০৮:০৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
                       

বাইনোকুলার কী?

বিশ্লেষণ সংকলন টিম
  • প্রকাশ: ০৮:৩৭:৪৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৪ মার্চ ২০২২
  • / ২৫৪১ বার পড়া হয়েছে


Google News
বিশ্লেষণ-এর সর্বশেষ নিবন্ধ পড়তে গুগল নিউজে যোগ দিন

বিশেষ শর্তসাপেক্ষে এবং স্বল্পমূল্যে এই ওয়েবসাইটটি সামাজিক কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ কিংবা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নিকট বিক্রি করা হবে।

বাইনোকুলার হলো এক ধরনের হস্তধৃত দূরবীক্ষণ যন্ত্র। দুরে বা স্বাভাবিক দৃষ্টিসীমার বাইরে অবস্থিত বস্তু দেখার জন্য ব্যবহার হয়। এটি দ্বারা দুরের প্রায় অদৃশ্য বস্তুকেও কয়েক ফুট সামনে দেখা সম্ভব। এর বিভিন্ন মান থাকে যা থেকে এর দূরত্ব মোচনের সক্ষমতা বোঝা যায়। দুই চোখে ব্যবহার করা যায় বলে একে বাইনোকুলার বলা হয়। একই যন্ত্র একচোখের উপযোগী হলে তাকে মনোকুলার বলা হয়। এটি সমুদ্রগামী জাহাজ ও যুদ্ধক্ষেত্রে বেশি কাজে লাগে। এছাড়া স্টেডিয়ামের খেলা দেখতে বা ভ্রমণের সময় বা পশু পাখির গতিবিধি পর্যবেক্ষণে ব্যবহার করা হয়।

বাইনোকুলার এবং দূরবীন (Telescope) অভিন্ন নয়।

১৮২৫ সালে বিজ্ঞানী জে. পি. লেমিয়ার বাইনোকুলার আবিষ্কার করেন।

বিষয়:

শেয়ার করুন

মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার তথ্য সংরক্ষিত রাখুন

বিশেষ শর্তসাপেক্ষে এই ওয়েবসাইটটি সামাজিক কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ কিংবা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নিকট বিক্রি করা হবে।

বাইনোকুলার কী?

প্রকাশ: ০৮:৩৭:৪৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৪ মার্চ ২০২২

বাইনোকুলার হলো এক ধরনের হস্তধৃত দূরবীক্ষণ যন্ত্র। দুরে বা স্বাভাবিক দৃষ্টিসীমার বাইরে অবস্থিত বস্তু দেখার জন্য ব্যবহার হয়। এটি দ্বারা দুরের প্রায় অদৃশ্য বস্তুকেও কয়েক ফুট সামনে দেখা সম্ভব। এর বিভিন্ন মান থাকে যা থেকে এর দূরত্ব মোচনের সক্ষমতা বোঝা যায়। দুই চোখে ব্যবহার করা যায় বলে একে বাইনোকুলার বলা হয়। একই যন্ত্র একচোখের উপযোগী হলে তাকে মনোকুলার বলা হয়। এটি সমুদ্রগামী জাহাজ ও যুদ্ধক্ষেত্রে বেশি কাজে লাগে। এছাড়া স্টেডিয়ামের খেলা দেখতে বা ভ্রমণের সময় বা পশু পাখির গতিবিধি পর্যবেক্ষণে ব্যবহার করা হয়।

বাইনোকুলার এবং দূরবীন (Telescope) অভিন্ন নয়।

১৮২৫ সালে বিজ্ঞানী জে. পি. লেমিয়ার বাইনোকুলার আবিষ্কার করেন।