০৮:০৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
                       

ফুটবলে ভারতকে কেন নিষিদ্ধ করল ফিফা

  • প্রকাশ: ১০:৪৫:০০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২
  • / ১১৫২ বার পড়া হয়েছে

অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন লোগো


Google News
বিশ্লেষণ-এর সর্বশেষ নিবন্ধ পড়তে গুগল নিউজে যোগ দিন

বিশেষ শর্তসাপেক্ষে এবং স্বল্পমূল্যে এই ওয়েবসাইটটি সামাজিক কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ কিংবা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নিকট বিক্রি করা হবে।

আন্তর্জাতিক পর্যায়ের সব ধরনের ফুটবল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ভারতকে নিষিদ্ধ করেছে বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা (Federation of International Football Associations – FIFA)। ফুটবলীয় কার্যক্রমে তৃতীয় পক্ষের প্রভাব খাটানোর অভিযোগে এই নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়েছে অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন (All India Football Federation – AIFF)।

মঙ্গলবার, আগস্ট ১৫, ২০২২ তারিখ প্রথম প্রহরে ভারত ফুটবল সংস্থাকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিবৃতি দিয়ে নিষেধাজ্ঞার খবর জানিয়েছে ফিফা। বিবৃতিতে সংস্থাটি বলেছে, ব্যুরো অব ফিফা কাউন্সিল সর্বসম্মতভাবে অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশনকে (এআইএফএফ) নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কারণ এই সংস্থায় তৃতীয় পক্ষের অনুচিত প্রভাবের ফলে ফিফা সনদের পরিস্কার লঙ্ঘন হয়েছে।

এই নিষেধাজ্ঞার ফলে আগামী অক্টোবরে ভারতে অনুষ্ঠেয় অনূর্ধ্ব-১৭ নারী বিশ্বকাপও আপাতত স্থগিত করা হয়েছে। শিগগিরই এই টুর্নামেন্টের ভবিষ্যৎ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছে ফিফা।

বিবৃতিতে এই নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্তির পথও বাতলে দিয়েছে ফিফা, এআইএফএফের দৈনন্দিন কার্যক্রমের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ সংস্থাটির প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে আনতে একটি প্রশাসনিক কমিটি গঠন করতে হবে। এআইএফএফের বর্তমান নির্বাহী কমিটির সব ক্ষমতা সেই প্রশাসনিক কমিটিকে দিতে হবে।

ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে যে, এআইএফএফের সাবেক সভাপতি প্রফুল প্যাটেলকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে গঠিত কমিটি অব অ্যাডমিনিস্ট্রেটরসের (সিওএ) দ্বারা সংস্থাটি পরিচালিত হচ্ছে। সুপ্রিম কোর্ট এআইএফএফকে জাতীয় ফেডারেশনের নির্বাচনেরও নির্দেশ দিয়েছিল। তবে ফুটবল ফেডারেশনের ওপর আদালতের এই খরবদারি সহজভাবে নেয়নি ফিফা। বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ আদালতের খবরদারিকে তাদের সনদের পরিস্কার লঙ্ঘন হিসেবে গণ্য করে। সুতরাং, বলা যায় যে, আদালতের হস্তক্ষেপের কারণেই ফারতীয় ফুটবলকে আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে নিষিদ্ধ করর ফিফা।

আদালতের হস্তক্ষেপের কারণেই ভারত ফুটবলকে নিষিদ্ধ করে ফিফা

আদালত বা ভারত সরকার এখন কী সিদ্ধান্ত নেবে দেশের ফুটবলকে বাঁচাতে? কোনো দেশের আদালত যে সব সময় সঠিক হতে পারেনা, তা প্রমাণ করে দিলো ফিফা।

ভেবেই অবাক লাগছে যে, সুনীল ছেত্রীর মতো এক জন খেলোয়াড়কে আন্তর্জাতিক ফুটবলে দীর্ঘদিন দেখা যাবে না; এমনও হতে পারে সুনীল ছেত্রী আর আন্তর্জাতিক ফুটবলেই ফিরতে পারবেন না কারণ তার বয়স হয়ে গেছে। আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বকালের সেরা ফুটবলারদের একজন সুনীল ছেত্রী।

আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বকালের সেরা ফুটবলারদের একজন সুনীল ছেত্রী।

২০২২ সালের আগস্ট মাসের শুরুর দিকেও কড়া ভাষায় AIFF-কে সতর্ক করে চিঠি দিয়ে সতর্ক করেছিল ফিফা। তবে এরপরও কার্যকর পদক্ষেপ নিতে না পারায় নিষেধাজ্ঞায় পড়তে হলো ভারতের ফুটবলকে। ফিফা কর্তৃক নিষিদ্ধের কারণে কয়েক দশক পিছনে চলে গেল ভারত ফুটবল। এখন যদি ফিফা ভারতের সদস্যপদের নিষেধাজ্ঞা তুলেও নেয় তাহলেও ভারতকে পয়েন্ট টেবিলের শূন্য থেকেই শুরু করতে হবে।

বিষয়:

শেয়ার করুন

মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার তথ্য সংরক্ষিত রাখুন

লেখকতথ্য

কন্ট্রিবিউটর, বিশ্লেষণ

বিশেষ শর্তসাপেক্ষে এই ওয়েবসাইটটি সামাজিক কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ কিংবা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নিকট বিক্রি করা হবে।

ফুটবলে ভারতকে কেন নিষিদ্ধ করল ফিফা

প্রকাশ: ১০:৪৫:০০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২

আন্তর্জাতিক পর্যায়ের সব ধরনের ফুটবল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ভারতকে নিষিদ্ধ করেছে বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা (Federation of International Football Associations – FIFA)। ফুটবলীয় কার্যক্রমে তৃতীয় পক্ষের প্রভাব খাটানোর অভিযোগে এই নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়েছে অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন (All India Football Federation – AIFF)।

মঙ্গলবার, আগস্ট ১৫, ২০২২ তারিখ প্রথম প্রহরে ভারত ফুটবল সংস্থাকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিবৃতি দিয়ে নিষেধাজ্ঞার খবর জানিয়েছে ফিফা। বিবৃতিতে সংস্থাটি বলেছে, ব্যুরো অব ফিফা কাউন্সিল সর্বসম্মতভাবে অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশনকে (এআইএফএফ) নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কারণ এই সংস্থায় তৃতীয় পক্ষের অনুচিত প্রভাবের ফলে ফিফা সনদের পরিস্কার লঙ্ঘন হয়েছে।

এই নিষেধাজ্ঞার ফলে আগামী অক্টোবরে ভারতে অনুষ্ঠেয় অনূর্ধ্ব-১৭ নারী বিশ্বকাপও আপাতত স্থগিত করা হয়েছে। শিগগিরই এই টুর্নামেন্টের ভবিষ্যৎ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছে ফিফা।

বিবৃতিতে এই নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্তির পথও বাতলে দিয়েছে ফিফা, এআইএফএফের দৈনন্দিন কার্যক্রমের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ সংস্থাটির প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে আনতে একটি প্রশাসনিক কমিটি গঠন করতে হবে। এআইএফএফের বর্তমান নির্বাহী কমিটির সব ক্ষমতা সেই প্রশাসনিক কমিটিকে দিতে হবে।

ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে যে, এআইএফএফের সাবেক সভাপতি প্রফুল প্যাটেলকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে গঠিত কমিটি অব অ্যাডমিনিস্ট্রেটরসের (সিওএ) দ্বারা সংস্থাটি পরিচালিত হচ্ছে। সুপ্রিম কোর্ট এআইএফএফকে জাতীয় ফেডারেশনের নির্বাচনেরও নির্দেশ দিয়েছিল। তবে ফুটবল ফেডারেশনের ওপর আদালতের এই খরবদারি সহজভাবে নেয়নি ফিফা। বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ আদালতের খবরদারিকে তাদের সনদের পরিস্কার লঙ্ঘন হিসেবে গণ্য করে। সুতরাং, বলা যায় যে, আদালতের হস্তক্ষেপের কারণেই ফারতীয় ফুটবলকে আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে নিষিদ্ধ করর ফিফা।

আদালতের হস্তক্ষেপের কারণেই ভারত ফুটবলকে নিষিদ্ধ করে ফিফা

আদালত বা ভারত সরকার এখন কী সিদ্ধান্ত নেবে দেশের ফুটবলকে বাঁচাতে? কোনো দেশের আদালত যে সব সময় সঠিক হতে পারেনা, তা প্রমাণ করে দিলো ফিফা।

ভেবেই অবাক লাগছে যে, সুনীল ছেত্রীর মতো এক জন খেলোয়াড়কে আন্তর্জাতিক ফুটবলে দীর্ঘদিন দেখা যাবে না; এমনও হতে পারে সুনীল ছেত্রী আর আন্তর্জাতিক ফুটবলেই ফিরতে পারবেন না কারণ তার বয়স হয়ে গেছে। আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বকালের সেরা ফুটবলারদের একজন সুনীল ছেত্রী।

আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বকালের সেরা ফুটবলারদের একজন সুনীল ছেত্রী।

২০২২ সালের আগস্ট মাসের শুরুর দিকেও কড়া ভাষায় AIFF-কে সতর্ক করে চিঠি দিয়ে সতর্ক করেছিল ফিফা। তবে এরপরও কার্যকর পদক্ষেপ নিতে না পারায় নিষেধাজ্ঞায় পড়তে হলো ভারতের ফুটবলকে। ফিফা কর্তৃক নিষিদ্ধের কারণে কয়েক দশক পিছনে চলে গেল ভারত ফুটবল। এখন যদি ফিফা ভারতের সদস্যপদের নিষেধাজ্ঞা তুলেও নেয় তাহলেও ভারতকে পয়েন্ট টেবিলের শূন্য থেকেই শুরু করতে হবে।