ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্ব

কোনো একটি নির্দিষ্ট সময় মেয়াদে জনসংখ্যা কীভাবে বাড়ে এবং এই বৃদ্ধি দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন কিভাবে প্রভাবিত করে তাই ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্বের মূল বিষয়বস্তু

টমাস রবার্ট ম্যালথাস (Thomas Robert Malthus) ছিলেন ইংল্যান্ডের একজন অর্থনীতিবিদ, জনমিতিবিদ এবং ধর্মযাজক। তিনি তাঁর জনসংখ্যা তত্ত্বের জন্য বিখ্যাত। এই তত্ত্ব ‘ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্ব’ (Malthusian Theory of Population) নামে পরিচিত। এই তত্ত্ব টমাস ম্যালথাস উনিশ শতকে প্রচার করেছেন।

জনসংখ্যা বিষয়ে তাঁর যে মতবাদ প্রকাশিত হয় তা তিনি মোট ছয়বার পরিবর্তন করেন।  ম্যালথাসের তত্ত্বের সর্বশেষ পরিমার্জিত সংস্করণ বের হয় তাঁর মৃত্যুর পর ১৯৭২ সালে। ম্যালথাস তাঁর তত্ত্বের জন্য ধর্মতাত্ত্বিক ও মার্কসবাদীদের দ্বারা ঘৃণিত হন। তবে জনসংখ্যা সম্পর্কে তিনি যে মতবাদ ব্যক্ত করেছেন তা এখন পর্যন্ত খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ম্যালথাসের তত্ত্ব আসলে কী?

ম্যালথাসের তত্ত্ব (ইংরেজি: Malthusian Theory) একটি জনসংখ্যা বিষয়ক তত্ত্ব যার প্রস্তাব হলো খাদ্যশস্যের উৎপাদন যখন গাণিতিক হারে বৃদ্ধি পায় তখন জনসংখ্যা বৃদ্ধি পায় জ্যামিতিক হারে। ইংরেজ অর্থনীতিবিদ টমাস রবার্ট ম্যালথাস উনিশ শতকের প্রথমভাগে এই তত্ত্ব প্রচার করেন।

১৭৯৮ সালে ম্যালথাস ‘অ্যান এসে অন দ্য প্রিন্সিপল অব পপুলেশন’ (An Essay on the Principle of Population) নামে একটি বই লিখেছিলেন, সে বইয়ে এই তত্ত্ব উল্লেখ করা হয়েছে। উল্লেখ্য, তিনি বেনামে প্রকাশ করলেও, অল্পদিনের মধ্যেই মানুষ জেনে যায় যে, বইটি টমাস রবার্ট ম্যালথাস লিখেছেন।

ম্যালথাসের এই তত্ত্ব অনুসারে স্বাভাবিক নিয়মে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পেলে খাদ্যসংকট এমনকী দুর্ভিক্ষ অবশ্যম্ভাবী। এই কারণে ম্যালথাস মনে করতেন যে, দুর্ভিক্ষ প্রতিরোধের জন্য জন্ম নিয়ন্ত্রণ অপরিহার্য। জন্ম নিয়ন্ত্রণ করা না-গেলে দুর্ভিক্ষের কারণে মানুষ মারা পড়বে এবং এভাবেই জনসংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পাবে।

জনসংখ্যা বৃদ্ধির জ্যামিতিক হার

ম্যালথাস বলেন, খাদ্যের উৎপাদন অপেক্ষা জনসংখ্যা দ্রুততর হারে বৃদ্ধি পায়। তাঁর মতে, খাদ্য বৃদ্ধি পায় গাণিতিক হারে (Arithmetic rate) এবং নিয়ন্ত্রণ করা না হলে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পায় জ্যামিতিক হারে (Geometric rate)।

গাণিতিক এবং জ্যামিতিক হার কী?

গাণিতিক ও জ্যামিতিক প্রবৃদ্ধির ধারা নিম্নে দেখানো হলো:

  • গাণিতিক হার: ১, ২, ৩, ৪, ৫, ৬, ৭, ৮… 
  • জ্যামিতিক হার: ১, ২, ৪, ৮, ১৬, ৩২… 

গাণিতিক হারের চেয়ে জ্যামিতিক হার দ্রুত বৃদ্ধি পায়। জ্যামিতিক হার চক্রবৃদ্ধি সুদ ব্যবস্থার মতো। মূলধনের সুদ যেমন একটা নির্দিষ্ট সময়ের পরে মূলধনে পরিণত হয় এবং সেটার সুদও অ্যাকাউন্টে হয় জমা। ঠিক তেমনি আজকের শিশুরাও আগামীতে বাবা-মা হবে এবং তাদের ঘরে আসবে আরো শিশু। নিয়ন্ত্রণ করা না হলে হয়তো জন্ম নেবে আরো অধিক সংখ্যায়।

ঠিক এভাবেই ম্যালথাস বলতে চেয়েছিলেন যে, জ্যামিতিক হার গাণিতিক হারকে অতিক্রম করে চলে। অর্থাৎ বার্ষিক জন্মহার বার্ষিক খাদ্য উৎপাদনকে অতিক্রম করে চলবে।

জসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের প্রাকৃতিক নিরোধ

পরবর্তী পর্যায়ের জন্য তিনি তিনটি সম্ভাব্য অবস্থা সৃষ্টির কথা বলেন, যে অবস্থাগুলোর প্রতিটি অবস্থাই মৃত্যুহারকে দেবে বাড়িয়ে। এগুলো হলো- ক্ষুধা, ব্যাধি এবং যুদ্ধ।

ম্যালথাসের মতে এগুলোই হলো জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের প্রাকৃতিক নিরোধ (positive checks) ব্যবস্থা।

এই প্রাকৃতিক নিরোধ ব্যবস্থাগুলো জনসংখ্যাকে এমন একটা সংখ্যায় কমিয়ে আনবে যে, জনসংখ্যা উৎপাদিত খাদ্যের পরিমাণের সঙ্গে হবে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

ম্যালথাস মনে করেন, মানুষ যৌন চাহিদা দ্বারা এমন ভাবে চালিত হয় যে, সে প্রজনন ক্ষমতানুযায়ী সন্তান জন্ম দেবার প্রবণতা দেখায়। অর্থাৎ, মানুষ অধিক সন্তান জন্ম দিতে পারাকে গৌরবের চোখে দেখে।

তিনি প্রথম দিকে যুক্তি দেখাতেন যে, সব অবস্থাতেই মানুষের জন্মহার একই থাকবে এবং কেবল মৃত্যুর হারই জন্মহার প্রবৃদ্ধিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে। তিনি তখন মনে করেছিলেন যে মানুষ হয়তো স্বেচ্ছায় সন্তান জন্মদান করবে না বা জনসংখ্যা সীমিত করবে না। 

তিনি আরো বলেন যে, যদি খাদ্যের যোগান বৃদ্ধি পায়, তা হলে তা বরং আরো অধিক সন্তানের জীবনধারণে করবে সহায়তা। ফলে জনসংখ্যা আরো বৃদ্ধি পাবে। এতে আবার পুনরায় খাদ্যের উপর চাপ পড়বে। পুনরায় দেখা দেবে খাদ্যের অভাব।

পরিমার্জিত তত্ত্বে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা

পরবর্তীতে ম্যালথাস পরিবর্তীত ও পরিমার্জিত তত্ত্বে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন যে, জন্মহার সীমিত করে মানুষ ইচ্ছা করলে ক্ষুধা, ব্যাধি এবং যুদ্ধ থেকে পরিত্রাণ পেতে পারে। এজন্য তিনি প্রাকৃতিক নিরোধের পরিবর্তে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা (preventive checks) গ্রহণের পরামর্শ দেন। তিনি অবশ্য জন্মনিয়ন্ত্রণ বা জনসংখ্যাকে সীমিত করে এমন কোন পন্থাকে অনৈতিক বলে উল্লেখ করেন এবং এর পরিবর্তে জন্মহার হ্রাস করার ক্ষেত্রে বিলম্ব বিবাহ (late marriage) উৎকৃষ্ট পন্থা বলে মনে করেন।

ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্বের সমালোচনা

ম্যালথাসের এই জনসংখ্যা তত্ত্বটি নানানভাবে সমালোচিত হয়েছে। নিম্নে তা তুলে ধরা হলো:

১. ম্যালথাস ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন যে, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে প্রাকৃতিক নিরোধ অর্থাৎ ক্ষুধা, ব্যাধি এবং যুদ্ধ বৃদ্ধি পাবে। কিন্তু ম্যালথাসের সময় থেকে এখন পর্যন্ত এই তিনটি প্রাকৃতিক নিরোধ বাড়েনি। বরং ক্ষুধা ও ব্যাধি নিবারণে অগ্রগতি সাধিত হয়েছে।

২. ম্যালথাসের সময়ে খাদ্যের অভাবে যে মৃত্যুহার ছিল তা আজ অনেক হ্রাস পেয়েছে। ম্যালথাস ভাবতেও পারেনি খাদ্যের উৎপাদন এতটা বৃদ্ধি পাবে। কেননা কৃষি উৎপাদন বিগত একশত বছরে ২/৩ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। কৃষি পদ্ধতিতে উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহার এবং খাদ্যের উৎপাদন বৃদ্ধির বর্তমান হার সম্পর্কে ম্যালথাস ভাবতেও পারেননি।

৩. আধুনিক যুগে জন্ম নিয়ন্ত্রণের এমন অনেক ব্যবস্থা আবিষ্কার হয়েছে, যা ম্যালথাসের জানা ছিলনা। অথচ প্রতিরোধমূলক এবং প্রতিকারমূলক জন্মনিয়ন্ত্রণের অনেক ব্যবস্থা আবিষ্কার করা সম্ভব হয়েছে।

৪. ম্যালথাস কেবল জনসংখ্যার সঙ্গে খাদ্য উৎপাদনের সম্পর্ক নিয়েই বেশী চিন্তা-ভাবনা করেছেন। অথচ, তিনি প্রাকৃতিক সম্পদের নানাবিধ ব্যবহার সম্পর্কে তেমনি চিন্তা-ভাবনা করেননি। এটা চিন্তা করলে তিনি হয়তো বলতেন প্রাকৃতিক সম্পদকে কাজে লাগাতে বরং আরো জনশক্তি বা শ্রমের প্রয়োজন হবে এবং উৎপাদন বৃদ্ধিতে তা হবে সহায়ক।

ম্যালথাসের তত্ত্বের মূল বিষয়বস্তু

ম্যালথাসের তত্ত্বটি হলো একটি জনসংখ্যা বিকাশের তত্ত্ব। কোনো একটি নির্দিষ্ট সময় মেয়াদে জনসংখ্যা কীভাবে বাড়ে এবং এই বৃদ্ধি দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন কিভাবে প্রভাবিত করে তাই ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্বের মূল বিষয়বস্তু।

এ তত্ত্বে দেশের খাদ্য যোগানের পরিপ্রেক্ষিতে জনসংখ্যার সমস্যাটি আলোচিত হয়েছে বলে দেশে খাদ্য ঘাটতির পরিস্থিতি হলো জনাধিক্যের প্রধান লক্ষণ। সর্বোপরি এ তত্ত্বের মধ্য দিয়ে আমরা ম্যালথাসকে একজন হতাশবাদী হিসেবে দেখতে পাই। কারণ তাঁর তাছে অধিক জনসংখ্যা মাত্রই মানবজাতির জন্য একদিকে ত্রাস এবং নৈরাশ্য সৃষ্টি করে। কিন্তু তারপরও বর্তমানে বিশ্বে দারিদ্রতা বৃদ্ধি পাওয়ায় কিছুটা হলেও অনেকেই ম্যালথাসের তত্ত্বটি বিশ্বাস করছেন।

(বিভিন্ন অনলাইন আর্কাইভ ও বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্যবই অবলম্বনে লিখিত)

আহমেদ মিন্টো
মিন্টো একজন ফ্রিল্যান্স লেখক এবং বিশ্লেষণ'র কন্ট্রিবিউটর।
এ বিষয়ের আরও নিবন্ধ

মূল্যস্ফীতি কী এবং মূল্যস্ফীতি কীভাবে মানুষের জীবনকে প্রভাবিত করে?

মূল্যস্ফীতি হলো কোনো একটি নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে কোনো নির্দিষ্ট পণ্যের বা পণ্যসমূহের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়া। মূল্যস্ফীতি বিভিন্নভাবে একটি দেশে বসবাসরত মানুষের জীবনকে...

প্রবাসে নাগরিকত্ব গ্রহণকারী বাংলাদেশি ও রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের নিয়ে কৌশল, চ্যালেঞ্জ এবং এগিয়ে যাওয়ার পথ বাধা সমন্বয়হীনতা  

বাংলাদেশ হাই কমিশন, লন্ডন এর উদ্যোগে এবং অনুরোধে গত ১৮ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক স্মারকে জানানো হয়েছে যে, এখন থেকে...

ভোক্তাশ্রেণি মূল্যস্ফীতির ভয়ে থাকলে কোনো শাসনব্যবস্থাই সুস্থির থাকতে পারে না

আমার এক পরিচিত ব্যক্তি দিন কয়েক আগে আমাকে বলেছিলেন, ‘স্যার, সেদিন বাসায় ফিরতেই গিন্নি বলল, ফ্রেশ হওয়ার আগে স্টোররুম থেকে চালের ড্রাম...

মানি লন্ডারিং কী এবং এর প্রক্রিয়া ও বিভিন্ন দেশে প্রতিরোধ ব্যবস্থা

মানি লন্ডারিং হলো অপরাধ ও দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত সম্পদ বৈধ সম্পদে রূপান্তর করার প্রক্রিয়া। এ বিষয়ে এই নিবন্ধে সংক্ষিপ্তভাবে আলোকপাত করা হলো।
আরও পড়তে পারেন

টপ্পা গান কী, টপ্পা গানের উৎপত্তি, বাংলায় টপ্পা গান ও এর বিশেষত্ব

টপ্পা গান এক ধরনের লোকিক গান বা লোকগীতি যা ভারত ও বাংলাদেশের বাংলা ভাষাভাষী মানুষের কাছে খুবই প্রিয়। এই টপ্পা গান বলতে...

রাষ্ট্রবিজ্ঞান বলতে কী বোঝায় এবং ভারতীয় উপমহাদেশে রাজনীতি বা রাষ্ট্রচিন্তা

রাষ্ট্রবিজ্ঞান (Political Science) সমাজবিজ্ঞানের একটি শাখাবিশেষ যেখানে পরিচালন প্রক্রিয়া, রাষ্ট্র, সরকার এবং রাজনীতি সম্পর্কীয় বিষয়াবলী নিয়ে আলোকপাত করা হয়।  এরিস্টটল রাষ্ট্রবিজ্ঞানকে রাষ্ট্র...

গণতন্ত্রের সংজ্ঞা কী বা গণতন্ত্র বলতে কী বোঝায়

গণতন্ত্র বলতে কোনো জাতিরাষ্ট্রের অথবা কোনো সংগঠনের এমন একটি শাসনব্যবস্থাকে বা পরিচালনাব্যবস্থাকে বোঝায় যেখানে নীতিনির্ধারণ বা সরকারি প্রতিনিধি নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রত্যেক নাগরিক...

সমাজতন্ত্র কী? সমাজতন্ত্রের উৎপত্তি, ইতিহাস, বৈশিষ্ট্য, সুবিধা, অসুবিধা ও অর্থনীতি

সোভিয়েত ইউনিয়নে সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র কায়েম করা হয়েছিল ১৯১৭ সালে। সমাজতন্ত্রে বৈরি শ্রেণি নেই, কেননা কলকারখানা, ভূমি, সবই সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রের সম্পত্তি। সমাজতন্ত্রে শ্রেণি...

জীবনী: সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী

সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী ছিলেন একজন বাঙালি লেখক ও কবি। তিনি উনিশ ও বিশ শতকে বাঙালি মুসলিম পুনর্জাগরণের প্রবক্তাদের একজন। সিরাজী মুসলিমদের...

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here