০১:০৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
                       

কেমন সানগ্লাস কেনা ও পরা উচিত?

জারিন তাসনিম
  • প্রকাশ: ১২:১১:৩২ অপরাহ্ন, সোমবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • / ১৭০৭ বার পড়া হয়েছে

ইশা সাহা


Google News
বিশ্লেষণ-এর সর্বশেষ নিবন্ধ পড়তে গুগল নিউজে যোগ দিন

বিশেষ শর্তসাপেক্ষে এবং স্বল্পমূল্যে এই ওয়েবসাইটটি সামাজিক কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ কিংবা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নিকট বিক্রি করা হবে।

সানগ্লাস (Sunglasses) আধুনিক লাইফস্টাইলের অন্যতম অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সকল বয়সের মানুষের মধ্যেই সানগ্লাস বেশ জনপ্রিয়, তবে তরুণ-তরুণীদের মধ্যে মধ্যে বেশিই জনপ্রিয়। সানগ্লাস যে শুধু ফ্যাশনেরই অংশ, ঠিক তা নয়; সানগ্লাস ব্যবহারের উপকারিতাও আছে।

সারা বছরই সানগ্লাসের ফ্যাশনে নানা ট্রেন্ড ঘুরে ফিরে আসে। নির্দিষ্ট কোনো বয়সের মানুষের মধ্যে আটকে নেই সানগ্লাস, বাইরে বের হলেই সব বয়সী মানুষকেই সানগ্লাস পরতে দেখা যায়, হোক তরুণ-তরুণী কিংবা বয়স্ক মানুষ, সবার কাছেই সানগ্লাস এখন একটি গ্রহণযোগ্য ফ্যাশন।

সাকিব আল হাসান ২০১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে একটি সানগ্লাস পরা অবস্থায়

তাহলে সানগ্লাস কেনার ক্ষেত্রে কী মাথায় রাখতে হবে?

ভৌগোলিকভাবে বলুন আর প্রকৃতিগতভাবেই চিন্তা করুন, বাংলাদেশ বা ভারতের মতো দেশে বাইরে বের হলেই পাবেন ধুলাবালি; আর রোদ তো থাকবেই। তাই ফ্যাশন সচেতন মানুষের চাহিদা এবং প্রয়োজনের কথা বিবেচনা করেই বিভিন্ন কোম্পানি তৈরি করে ভিন্ন সব স্টাইলের চশমা। স্টাইলের ক্ষেত্রেও রয়েছে স্বতন্ত্র ভাব। যেমন খেলাধুলার সানগ্লাসের ক্ষেত্রে দেখা যায় কিছুটা হালকা ওজনের। স্পোর্টিং ভাব আনতেই উপকরণ হিসেবে ফ্রেম ব্যবহার করা হয় কিছুটা হালকা সাইজের। সানগ্লাস নিয়ে সতর্কতা একটু বেশি জরুরি। সানগ্লাস ওজনে হাল্কা হলে পরতে বেশ আরামদায়ক লাগে।

ভারী ফ্রেমের সানগ্লাসও বাজারে কম নয়। ভারী ফ্রেমের গ্লাস কিনতে আমেরিকান আর্মি, ক্রিশ্চিয়ান ডিওর জনপ্রিয়। অন্যদিকে এডিডাস, ওকলে, কেলভিন ক্লাইন নামক ব্রান্ডের সানগ্লাস খুবই চলছে। তবে তরুণ-তরুণীদের জন্য পছন্দের নামগুলো হলো ডলসি অ্যান্ড গাব্বানা, পলিস, প্রাডা, জর্জিও আরমানি ইত্যাদি ব্র্যান্ড।

সানগ্লাস

ভালো ব্র্যান্ডের আসল সানগ্লাস কিনতে চাইলে ভালো দোকান থেকে কিনতে হবে। পুরুষ ও নারী প্রত্যেকের ক্ষেত্রেই রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন স্টাইল এবং ডিমান্ড। কখনো কখনো দেখা যায় ছেলেমেয়েদের একই রকম স্টাইল।

ছেলে এবং মেয়েদের জন্য আলাদা ডিজাইনের সানগ্লাস পাওয়া যায়। নিজের মুখের আকৃতি, রুচি এবং ব্যক্তিত্ব বিবেচনায় রেখে সানগ্লাস কিনুন। এক্ষেত্রে চেহারা গোলগাল হলে একটু লম্বাটে ধরনের সানগ্লাস বেছে নিন। আবার একটু লম্বাটে ধরনের মুখ হলে গোলগাল ডিজাইন। রঙের ক্ষেত্রে কালো, খয়েরি, সবুজ, ধূসর, নীলসহ বিভিন্ন রং পাওয়া যাচ্ছে।

আবার ব্র্যান্ড ও ধরনভেদে রোদচশমা সানগ্লাসের কার্যকারিতায়ও আছে ভিন্নতা। সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি প্রতিরোধ করে, এমন রোদচশমাকে বলে পোলারাইজড সানগ্লাস। সাধারণ নামী ব্র্যান্ডের চশমাগুলো পোলারাইজড হয়। ছেলে ও মেয়েদের সানগ্লাসেও আছে ভিন্নতা। পাইলট, ওয়েফার বা ওভাল শেপের গ্লাস ছেলেদের জন্য মানানসই।  এক্ষেত্রে কালো, বাদামি অথবা ধূসর রঙ বেছে নিন। মেয়েদের জন্য রয়েছে পাথরের কাজ করা একটু চওড়া ফ্রেমের বেগুনি, গোলাপি, লাল রঙের চশমা।

নুসরাত ফারিয়া
নুসরাত ফারিয়া

আজকাল অবশ্য একটু পুরনো আদলের ডিজাইনগুলো নতুনভাবে ঘুরেফিরে এসেছে। এ সময়ের ফ্যাশনেবল তরুণ-তরুণীরা সানগ্লাসকে ফ্যাশনের অন্যতম অনুষঙ্গ হিসেবে বেছে নিয়েছে।

বিষয়:

শেয়ার করুন

মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার তথ্য সংরক্ষিত রাখুন

লেখকতথ্য

জারিন তাসনিম

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং স্বাধীন লেখক।

বিশেষ শর্তসাপেক্ষে এই ওয়েবসাইটটি সামাজিক কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ কিংবা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নিকট বিক্রি করা হবে।

কেমন সানগ্লাস কেনা ও পরা উচিত?

প্রকাশ: ১২:১১:৩২ অপরাহ্ন, সোমবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

সানগ্লাস (Sunglasses) আধুনিক লাইফস্টাইলের অন্যতম অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সকল বয়সের মানুষের মধ্যেই সানগ্লাস বেশ জনপ্রিয়, তবে তরুণ-তরুণীদের মধ্যে মধ্যে বেশিই জনপ্রিয়। সানগ্লাস যে শুধু ফ্যাশনেরই অংশ, ঠিক তা নয়; সানগ্লাস ব্যবহারের উপকারিতাও আছে।

সারা বছরই সানগ্লাসের ফ্যাশনে নানা ট্রেন্ড ঘুরে ফিরে আসে। নির্দিষ্ট কোনো বয়সের মানুষের মধ্যে আটকে নেই সানগ্লাস, বাইরে বের হলেই সব বয়সী মানুষকেই সানগ্লাস পরতে দেখা যায়, হোক তরুণ-তরুণী কিংবা বয়স্ক মানুষ, সবার কাছেই সানগ্লাস এখন একটি গ্রহণযোগ্য ফ্যাশন।

সাকিব আল হাসান ২০১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে একটি সানগ্লাস পরা অবস্থায়

তাহলে সানগ্লাস কেনার ক্ষেত্রে কী মাথায় রাখতে হবে?

ভৌগোলিকভাবে বলুন আর প্রকৃতিগতভাবেই চিন্তা করুন, বাংলাদেশ বা ভারতের মতো দেশে বাইরে বের হলেই পাবেন ধুলাবালি; আর রোদ তো থাকবেই। তাই ফ্যাশন সচেতন মানুষের চাহিদা এবং প্রয়োজনের কথা বিবেচনা করেই বিভিন্ন কোম্পানি তৈরি করে ভিন্ন সব স্টাইলের চশমা। স্টাইলের ক্ষেত্রেও রয়েছে স্বতন্ত্র ভাব। যেমন খেলাধুলার সানগ্লাসের ক্ষেত্রে দেখা যায় কিছুটা হালকা ওজনের। স্পোর্টিং ভাব আনতেই উপকরণ হিসেবে ফ্রেম ব্যবহার করা হয় কিছুটা হালকা সাইজের। সানগ্লাস নিয়ে সতর্কতা একটু বেশি জরুরি। সানগ্লাস ওজনে হাল্কা হলে পরতে বেশ আরামদায়ক লাগে।

ভারী ফ্রেমের সানগ্লাসও বাজারে কম নয়। ভারী ফ্রেমের গ্লাস কিনতে আমেরিকান আর্মি, ক্রিশ্চিয়ান ডিওর জনপ্রিয়। অন্যদিকে এডিডাস, ওকলে, কেলভিন ক্লাইন নামক ব্রান্ডের সানগ্লাস খুবই চলছে। তবে তরুণ-তরুণীদের জন্য পছন্দের নামগুলো হলো ডলসি অ্যান্ড গাব্বানা, পলিস, প্রাডা, জর্জিও আরমানি ইত্যাদি ব্র্যান্ড।

সানগ্লাস

ভালো ব্র্যান্ডের আসল সানগ্লাস কিনতে চাইলে ভালো দোকান থেকে কিনতে হবে। পুরুষ ও নারী প্রত্যেকের ক্ষেত্রেই রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন স্টাইল এবং ডিমান্ড। কখনো কখনো দেখা যায় ছেলেমেয়েদের একই রকম স্টাইল।

ছেলে এবং মেয়েদের জন্য আলাদা ডিজাইনের সানগ্লাস পাওয়া যায়। নিজের মুখের আকৃতি, রুচি এবং ব্যক্তিত্ব বিবেচনায় রেখে সানগ্লাস কিনুন। এক্ষেত্রে চেহারা গোলগাল হলে একটু লম্বাটে ধরনের সানগ্লাস বেছে নিন। আবার একটু লম্বাটে ধরনের মুখ হলে গোলগাল ডিজাইন। রঙের ক্ষেত্রে কালো, খয়েরি, সবুজ, ধূসর, নীলসহ বিভিন্ন রং পাওয়া যাচ্ছে।

আবার ব্র্যান্ড ও ধরনভেদে রোদচশমা সানগ্লাসের কার্যকারিতায়ও আছে ভিন্নতা। সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি প্রতিরোধ করে, এমন রোদচশমাকে বলে পোলারাইজড সানগ্লাস। সাধারণ নামী ব্র্যান্ডের চশমাগুলো পোলারাইজড হয়। ছেলে ও মেয়েদের সানগ্লাসেও আছে ভিন্নতা। পাইলট, ওয়েফার বা ওভাল শেপের গ্লাস ছেলেদের জন্য মানানসই।  এক্ষেত্রে কালো, বাদামি অথবা ধূসর রঙ বেছে নিন। মেয়েদের জন্য রয়েছে পাথরের কাজ করা একটু চওড়া ফ্রেমের বেগুনি, গোলাপি, লাল রঙের চশমা।

নুসরাত ফারিয়া
নুসরাত ফারিয়া

আজকাল অবশ্য একটু পুরনো আদলের ডিজাইনগুলো নতুনভাবে ঘুরেফিরে এসেছে। এ সময়ের ফ্যাশনেবল তরুণ-তরুণীরা সানগ্লাসকে ফ্যাশনের অন্যতম অনুষঙ্গ হিসেবে বেছে নিয়েছে।