে পারে। গবেষণা নকশা প্রণয়ন করা হলে এসব অনাকাক্সিড়্গত ত্রুটি ও অস্পষ্টতা চোখে পড়ে। তখন এগুলো যেমন নিরসন করা যায়, তেমনি এসব ত্রুটি থেকে সাবধানতা অবলম্বন করা যায়। সুতরাং বলা যায়, গবেষণা নকশার অন্যতম উদ্দেশ্য ত্রুটিমুক্ত গবেষণা ফলাফল উপহার দেওয়া। 

৩. চলক নিয়ন্ত্রণ: সব ধরনের গবেষণায় সাধারণত চলক (variable) ব্যবহৃত হয়। গবেষণা নকশা বিভিন্ন প্রকার চলকের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্য প্রণয়ন করা হয়। 

৪. তথ্য ও উপাত্তের বিশ্লেষণ: এটি তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহের কৌশল, প্রক্রিয়াজাতকরণ ও বিশ্লেষণ ইত্যাদির জন্য সুষ্ঠু প্রয়োগ পদ্ধতি নির্দেশ করে। 

৫. ক্ষেত্র নির্বাচন: গবেষক যাতে এলোমেলোভাবে তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহ না করে, সে উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে প্রণীত গবেষণা নকশায় গবেষণার ক্ষেত্র নির্দিষ্টকরণ করা হয়। 

৬. নির্ভুল ফলাফল লাভ: গবেষণা নকশা অনুসরণে পরিচালিত গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফল সাধারণত ত্রুটিমুক্ত হয়। 

গবেষণা নকশার গুরুত্ব বা প্রয়োজনীয়তা (যে কারণে গবেষণা নকশা গুরুত্বপূর্ণ)

সুষ্ঠুভাবে গবেষণা পরিচালনার জন্য গবেষণা নকশার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। গবেষণা নকশার সহায়তায় গবেষণা কার্যক্রম সঠিক ও ধারাবাহিকভাবে সময় অনুযায়ী এগিয়ে যায়। গবেষণা নকশার প্রয়োজনীয়তা নিম্নে বর্ণিত হলো: 

১. একটি গবেষণা কর্মকে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য গবেষণা নকশা প্রণয়ন করা দরকার। 

২. গবেষণা নকশার সহায়তায় নূন্যতম শ্রমসাপেক্ষে সর্বোচ্চ পরিমাণে তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহ করা যায়। 

৩. গবেষণার জন্য উপাত্ত সংগ্রহের বিভিন্ন কৌশল ও পদ্ধতি গবেষণা নকশা থেকে গবেষক পেয়ে থাকে ও বাস্তবে তা কাজে লাগিয়ে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালিত করে। 

৪. সংগৃহীত তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতি সম্পর্কে গবেষণা নকশা গবেষককে দিক নির্দেশনা প্রদান করে। 

৫. গবেষণা নকশায় বর্ণিত প্রধান প্রধান কর্ম অনুযায়ী বণ্টিত সময় ও অর্থ ব্যয়ে গবেষক কাজ করার ফলে ন্যূনতম সময় ও অর্থে সর্বাধিক গবেষণা কর্ম সম্পাদিত হয়। 

৬. গবেষণা কর্মের যথাযথ ফলাফল লাভের ভিত্তি হিসেবে গবেষণা নকশা সক্রিয় ভূমিকা পালন করে। 

৭. গবেষণা নকশার উল্লিখিত ধারাক্রম ব্যবহারের ফলে গবেষণার সময় ও অর্থ যেমন সাশ্রয় হয়, তেমনি সুষ্ঠু ও সঠিক ফলাফলের প্রত্যাশা অনেক গুণে বেড়ে যায়। 

জারিন তাসনিম
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং স্বাধীন লেখক।
এ বিষয়ের আরও নিবন্ধ

গবেষণা নিয়ে সাম্প্রতিক উপলব্ধি ও কিছু পরামর্শ

গবেষণা ছাড়া কোনো জাতি তার নিজ সম্পর্কে সঠিকভাবে জানতে পারে না; উদ্ভূত পরিস্থিতিতে করণীয় সম্পর্কে কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়ে। করোনা ভাইরাস মহামারির প্রাক্কালে...

সাহিত্য পর্যালোচনা কাকে বলে? সাহিত্য পর্যালোচনার প্রয়োজনীয়তা ও উৎস কী?

সাধারণত একটি গবেষণা বা থিসিসের তাত্ত্বিক কাঠামো ও যৌক্তিকতা প্রদানের জন্য সাহিত্য পর্যালোচনা (Literature Review) করা হয়ে থাকে। সাহিত্য পর্যালোচনার মাধ্যমে গবেষক...

উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার আন্তর্জাতিক মানদন্ডে বাংলাদেশের অবস্থান: সমস্যা ও সম্ভাবনা

- রাশিদুল হক১, মোহাম্মদ মহিউদ্দিন১, শেখ সেমন্তী২, তারান্নুম নাজ১,৩ ১বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী; ২ইনস্টিটিউট অব এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ (IER), রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়; ৩ফার্মেসি...

গবেষণায় নমুনা, নমুনায়ন এবং নমুনায়ন পদ্ধতি কী?

যে-কোনো গবেষণা কাজে (Research Work) নমুনায়ন (sampling) একটি গুরুত্বপূর্ণ পদ্ধতি এবং এই নমুনায়নের ব্যবহার গবেষণার বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপকভাবে দেখা যায়। নমুনায়নের মাধ্যমে...
আরও পড়তে পারেন

রাষ্ট্রবিজ্ঞান বলতে কী বোঝায় এবং ভারতীয় উপমহাদেশে রাজনীতি বা রাষ্ট্রচিন্তা

রাষ্ট্রবিজ্ঞান (Political Science) সমাজবিজ্ঞানের একটি শাখাবিশেষ যেখানে পরিচালন প্রক্রিয়া, রাষ্ট্র, সরকার এবং রাজনীতি সম্পর্কীয় বিষয়াবলী নিয়ে আলোকপাত করা হয়।  এরিস্টটল রাষ্ট্রবিজ্ঞানকে রাষ্ট্র...

গণতন্ত্রের সংজ্ঞা কী বা গণতন্ত্র বলতে কী বোঝায়

গণতন্ত্র বলতে কোনো জাতিরাষ্ট্রের অথবা কোনো সংগঠনের এমন একটি শাসনব্যবস্থাকে বা পরিচালনাব্যবস্থাকে বোঝায় যেখানে নীতিনির্ধারণ বা সরকারি প্রতিনিধি নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রত্যেক নাগরিক...

সমাজতন্ত্র কী? সমাজতন্ত্রের উৎপত্তি, ইতিহাস, বৈশিষ্ট্য, সুবিধা, অসুবিধা ও অর্থনীতি

সোভিয়েত ইউনিয়নে সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র কায়েম করা হয়েছিল ১৯১৭ সালে। সমাজতন্ত্রে বৈরি শ্রেণি নেই, কেননা কলকারখানা, ভূমি, সবই সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রের সম্পত্তি। সমাজতন্ত্রে শ্রেণি...

জীবনী: সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী

সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী ছিলেন একজন বাঙালি লেখক ও কবি। তিনি উনিশ ও বিশ শতকে বাঙালি মুসলিম পুনর্জাগরণের প্রবক্তাদের একজন। সিরাজী মুসলিমদের...

জীবনী: সুভাষ মুখোপাধ্যায়

বাঙালি সম্প্রদায়ের মধ্যে খুবই জনপ্রিয় একটি হলো "ফুল ফুটুক না ফুটুক, আজ বসন্ত"; এই উক্তিটি কার জানেন? উক্তিটি পশ্চিমবঙ্গের কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের।...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here