রবিবার, নভেম্বর ২৭, ২০২২

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা বা এসডিজি-এর সংক্ষিপ্ত বিবরণ (গুরুত্বপূর্ণ অংশ)

টেকসই উন্নয়নের লক্ষমাত্রাগুলো বিস্তৃত এবং পরস্পর নির্ভরশীল এবং এটি গৃহীত হওয়ার দুই বছর পরে ২০১৭ সালের ৬ জুলাই জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ কর্তৃক গৃহীত একটি রেজোলিউশনের মাধ্যমে এসডিজিগুলিকে আরও কার্যকরী করা হয়।

Sustainable Development Goals (SDGs)-এর বাংলা হলো ‘টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা’। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বা বৈশ্বিক লক্ষ্যগুলি হলো ১৭টি আন্তঃসংযুক্ত বৈশ্বিক লক্ষ্যগুলির একটি সমষ্টি যা সকলের জন‍্য একটি ভালো এবং আরও টেকসই ভবিষ্যৎ অর্জনের পরিকল্পনা হিসাবে তৈরি করা হয়েছে। টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যগুলো প্রণয়ন করেছে জাতিসংঘ (United Nations) এবং এ প্রতিষ্ঠানটি এই লক্ষ্যমাত্রাকে “টেকসই উন্নয়নের জন্য বৈশ্বিক লক্ষ্যমাত্রা” হিসেবে লক্ষ্যগুলোকে প্রচার করছে। এসব লক্ষ্য সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা-কে প্রতিস্থাপন করেছে, যা ২০১৫ সালের শেষ নাগাদ মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গেছে। SDGs-এর মেয়াদ ২০১৬ থেকে ২০৩০ সাল। এতে মোট ১৭টি লক্ষ্যমাত্রা ও ১৬৯টি সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

মিশন বিবৃতি২০৩০ সালের মধ্যে সবার জন্য একটি আরও ভাল এবং আরও টেকসই ভবিষ্যতের অর্জনের একটি নীলনকশা
প্রকল্পের ধরনঅলাভজনক
অবস্থানবৈশ্বিক
মালিকজাতিসংঘ সমর্থিত এবং সম্প্রদায়ের মালিকানাধীন
প্রতিষ্ঠাতাজাতিসংঘ
প্রতিষ্ঠার সন২০১৫ খ্রিষ্টাব্দ
মেয়াদ২০১৫ থেকে ২০৩০ খ্রিষ্টাব্দ
ওয়েবসাইটsdgs.un.org
লক্ষ্যমাত্রা১৭ টি
সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য১৬৯ টি
এক নজরে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি)

১৭টি এসডিজি হলো—

  • ১. দারিদ্র্য বিলোপ
  • ২. ক্ষুধা মুক্তি
  • ৩. সুস্বাস্থ্য ও কল্যাণ
  • ৪. মানসম্মত শিক্ষা
  • ৫. লিঙ্গ সমতা
  • ৬. নিরাপদ পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন
  • ৭. সাশ্রয়ী ও দূষণমুক্ত জ্বালানি
  • ৮. শোভন কাজ ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি
  • ৯. শিল্প, উদ্ভাবন ও অবকাঠামো
  • ১০.অসমতার হ্রাস
  • ১১. টেকসই নগর ও জনপদ
  • ১২. পরিমিত ভোগ ও উৎপাদন
  • ১৩. জলবায়ু কার্যক্রম
  • ১৪. জলজ জীবন
  • ১৫. স্থলজ জীবন
  • ১৬. শান্তি, ন্যায়বিচার ও কার্যকর প্রতিষ্ঠান
  • ১৭. অভীষ্ট অর্জনে অংশীদারিত্ব৷

টেকসই উন্নয়নের লক্ষমাত্রাগুলো বিস্তৃত এবং পরস্পর নির্ভরশীল এবং এটি গৃহীত হওয়ার দুই বছর পরে ২০১৭ সালের ৬ জুলাই জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ কর্তৃক গৃহীত একটি রেজোলিউশনের মাধ্যমে এসডিজিগুলিকে আরও কার্যকরী করা হয়। রেজোলিউশনে প্রতিটি লক্ষ্যমাত্রার অগ্রগতি পরিমাপ করতে বেশ কয়েকটি সূচকের সাথে প্রতিটি লক্ষ্যের জন্য নির্দিষ্ট অভিষ্ট চিহ্নিত করা হয়েছো। ২০২০ থেকে ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হবে। কয়েকটি লক্ষ্যমাত্রার জন্য কোনো নির্দিষ্ট সময় নির্ধারণ করা হয়নি।

পর্যবেক্ষণের সুবিধার্থে, লক্ষ্যমাত্রাগুলো অগ্রগতি অনুসরণ এবং দৃশ্যমান করার জন্য বিভিন্ন সরঞ্জাম (Tools) রয়েছে। এই সকল সরঞ্জাম সকল তথ্য আরও উপলব্ধ করা এবং সহজে বোঝার অভিপ্রায়ে ব্যবহৃত হয়। উদাহরণস্বরূপ, ২০১৮ সালের জুনে চালু হওয়া অনলাইন প্রকাশনা এসডিজি ট্র্যাকার, সকল সূচকের উপলব্ধ তথ্য উপস্থাপন করে। এসডিজি লিঙ্গ সমতা, শিক্ষা এবং সংস্কৃতির মতো একাধিক ক্রস-কাটিং বিষয়গুলিতে গুরুত্ব আরোপ করে।। ২০২০ সালের ১৭টি এসডিজিতে কোভিড-১৯ মহামারীর গুরুতর প্রভাব ছিল।

২৫-২৭ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক  জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন শীর্ষ সম্মেলন এ বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধানদের আলোচনার মধ্যমে এ লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। সম্মেলনের বিষয়বস্তু ট্রান্সফর্মিং আওয়ার ওয়ার্ল্ড : টেকসই উন্নয়নের জন্য ২০৩০ এজেন্ডা

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি)-এর অনুমোদন

২০১৫-পরবর্তী উন্নয়ন এজেন্ডা নিয়ে আলোচনা জানুয়ারি ২০১৫-এ শুরু হয় এবং আগস্ট ২০১৫-এ শেষ হয়। আলোচনাটি উন্নয়নের জন্য অর্থায়নের বিষয়ে জাতিসংঘের আলোচনার সমান্তরালে চলে, যা ২০১৫-পরবর্তী উন্নয়ন এজেন্ডা বাস্তবায়নের আর্থিক উপায় নির্ধারণ করে; এই আলোচনার ফলে জুলাই ২০১৫-এ আদ্দিস আবাবা অ্যাকশন এজেন্ডা গৃহীত হয়। নিউইয়র্কে ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন শীর্ষ সম্মেলনে একটি চূড়ান্ত নথি গৃহীত হয়েছিল।

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি)-এর লক্ষ্য এবং সূচক

লক্ষ্যমাত্রা এবং সূচকযুক্ত টেকসই বিকাশের ২০৩০ এজেন্ডা সম্পর্কিত পরিসংখ্যান কমিশনের কাজ, জুলাই ২০১৭ (জাতিসংঘের রেজোলিউশন এ/আরইএস /৭১/৩১৩)

প্রতিটি লক্ষ্যে সাধারণত ৮-১২ লক্ষ্য থাকে এবং প্রতিটি লক্ষ্য লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছানোর দিকে অগ্রগতি পরিমাপ করতে ব্যবহৃত হয় ১ থেকে ৪ টি সূচক। লক্ষ্য গুলো হলো:”ফলাফল” লক্ষ্য (পরিস্থিতি অর্জনের লক্ষ্য) বা “বাস্তবায়নের মাধ্যম” লক্ষ্যগুলি।

এসডিজি কীভাবে অর্জন করা যায় সে সম্পর্কে কয়েকটি সদস্য রাষ্ট্রের উদ্বেগের সমাধানের জন্য এসডিজিদের সাথে আলোচনার প্রক্রিয়াতে শেষের লক্ষ্যগুলি প্রবর্তন করা হয়েছিল। লক্ষ্য ১৭ এসডিজি কীভাবে অর্জন করা হবে সে সম্পর্কে পুরোপুরি লক্ষ্যগুলির সংখ্যা নির্ধারণের পদ্ধতিটি নিম্নরূপ: “ফলাফলের লক্ষ্যমাত্রা” ব্যবহার সংখ্যা, যেখানে “প্রয়োগের লক্ষ্যমাত্রার উপায়” ছোট হাতের অক্ষর ব্যবহার করে। উদাহরণস্বরূপ, এসডিজি ৬ এর মোট 8 টি লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। প্রথম ছয়টি ফলাফলের লক্ষ্যমাত্রা এবং ৬.১ থেকে ৬.৬ পর্যন্ত লেবেলযুক্ত। চূড়ান্ত দুটি লক্ষ্যগুলি হ’ল “বাস্তবায়ন লক্ষ্যমাত্রার মাধ্যম” এবং লক্ষ্যগুলি ৬.এ এবং ৬.বি হিসাবে লেবেলযুক্ত। Global fossil fuel subsidies in 2018 were $400 billion. এটি পুনর্নবীকরণযোগ্যদের জন্য অনুমান ভর্তুকি দ্বিগুণ ছিল এবং বৈশ্বিক কার্বন ডাই অক্সাইড নিঃসরণ হ্রাস করার কাজে ক্ষতিকর। 

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা | জাতিসংঘ
টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা | জাতিসংঘ

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি)-এর সূচক পর্যালোচনা

পরিকল্পনা অনুযায়ী, ২০২০ সালে জাতিসংঘের পরিসংখ্যান কমিশনের ৫১তম অধিবেশনে সূচক কাঠামোটি ব্যাপকভাবে পর্যালোচনা করা হয়েছিল। ২০২৫ সালে এটি নিয়ে আবার পর্যালোচনা করা হবে। পরিসংখ্যান কমিশনের ৫১তম অধিবেশনে (৩-৬ মার্চ ২০২০ থেকে নিউইয়র্ক সিটিতে অনুষ্ঠিত) কমিশনের বিবেচনার জন্য বিশ্বব্যাপী সূচক কাঠামোতে মোট ৩৬টি পরিবর্তনের প্রস্তাব করা হয়েছিল। কিছু সূচক প্রতিস্থাপিত, সংশোধিত বা বাতিল করা হয়। ১৫ অক্টোবর ২০১৮ এবং ১৭ এপ্রিল ২০২০-এর মধ্যে, সূচকগুলিতে অন্যান্য পরিবর্তন করা হয়েছিল।

জাতিসংঘের পরিসংখ্যান বিভাগ (ইউএনএসডি) ওয়েবসাইটটি একটি চলমান সরকারী নির্দেশক তালিকা প্রদান করে যেখানে ২০২০ সালের মার্চ মাসে পরিসংখ্যান কমিশনের ৫১তম অধিবেশন সমস্ত আপডেট অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

সূচকগুলিকে তাদের পদ্ধতিগত উন্নয়ন এবং বৈশ্বিক পর্যায়ে তথ্যের প্রাপ্যতার ভিত্তিতে তিনটি স্তরে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়। টায়ার ১ এবং টায়ার ৩ হল সে সূচকগুলো যেগুলো ধারণাগতভাবে বোধগম্য ও একটি আন্তর্জাতিকভাবে প্রতিষ্ঠিত পদ্ধতি রয়েছে এবং অন্তত কিছু দেশ নিয়মিতভাবে তথ্য তৈরি করে।

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি)-এর ১৭টি স্বতন্ত্র অভীষ্ট

লক্ষ্য ১: দারিদ্র্য বিলোপ

এসডিজি ১ হলো “সর্বত্র সব ধরনের দারিদ্র্যের অবসান”।

এসডিজি ১ অর্জন করলে ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী চরম দারিদ্র্যের অবসান ঘটবে। এ লক্ষ্যের অগ্রগতি পরিমাপ করার জন্য সাতটি লক্ষ্য এবং ১৩ টি সূচক রয়েছে।পাঁচটি ফলাফল লক্ষ্য হলো: চরম দারিদ্র্য দূরীকরণ;  সমস্ত দারিদ্র্য অর্ধেক হ্রাস;  সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থা বাস্তবায়ন;  মালিকানা, মৌলিক সেবা, প্রযুক্তি এবং অর্থনৈতিক সম্পদের সমান অধিকার নিশ্চিত করা; এবং পরিবেশগত, অর্থনৈতিক ও সামাজিক বিপর্যয়ের স্থিতিস্থাপকতা তৈরি করা।  এসডিজি ১ অর্জনের উপায় এর সাথে সম্পর্কিত দুটি লক্ষ্য হল দারিদ্র্যের অবসানের জন্য সম্পদ সংগ্রহ করা;  এবং সকল স্তরে দারিদ্র্য বিমোচন নীতি কাঠামো প্রতিষ্ঠা করা।

চলমান অগ্রগতি সত্ত্বেও, বিশ্বের জনসংখ্যার ১০ শতাংশ দারিদ্র্যের মধ্যে বাস করে এবং স্বাস্থ্য, শিক্ষা, এবং পানি ও স্যানিটেশনের মতো মৌলিক চাহিদা পূরণের জন্য সংগ্রাম করে।  নিম্ন-আয়ের দেশগুলিতে চরম দারিদ্র্য রয়ে গেছে বিশেষ করে যারা দ্বন্দ্ব এবং রাজনৈতিক উত্থান দ্বারা প্রভাবিত।  সামাজিক নীতিতে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন না হলে, ২০৩০ সালের মধ্যে চরম দারিদ্র্য নাটকীয়ভাবে বৃদ্ধি পাবে।  গ্রামীণ দারিদ্র্যের হার দাঁড়িয়েছে ১৭.২ শতাংশ এবং শহরাঞ্চলে ৫.৩ শতাংশ (২০১৬ সালে)। যার প্রায় অর্ধেক শিশু।

সেপ্টেম্বর ২০২০-এ প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে দারিদ্র্য মাত্র কয়েক মাসে ৭ শতাংশ বেড়েছে, যদিও তা গত ২০ বছর ধরে ক্রমাগত কমছে।

লক্ষ্য ২: ক্ষুধা মুক্তি

এসডিজি ৩ হলো: “ক্ষুধার অবসান, খাদ্য নিরাপত্তা ও উন্নত পুষ্টিমান অর্জন এবং টেকসই কৃষির প্রসার”।

এসডিজি ২ এর অগ্রগতি পরিমাপের জন্য আটটি লক্ষ্য এবং ১৪ টি সূচক রয়েছে।  পাঁচটি ফলাফল লক্ষ্য হলো: ক্ষুধা নিবারণ এবং খাদ্যের প্রাপ্তি ব্যবস্থা উন্নত করা;  সব ধরনের অপুষ্টির অবসান ঘটানো;  কৃষি উৎপাদনশীলতা;  টেকসই খাদ্য উৎপাদন ব্যবস্থা এবং স্থিতিস্থাপক কৃষি পদ্ধতি; বীজের জিনগত বৈচিত্র্য,গাছপালা চাষ করা এবং গৃহপালিত প্রাণী পালন ;  বিনিয়োগ, গবেষণা এবং প্রযুক্তি।  তিনটি “অর্জন করার উপায়” লক্ষ্যগুলির মধ্যে রয়েছে: বিশ্ব কৃষি বাজার, খাদ্য পণ্যের বাজার এবং তাদের আহরণ -এ বাণিজ্য সীমাবদ্ধতা এবং বিকৃতি মোকাবেলা করা। এটি মোকাবিলা করার একমাত্র সহজ উপায় হচ্ছে উন্নত বিশ্বে শ্রমবাজার জোরদার করা যাতে সল্পতায় উন্নয়নশীল দেশগুলো থেকে দক্ষ, আদা দক্ষ বা অনা দক্ষ শ্রমিক আসতে পরে। এবং উন্নয়নশীল দেশে রাজনৈতিক সহিংসতা। বিশ্বব্যাপী ৯ জনের মধ্যে ১ জন মানুষ অপুষ্টিতে ভুগছে; যাদের অধিকাংশই উন্নয়নশীল দেশে বাস করে।  পুষ্টিহীনতার কারণে বিশ্বব্যাপী ৫২ মিলিয়ন শিশুর উচ্চতার তুলনায় কম বা অতি কম ওজন হয়।  এটি প্রতি বছর পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের প্রায় অর্ধেক (৪৫%) মৃত্যুর জন্য দায়ী – প্রতি বছর ৩.১ মিলিয়ন শিশু।

লক্ষ্য ৩: সুস্বাস্থ্য ও কল্যাণ

এসডিজি ৩ হলো “সকল বয়সী সকল মানুষের জন্য সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতকরণ”

লক্ষ্যমাত্রার দিকে অগ্রগতি পরিমাপ করার জন্য এসডিজি ৩-এ ১৩ টি লক্ষ্য এবং ২৮ টি সূচক রয়েছে।  প্রথম নয়টি লক্ষ্যমাত্রা হল ফলাফল লক্ষ্য । সেগুলি হলো: মাতৃমৃত্যুর হার হ্রাস করা;  পাঁচ বছরের কম বয়সী সকল প্রতিরোধযোগ্য মৃত্যু শেষ করা;  সংক্রামক রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করা;  অসংক্রামক রোগ থেকে মৃত্যুহার হ্রাস নিশ্চিত করা এবং মানসিক স্বাস্থ্যের প্রচার করা;  মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার প্রতিরোধ ও চিকিৎসা করা;  রাস্তার আঘাত এবং মৃত্যু হ্রাস করুন;  যৌন এবং প্রজনন যত্ন, পরিবার পরিকল্পনা এবং শিক্ষার সার্বজনীন অ্যাক্সেস মঞ্জুর করুন;  সার্বজনীন স্বাস্থ্য কভারেজ অর্জন;  এবং বিপজ্জনক রাসায়নিক এবং দূষণ থেকে অসুস্থতা এবং মৃত্যু হ্রাস করে।  এসডিজি ৩ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের চারটি উপায়  হলো: তামাক নিয়ন্ত্রণে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কাঠামোগত সম্মেলন বাস্তবায়ন করা;  গবেষণা, উন্নয়ন এবং সাশ্রয়ী মূল্যের ভ্যাকসিন ও ওষুধের সার্বজনীন প্রাপ্তি সমর্থন করে;  উন্নয়নশীল দেশগুলিতে স্বাস্থ্য অর্থায়ন বৃদ্ধি এবং স্বাস্থ্য কর্মী বাহিনীকে সহায়তা করা;  এবং বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্য ঝুঁকির জন্য প্রারম্ভিক সতর্কতা ব্যবস্থা উন্নত করা।

আয়ু বৃদ্ধি এবং শিশু ও মাতৃমৃত্যুর কিছু সাধারণ কারণ কমাতে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে।  ২০০০ এবং ২০১৬-এর মধ্যে, বিশ্বব্যাপী পাঁচ বছরের কম বয়সী মৃত্যুহার ৪৭ শতাংশ কমেছে (প্রতি ১০০০ জীবিত জন্মে ৭৮ টি মৃত্যু থেকে প্রতি ১০০০ জীবিত জন্মে ৪১ টি মৃত্যু হয়েছে)।  এখনও, পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের মৃত্যুর সংখ্যা খুব বেশি: ২০১৬ সালে ৫.৬ মিলিয়ন।

লক্ষ্য ৪: গুনগত শিক্ষা

এসডিজি ৪ হলো ” সকলের জন্য অন্তর্ভূক্তিমূলক ও সমতাভিত্তিক গুনগত শিক্ষা নিশ্চিতকরণ এবং জীবনব্যাপী শিক্ষা লাভের সুযোগ সৃষ্টি “।

এসডিজি ৪ এর দশটি লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে যা ১১ টি সূচক দ্বারা পরিমাপ করা হয়।  সাতটি “ফলাফল-ভিত্তিক লক্ষ্য” হলো: বিনামূল্যে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা;  মানসম্পন্ন প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষায় সমান প্রবেশাধিকার;  সাশ্রয়ী মূল্যের কারিগরি, বৃত্তিমূলক এবং উচ্চ শিক্ষা;  আর্থিক সাফল্যের জন্য প্রাসঙ্গিক দক্ষতা সহ মানুষের সংখ্যা বৃদ্ধি;  শিক্ষায় সকল বৈষম্য দূর করা;  সর্বজনীন সাক্ষরতা এবং সংখ্যাতা;  এবং টেকসই উন্নয়ন এবং বিশ্ব নাগরিকত্বের জন্য শিক্ষা।  তিনটি “লক্ষ্য অর্জনের উপায়” হলো: অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং নিরাপদ বিদ্যালয় নির্মাণ ও আপগ্রেড করা;  উন্নয়নশীল দেশগুলির জন্য উচ্চ শিক্ষা বৃত্তি প্রসারিত করা;  এবং উন্নয়নশীল দেশে যোগ্য শিক্ষকের সরবরাহ বাড়াতে হবে।

বিশেষ করে প্রাথমিক বিদ্যালয় স্তরে ছেলে ও মেয়ে উভয়ের জন্য শিক্ষার প্রবেশাধিকারের ক্ষেত্রে বড় অগ্রগতি সাধিত হয়েছে।  স্কুল বহির্ভূত শিশুদের সংখ্যা ১৯৯৭ সালে ১১২ মিলিয়ন থেকে ২০১৪ সালে ৬০ মিলিয়নে প্রায় অর্ধেক হয়েছে।  অগ্রগতির পরিপ্রেক্ষিতে, ২০১৮ সালে তৃতীয় শিক্ষায় বিশ্বব্যাপী অংশগ্রহণ ২২৪ মিলিয়নে পৌঁছেছে, যা ৩৮% এর গ্রস নথিভুক্তি অনুপাতের সমতুল্য।

লক্ষ্য ৫: লিঙ্গ সমতা

এসডিজি ৫ হলো ” লিঙ্গ সমতা অর্জন এবং সকল নারী ও মেয়েদের ক্ষমতায়ন “।

“কাউকে পিছিয়ে না দেওয়ার” অঙ্গীকারের মাধ্যমে দেশগুলি প্রথমে সবচেয়ে পিছনে থাকা লোকদের জন্য দ্রুত অগ্রগতির জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে । এসডিজি ৫-এর লক্ষ্য নারী ও মেয়েদের সমান অধিকার, কর্মক্ষেত্রে বৈষম্য বা কোনো সহিংসতা সহ বৈষম্য ছাড়াই মুক্তভাবে বেঁচে থাকার সুযোগ প্রদান করা।  এটি লিঙ্গ সমতা অর্জন এবং সমস্ত নারী ও মেয়েদের ক্ষমতায়নের জন্য।

২০২০ সালে, জাতীয় সংসদের একক বা নিম্নকক্ষে নারীদের প্রতিনিধিত্ব ২৫ শতাংশে পৌঁছেছে, যা ২০১৫ সালের ২২ শতাংশ থেকে কিছুটা বেড়েছে।  ১৩৩ টি দেশ ও এলাকার তথ্যের ভিত্তিতে স্থানীয় পর্যায়ের সিদ্ধান্ত গ্রহণের পদে নারীদের এখন আরও ভালো প্রবেশাধিকার রয়েছে, স্থানীয় ইচ্ছাকৃত সংস্থায় ৩৬ শতাংশ নির্বাচিত আসন রয়েছে।  যদিও মহিলাদের যৌনাঙ্গ কেটে ফেলা এবং কাটা (এফজিএম/সি) কম সাধারণ হয়ে উঠছে, অন্তত 200 মিলিয়ন মেয়ে এবং মহিলা এই ক্ষতিকারক অনুশীলনের শিকার হয়েছে।

লক্ষ্য ৬: নিরাপদ পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন

এসডিজি ৬ হলো “সকলের জন্য পানি ও স্যানিটেশনের টেকসই ব্যবস্থাপনা ও প্রাপ্যতা নিশ্চিত করা “।

ছয়টি “ফলাফল-ভিত্তিক লক্ষ্য” এর মধ্যে রয়েছে: নিরাপদ এবং সাশ্রয়ী পানীয় জল;  উন্মুক্ত মলত্যাগ বন্ধ  এবং স্যানিটেশন এবং স্বাস্থ্যবিধি প্রদান, জলের গুণমান উন্নত করা, বর্জ্য পানি পুনশ্চক্রীকরণ  এবং নিরাপদ পুনঃব্যবহার , জল-ব্যবহারের দক্ষতা বৃদ্ধি  এবং মিঠা পানির সরবরাহ নিশ্চিত করুন, আইডব্লিউআরএম প্রয়োগ করা , জল-সম্পর্কিত বাস্তুতন্ত্র রক্ষা এবং পুনরুদ্ধার ।  দুটি “অর্জনের উপায়” লক্ষ্য হল উন্নয়নশীল দেশগুলিতে জল এবং স্যানিটেশন সহায়তা সম্প্রসারিত করা এবং জল ও স্যানিটেশন ব্যবস্থাপনায় স্থানীয় নিযুক্তি সমর্থন করা।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ডব্লিউএইচও এবং জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক শিশু জরুরী তহবিল ইউনিসেফের জয়েন্ট মনিটরিং প্রোগ্রাম (জেএমপি) ২০১৭ সালে রিপোর্ট করেছে যে ৪.৫ বিলিয়ন লোকের বর্তমানে নিরাপদ স্যানিটেশন ব্যবস্থা নেই।  এছাড়াও ২০১৭ সালে, বিশ্ব জনসংখ্যার মাত্র ৭১ শতাংশ নিরাপদে ম্যানেজড পানীয় জল ব্যবহার করেছে এবং ২.২ বিলিয়ন মানুষ এখনও নিরাপদে ম্যানেজড পানীয় জল ছাড়াই রয়ে গেছে।  জলের চাপের বিষয়ে: “২০১৭ সালে, মধ্য ও দক্ষিণ এশিয়া এবং উত্তর আফ্রিকা খুব উচ্চ জলের চাপ নিবন্ধন করেছে – মোট পুনর্নবীকরণযোগ্য স্বাদু জলের সম্পদের সাথে প্রত্যাহারকৃত তাজা জলের অনুপাত হিসাবে সংজ্ঞায়িত – ৭০ শতাংশের বেশি”। ২০১৮ সালে জল খাতে সরকারী উন্নয়ন সহায়তা বিতরণ বেড়ে $৯ বিলিয়ন হয়েছে। প্রমাণ দেখায় যে সরবরাহ- এবং চাহিদা উভয় পক্ষের হস্তক্ষেপ সাহায্য দ্বারা অর্থায়ন করা প্রচারে জলের প্রাপ্তিতে অবদান রাখতে পারে, তবে ধারাবাহিক দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগ প্রয়োজন।

লক্ষ্য ৭: সাশ্রয়ী ও দূষণমুক্ত জ্বালানি

এসডিজি ৭ হলো ” সকলের জন্য সাশ্রয়ী, নির্ভরযোগ্য, টেকসই ও আধুনিক জ্বালানি সহজলভ্য করা “।

লক্ষ্য ৮: শোভন কাজ ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি

এসডিজি ৮ হলো “সকলের জন্য পূর্নাঙ্গ ও উৎপাদনশীল কর্মসংস্থান এবং শোভন কর্মসুযোগ সৃষ্টি এবং স্থিতিশীল, অন্তর্ভক্তিমূলক ও টেকসই অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন “।

লক্ষ্য ৯: শিল্প, উদ্ভাবন ও অবকাঠামো

এসডিজি ৯ হলো “অভিঘাতসহনশীল অবকাঠামো নির্মাণ, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও টেকসই শিল্পায়নের প্রবর্ধন এবং উদ্ভাবনার প্রসারণ”।

লক্ষ্য ১০: অসমতার হ্রাস

এসডিজি ১০ হলো “অন্তঃ ও আন্তঃ দেশীয় অসমতা কমিয়ে আনা”।

লক্ষ্য ১১: টেকসই নগর ও জনপদ

এসডিজি ১১ হলো “অন্তর্ভুক্তিমূলক, নিরাপদ, অভিঘাতসহনশীল এবং টেকসই নগর ও জনবসতি গড়ে তোলা”।

লক্ষ্য ১২: পরিমিত ভোগ ও টেকসই উৎপাদন

এসডিজি ১২ হলো “পরিমিত ভোগ ও টেকসই উৎপাদনধরন নিশ্চিত করা”।

লক্ষ্য ১৩: জলবায়ু কার্যক্রম

এসডিজি ১৩ হলো “জলবায়ু পরিবর্তন ও এর প্রভাব মোকাবেলায় জরুরি কর্মব্যবস্থা গ্রহণ”।

লক্ষ্য ১৪: জলজ জীবন

এসডিজি ১৪ হলো “টেকসই উন্নয়নের জন্য সাগর, মহাসাগর ও সামুদ্রিক সম্পদের সংরক্ষণ ও টেকসই ব্যবহার”।

লক্ষ্য ১৫: স্থলজ জীবন

এসডিজি ১৫ হলো “স্থলজ বাস্তুতন্ত্রের পুনরুদ্ধার ও সুরক্ষা প্রদান এবং টেকসই ব্যবহারে পৃষ্ঠপোষণা, টেকসই বন ব্যবস্থাপনা, মরুকরণ প্রক্রিয়ার মোকাবেলা, ভূমির অবক্ষয় রোধ ও ভূমি সৃষ্টি প্রক্রিয়ার পুনরুজ্জীবন এবং জীববৈচিত্র হ্রাস প্রতিরোধ”।

লক্ষ্য ১৬: শান্তি, ন্যায়বিচার ও কার্যকর প্রতিষ্ঠান

এসডিজি ১৬ হলো “টেকসই উন্নয়নের জন্য শান্তিপূর্ণ ও অন্তর্ভুক্তিমূলক সমাজব্যবস্থার প্রচলন, সকলের জন্য ন্যায়বিচার প্রাপ্তির পথ সুগম করা এবং সকল স্তরে কার্যকর, জবাবদিহিতাপূর্ণ ও অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রতিষ্ঠান বিনির্মাণ”।

লক্ষ্য ১৭: অভীষ্ট অর্জনে অংশীদারিত্ব

এসডিজি ১৭ হলো “টেকসই উন্নয়নের জন্য বৈশ্বিক অংশীদারিত্ব উজ্জীবনকরণ ও বাস্তবায়নের উপায়সমূহ শক্তিশালী করা “।

বিশ্লেষণ-এর সকল লেটেস্ট নিবন্ধ পেতে Google News-এ অনুসরণ করুন

নিচের মন্তব্যের ঘরে সংক্ষেপে লিখুন আপনার মন্তব্য। মন্তব্যের ভাষা যদি প্রকাশযোগ্য হয় তবে তা এখানে

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সাম্প্রতিক মন্তব্য

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।

অর্থনীতি কাকে বলে? অর্থনীতির সংজ্ঞা, পরিধি বা বিষয়বস্তু কী?

অর্থনীতির ইংরেজি হলো 'ইকোনোমিকস' (Economics); এই ইকোনোমিকস শব্দটি গ্রিক...