০৪:৩৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
                       

স্থানীয় সময় ও প্রমাণ সময় কী?

বিশ্লেষণ সংকলন টিম
  • প্রকাশ: ১২:১৪:১৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩০ অক্টোবর ২০২১
  • / ১৮৭১৮ বার পড়া হয়েছে

স্থানীয় সময় ও প্রমাণ সময় কী


Google News
বিশ্লেষণ-এর সর্বশেষ নিবন্ধ পড়তে গুগল নিউজে যোগ দিন

বিশেষ শর্তসাপেক্ষে এবং স্বল্পমূল্যে এই ওয়েবসাইটটি সামাজিক কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ কিংবা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নিকট বিক্রি করা হবে।

স্থানীয় সময় ও প্রমাণ সময় (Local Time and Standard Time)

নিম্নে প্রদত্ত স্থানীয় সময় ও প্রমাণ সময়ের সংজ্ঞা ভালোভাবে বুঝলেই এই স্থানীয় সময় ও প্রমাণ সময়ের মধ্যে পার্থক্য বোঝা যাবে।

স্থানীয় সময়

পৃথিবীর পূর্বদিকে অবস্থিত দেশগুলোতে প্রথমে সূর্যোদয় হয়। পৃথিবীর আবর্তনের ফলে কোনো স্থানের সূর্য যখন ঠিক মাথার উপরে আসে বা সর্বোচ্চ উচ্চতায় অবস্থান করে তখন সে স্থানে মধ্যাহ্ন এবং ঘড়িতে বেলা ১২টা ধরা হয় এবং এ সময় থেকে দিনের অন্যান্য সময় স্থির করা হয়। এভাবে আকাশে সূর্যের অবস্থান হতে যে সময় স্থির করা হয় তাকে স্থানীয় সময় বলা হয়।

অন্যভাবে বলা যায়, আকাশে সূর্যের উন্নতি লক্ষ্য করে সেক্সট্যান্ট যন্ত্রের সাহায্যে যে সময় নির্ধারণ করা হয় তাকে স্থানীয় সময় বলে। একটি দেশের বিভিন্ন স্থানের দ্রাঘিমা এক নয়। কোনো নির্দিষ্ট স্থানের স্থানীয় সময় নির্ণয় করার জন্য ঐ স্থান হতে সূর্যের অবস্থান দেখে করা যায়। এ ছাড়া ঐ দেশের প্রমাণ সময় যে দ্রাঘিমা থেকে করা হয়েছে তা থেকে ঐ নির্দিষ্ট স্থানের দ্রাঘিমা বাদ দিলেও প্রাপ্ত দ্রাঘিমার ভিত্তিতে স্থানীয় সময় নির্ধারণ করা যায়। ১° (এক ডিগ্রি) দ্রাঘিমার জন্য সময়ের ব্যবধান ৪ মিনিট এবং ১ মিনিট 

দ্রাঘিমার জন্য ৪ সেকেন্ড।

প্রমাণ সময়

একই দ্রাঘিমায় অবস্থিত সব স্থানে একই সময় মধ্যাহ্ন হয়; সুতরাং তাদের স্থানীয় সময় এক। কিন্তু একই অক্ষরেখায় অবস্থিত বিভিন্ন স্থানের স্থানীয় সময় এক হয়না। ফলে সময়ের বিভ্রাট দেখা দেয়। সেজন্য প্রত্যেক দেশেই একটি করে প্রমাণ সময় নির্ণয় করা হয়।

প্রত্যেক দেশেই সেই দেশের মধ্যভাগের কোনো স্থানের দ্রাঘিমারেখা অনুযায়ী যে সময় নির্ণয় করা হয় সে সময়কে ঐ দেশের প্রমাণ সময় বলে।

যেমন- বাংলাদেশের প্রমাণ সময় ৯০° পূর্ব দ্রাঘিমায় ধরা হয় এবং তা গ্রিনিচ সময় অপেক্ষা ৬ ঘণ্টা বেশি।

প্রমাণ সময় কো দেশের একটি দ্রাঘিমাকে ঠিক করে নির্ধারণ করা হয়। বৃহৎ দেশসমূহে তাদের কয়েকটি স্থানীয় সময়কে প্রমাণ সময় হিসেবে ধরা হয়।

যেমন- যুক্তরাষ্ট্রে ৭৫°, ৯০°, ১৫০°, ও ১২০° পশ্চিম দ্রাঘিমা। এদের স্থানীয় সময়কে চারটি প্রমাণ সময় ধরা হয়।

শেয়ার করুন

One thought on “স্থানীয় সময় ও প্রমাণ সময় কী?

মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার তথ্য সংরক্ষিত রাখুন

বিশেষ শর্তসাপেক্ষে এই ওয়েবসাইটটি সামাজিক কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ কিংবা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নিকট বিক্রি করা হবে।

স্থানীয় সময় ও প্রমাণ সময় কী?

প্রকাশ: ১২:১৪:১৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩০ অক্টোবর ২০২১

স্থানীয় সময় ও প্রমাণ সময় (Local Time and Standard Time)

নিম্নে প্রদত্ত স্থানীয় সময় ও প্রমাণ সময়ের সংজ্ঞা ভালোভাবে বুঝলেই এই স্থানীয় সময় ও প্রমাণ সময়ের মধ্যে পার্থক্য বোঝা যাবে।

স্থানীয় সময়

পৃথিবীর পূর্বদিকে অবস্থিত দেশগুলোতে প্রথমে সূর্যোদয় হয়। পৃথিবীর আবর্তনের ফলে কোনো স্থানের সূর্য যখন ঠিক মাথার উপরে আসে বা সর্বোচ্চ উচ্চতায় অবস্থান করে তখন সে স্থানে মধ্যাহ্ন এবং ঘড়িতে বেলা ১২টা ধরা হয় এবং এ সময় থেকে দিনের অন্যান্য সময় স্থির করা হয়। এভাবে আকাশে সূর্যের অবস্থান হতে যে সময় স্থির করা হয় তাকে স্থানীয় সময় বলা হয়।

অন্যভাবে বলা যায়, আকাশে সূর্যের উন্নতি লক্ষ্য করে সেক্সট্যান্ট যন্ত্রের সাহায্যে যে সময় নির্ধারণ করা হয় তাকে স্থানীয় সময় বলে। একটি দেশের বিভিন্ন স্থানের দ্রাঘিমা এক নয়। কোনো নির্দিষ্ট স্থানের স্থানীয় সময় নির্ণয় করার জন্য ঐ স্থান হতে সূর্যের অবস্থান দেখে করা যায়। এ ছাড়া ঐ দেশের প্রমাণ সময় যে দ্রাঘিমা থেকে করা হয়েছে তা থেকে ঐ নির্দিষ্ট স্থানের দ্রাঘিমা বাদ দিলেও প্রাপ্ত দ্রাঘিমার ভিত্তিতে স্থানীয় সময় নির্ধারণ করা যায়। ১° (এক ডিগ্রি) দ্রাঘিমার জন্য সময়ের ব্যবধান ৪ মিনিট এবং ১ মিনিট 

দ্রাঘিমার জন্য ৪ সেকেন্ড।

প্রমাণ সময়

একই দ্রাঘিমায় অবস্থিত সব স্থানে একই সময় মধ্যাহ্ন হয়; সুতরাং তাদের স্থানীয় সময় এক। কিন্তু একই অক্ষরেখায় অবস্থিত বিভিন্ন স্থানের স্থানীয় সময় এক হয়না। ফলে সময়ের বিভ্রাট দেখা দেয়। সেজন্য প্রত্যেক দেশেই একটি করে প্রমাণ সময় নির্ণয় করা হয়।

প্রত্যেক দেশেই সেই দেশের মধ্যভাগের কোনো স্থানের দ্রাঘিমারেখা অনুযায়ী যে সময় নির্ণয় করা হয় সে সময়কে ঐ দেশের প্রমাণ সময় বলে।

যেমন- বাংলাদেশের প্রমাণ সময় ৯০° পূর্ব দ্রাঘিমায় ধরা হয় এবং তা গ্রিনিচ সময় অপেক্ষা ৬ ঘণ্টা বেশি।

প্রমাণ সময় কো দেশের একটি দ্রাঘিমাকে ঠিক করে নির্ধারণ করা হয়। বৃহৎ দেশসমূহে তাদের কয়েকটি স্থানীয় সময়কে প্রমাণ সময় হিসেবে ধরা হয়।

যেমন- যুক্তরাষ্ট্রে ৭৫°, ৯০°, ১৫০°, ও ১২০° পশ্চিম দ্রাঘিমা। এদের স্থানীয় সময়কে চারটি প্রমাণ সময় ধরা হয়।