বুধবার, অক্টোবর ৫, ২০২২

বাংলাদেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নজরদারি নিয়ে কিছু প্রশ্ন 

করোনা পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘমেয়াদি সংকটে পড়েছে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা। শিক্ষার্থীদের শিখনঘাটতি কীভাবে পূরণ হবে, তা নিয়ে যখন শিক্ষাবিদদের দুশ্চিন্তার শেষ নেই, সেখানে রাজনৈতিক দলের সম্মেলনের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে শিক্ষার্থীদের পাঠবঞ্চিত রাখার অধিকার কি আমাদের আছে?

কিছু জাতীয় পত্রিকায় দেখলাম, ডিসি ও ইউএনওগণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নজরদারি করবেন। পত্রিকায় আরো দেখলাম, ডিসি সম্মেলনে তারা নাকি এটি দাবি করেছেন। তারা দাবি করলে সরকার তাদের কথা সঙ্গে সঙ্গে মেনে নিয়েছে। বিষয়টি যেহেতু দুর্বল শিক্ষকদের ওপর ঘটতে যাচ্ছে, তাই এ নিয়ে তেমন কোনো কথাবার্তা, আলোচনা কিংবা সমালোচনা দৃষ্টিগোচর হয়নি। প্রশ্ন হচ্ছে, তারা নতুন করে আবার কী পরিদর্শন করবেন, নতুন করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর কর্তৃত্ব ফলানোর কী আছে? বর্তমানেও তো তারাই দেখছেন। উপজেলা শিক্ষা অফিসার, জেলা শিক্ষা অফিসার— তারা কি এখন ইউএনও ও ডিসিদের সামনে পাত্তা পাচ্ছেন? পাচ্ছেন না। একে তো প্রশাসনিক ক্ষমতাবলে এবং প্রটোকলের দিক থেকে তারা এমনিতেই ওপরে, বর্তমানের উপজেলা ও জেলা শিক্ষা অফিসারগণ তাদের পরামর্শ নিয়েই কাজ করেন। তার পরেও আবার অতিরিক্ত নজরদারির বিষয়ে শিক্ষাসংশ্লিষ্টদের মনে প্রশ্ন জেগেছে।

উপজেলা শিক্ষা অফিসর, জেলা শিক্ষা অফিসার (প্রাথমিক ও মাধ্যমিক) দুটি ক্ষেত্রেই ক্যাডার সার্ভিস করা উচিত। ক্যাডার সার্ভিস না হলেও কিন্তু তারা অত্যন্ত গুরুত্বসহকারে তাদের দায়িত্ব পালন করতে পারেন, সে বিষয়টিতেই রয়েছে অনেক ঘাটতি। তাদের কর্মপরিধিতে যদি একাডেমিক বিষয়টি যথাযথ গুরুত্ব পেত, তাহলে আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে অন্যান্য উপদ্রব অনেকটা কম থাকত, ইউএনও ও ডিসিদের আলাদা করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দেখভাল করার কথাও হয়তো উঠত না। আমাদের শিক্ষা কর্মকর্তাদের দৃষ্টি থাকে অন্যদিকে, শিক্ষার মান নিয়ে তাদের খুব একটা উদ্বিঘ্নতা পরিলক্ষিত হয় না। তবে এটি সত্য, বর্তমানে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেসব কমিটি আছে, ব্যতিক্রম ছাড়া শিক্ষার উন্নয়নে তাদের ভূমিকা নিয়ে বিশাল প্রশ্ন আছে। পত্রিকার পাতায় আমরা প্রায় প্রতিদিনই দেখি, কমিটির লোকজন কতৃ‌র্ক, সভাপতি কর্তৃক শিক্ষক লাঞ্ছিত হচ্ছেন। অতএব, এসব অদক্ষ ও পেশিশক্তি প্রদর্শনকারী কমিটির চেয়ে ইউএনও ও ডিসিদের কর্তৃক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দেখভাল করা হাজার গুণে ভালো। তাই কিছু শিক্ষক এতে উচ্ছ্বাসও প্রকাশ করেছেন। কিন্তু শিক্ষকগণ নিশ্চিত হতে পারছেন না, এটি কি কোনো ভালো উদ্দেশ্যে, নাকি খারাপ উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। তাদের সন্দেহের বহু কারণও রয়েছে।

আমাদের জেলা প্রশাসকগণ একধরনের গভর্নর। তারা জনপ্রতিনিধি নন অথচ পুরো জেলার সবকিছুর জন্য তাদের ওপর নির্ভর করা হয়। সরকারের গৃহীত সব ধরনের পদক্ষেপ তাদের মাধ্যমে বাস্তবায়িত হয়। ব্রিটিশরাজ প্রবর্তিত এই প্রথা ২০০ বছরের অধিককাল ধরে টিকে আছে। শুধু টিকে নেই, যেন আরো জোরদার হয়েছে। অথচ হওয়ার কথা ছিল একজন জনপ্রতিনিধি একটি জেলার সার্বিক কল্যাণের দায়িত্বে থাকবেন, আর একজন ডিসি তার সহকর্মীদের নিয়ে সেই সিদ্ধান্তসমূহ রাষ্ট্রপ্রদত্ত অন্যান্য সিদ্ধান্তের সঙ্গে বাস্তবায়ন করবেন। কিন্তু আমরা তা পারিনি।

এলাকার স্কুল-কলেজে শিক্ষক নিয়োগ হবে, প্রধান শিক্ষক ও অধ্যক্ষ নিয়োগ হবে। প্রয়োজন ছিল সবকিছুর ঊর্ধ্বে থেকে প্রকৃত একজন শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া, প্রধান শিক্ষক ও অধ্যক্ষ নিয়োগ দেওয়া। কিন্তু বহু ক্ষেত্রেই আমাদের জনপ্রতিনিধিগণ উপযুক্ত কোনো শিক্ষক বা প্রধান শিক্ষক বা অধ্যক্ষ যাতে নিয়োগ না হয়, তাদের নির্ধারিত লোকদের যাতে নিয়োগ দেওয়া হয়, সেই প্রচেষ্টার সবটাই করে থাকেন। স্বচ্ছতা ও জবাবাদিহি নিশ্চিত করতে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ‘নিয়োগ পুল’ গঠনের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল গতবারের জেলা প্রশাসকদের সম্মেলনে। বেসরকারি কলেজে অধ্যক্ষ ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতি রোধ করার জন্যই এই প্রস্তাব।

কদিন আগে দেখলাম, বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে ঢাকার দক্ষিণখানে সরকারি দলের সম্মেলন করা হয়েছে। যে মাঠে সম্মেলন করা হয়েছে, তার চারদিকে পাশাপাশি একটি টেকনিক্যাল স্কুল ও বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজ, একটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, একটি উচ্চবিদ্যালয়, একটি কিন্ডারগার্টেন এবং একটি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট রয়েছে। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৩ হাজারের মতো শিক্ষার্থী লেখাপড়া করে। সম্মেলনের কারণে সব কটি প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়। স্থানীয় বাসিন্দারা বলেছেন, সাপ্তাহিক ছুটির দিনে এই সম্মেলনের আয়োজন করা যেত। সম্মেলনের কারণে স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখার বিষয়টি ঠিক হয়নি। সরকারি প্রশাসনিক কর্মকর্তাগণ যদি এসব প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বে থাকতেন, তাহলে তারা বিষয়টি নিয়ে চিন্তা করতেন যে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে স্থানীয় সম্মেলন করা যাবে কি না। আমাদের শিক্ষামন্ত্রী বিষয়টি মিডিয়ায় দেখার পর অবশ্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

করোনা পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘমেয়াদি সংকটে পড়েছে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা। শিক্ষার্থীদের শিখনঘাটতি কীভাবে পূরণ হবে, তা নিয়ে যখন শিক্ষাবিদদের দুশ্চিন্তার শেষ নেই, সেখানে রাজনৈতিক দলের সম্মেলনের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে শিক্ষার্থীদের পাঠবঞ্চিত রাখার অধিকার কি আমাদের আছে? আমাদের সারা দেশেই খেলার মাঠের সংখ্যা কমে যাচ্ছে, আমাদের খোলা জায়গা কমে যাচ্ছে। আসলে মানুষের যে চাপ, তাতে এখন খোলা মাঠ বলতে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর মাঠ। এর বাইরে খুব বেশি মাঠ নেই। আমরা রাজনৈতিক, সামাজিক, ধর্মীয় যে অনুষ্ঠান করি না কেন, সেক্ষেত্রে ঘুরেফিরে অধিকাংশ ক্ষেত্রে বিকল্প কোনো মাঠ না থাকার কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর ভবন কিংবা মাঠ কিংবা প্রাঙ্গণ আমরা ব্যবহার করি। এক্ষেত্রে শিক্ষা কার্যক্রম কোনোভাবেই যাতে ব্যাহত না হয়, সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে সবাইকে। সার্বিক বিবেচনায় ইউএনও ও ডিসিদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দেখভাল করার দায়িত্ব দিলে সেটি মঙ্গলজনক একটি পদক্ষেপ। তবে তথাকথিত কমিটিকে বাদ দিতে হবে এবং ইউএনও ও ডিসিগণের শিক্ষকদের প্রতি মানসিকতার পরিবর্তন করে উন্নত মানসিকতা নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে।

বিশ্লেষণ-এর সকল লেটেস্ট নিবন্ধ পেতে Google News-এ অনুসরণ করুন

মাছুম বিল্লাহ
জনাব মাছুম বিল্লাহ ব্র্যাক শিক্ষা কর্মসূচির একজন সাবেক কর্মকর্তা, সাবেক ক্যাডেট কলেজ, রাজউক কলেজ ও বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং ইংলিশ টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ইট্যাব) এর সভাপতি। বাংলা ও ইংরেজি দৈনিকের একজন নিয়মিত কলাম লেখক। জনাব বিল্লাহ অনুবাদক ও সাহিত্য সমালোচক হিসেবেও প্রশংসিত।

নিবন্ধটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানান আমাদেরকে। নিচের মন্তব্যের ঘরে সংক্ষেপে লিখুন আপনার মন্তব্য। মন্তব্যের ভাষা যদি প্রকাশযোগ্য হয় তবে তা এখানে প্রকাশিত হবে। আর যদি আপনার কোনো অপ্রকাশিত নিবন্ধ বিশ্লেষণ-এ প্রকাশ করতে চান তাহলে নিম্নোক্ত ইমেইলে তা পাঠিয়ে দিন নিজের নাম, পরিচয় ও ছবিসহ।

ইমেইল: [email protected]

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সাম্প্রতিক মন্তব্য

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।

সুশাসন কী? সুশাসনের ধারণা, সংজ্ঞা ও উপাদান কী?

সুশাসন হলো এক ধরনের শাসন প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ক্ষমতার...