০১:৫২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
                       

Accounting: হিসাববিজ্ঞান বা হিসাববিজ্ঞানের তথ্য ব্যবহারকারী কারা?

হাসান মাহমুদ রি
  • প্রকাশ: ১২:৫৭:০০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর ২০২১
  • / ১৫১২৯ বার পড়া হয়েছে

Accounting: হিসাববিজ্ঞানের উদ্দেশ্য ও গুরুত্ব বা প্রয়োজনীয়তা কী?

হিসাববিজ্ঞানের শেষ কাজ হলো তথ্য সরবরাহ করা। এই তথ্য প্রতিষ্ঠানের বাহিরে (External) এবং ভিতরে (Internal) উভয় পক্ষসমুহ ব্যবহার করে থাকে। হিসাববিজ্ঞানের তথ্য ব্যবহারকারীদের দুই ভাগে ভাগ করা যায়।

  • ১. অভ্যন্তরীণ ব্যবহারকারী
  • ২. বাহ্যিক ব্যবহারকারী

অভ্যন্তরীন ব্যবহারকারী

হিসাব কর্মকর্তা

প্রতিষ্ঠানের হিসাব সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য হিসাব কর্মকর্তা প্রণয়ন করে। প্রাতিষ্ঠানিক কর্মকান্ড নির্বাহ করতে বিভিন্ন সময় এ তথ্য প্রয়োজন হয়।

ব্যবস্থাপক

ব্যবস্থাপক তাঁর অধঃনস্ত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নিয়ে কাজ করার সময় এ সকল তথ্য অনুযায়ী বিভিন্ন রকমের নির্দেশনা, প্রেষণা ও নিয়ন্ত্রণ করেন।

পরিচালক

প্রতিষ্ঠানের কোনো পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হলে, হিসাববিজ্ঞান সংক্রান্ত অনেক তথ্য প্রয়োজন হয়। হিসাববিজ্ঞানের তথ্য ছাড়া কোনো পরিকল্পনা প্রনয়ন ও বাস্তবায়ন করা যায় না। তাই পরিচালকের নিকট এ তথ্য অতীব জরুরি।

অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষক

নিরীক্ষকের প্রধান কাজ হল, হিসাবের সত্যতা যাচাই করা এবং মূল্যায়ন করা। হিসাব তথ্য ছাড়া নিরীক্ষা কাজ করা অসম্ভব। 

স্বত্বাধিকারী

প্রতিষ্ঠানের মালিক পক্ষ তাদের বিনিয়োগকৃত অর্থের বিনিময়ে অর্জিত আয় সম্পর্কে জানার জন্য এ সকল তথ্য প্রয়োজন। তাদের মূলধন কতটুকু নিরাপত্তায় আছে এবং ভবিষ্যতের সাফল্য সম্পর্কে অনুমান করতে পারে।

বাহ্যিক ব্যবহারকারী

পাওনাদার

পাওনাদার ধারে পণ্য সরবরাহ করে থাকেন। ফলে, উক্ত প্রতিষ্ঠানের দায় পরিশোধ করার ক্ষমতা আছে কিনা তা জানার জন্য হিসাব তথ্য প্রয়োজন।

ভোক্তা

প্রতিষ্ঠানের ভোক্তা হিসাব তথ্য ব্যবহার করেন। যখন পণ্য উৎপাদনের ব্যয় নিয়ন্ত্রণ করে তখন পণ্যের মূল্যও কমে যায়। ফলে হিসাব তথ্য ভোক্তার জন্যেও প্রয়োজন আছে।

বণিক সমিতি

কোনো প্রতিষ্ঠানের হিসাব তথ্যের উপর পর্যালোচনা করে বণিক সমিতি তাদের নীতিমালা তৈরি করে।

বিনিয়োগকারী

বিনিয়োগকারী তার বিনিয়োগকৃত অর্থ নিরাপত্তায় আছে কিনা তাহা জানতে চাইবে। হিসাব তথ্যের উপর নির্ভর করে পুনঃবিনিয়োগ করবে, নাকি বিনিয়োগ উঠিয়ে নিবে এ সকল সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।

আয়কর কর্তৃপক্ষ

কর ধার্যের সময় যে-কোনো প্রতিষ্ঠানের আয় বিবরণী প্রয়োজন। আয় বিবরণীতে সঠিক আয় প্রর্দশন করা হয়েছে কিনা তা জানা প্রয়োজন। সুতরাং হিসাব তথ্য ছাড়া কর ধার্য করা যায় না।

ঋণদাতা

যে-কোনো ঋণদাতা উক্ত প্রতিষ্ঠানের আর্থিক অবস্থা পর্যালোচনা করে ঋণ প্রদান করেন। প্রতিষ্ঠানের ঋণ ও সুদ ফেরত, নিরাপত্তা বিবেচনা করে ঋণ প্রদান করেন।

সরকার

দেশের সরকার প্রতিষ্ঠানের হিসাব তথ্য ব্যবহার করে। হিসাব তথ্যের উপর নির্ভর করে বিক্রয়কর, আয়কর, ও ভ্যাট ধার্য করে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার তথ্য সংরক্ষিত রাখুন

তাহসান খান এবং মুনজেরিন শহীদের দুটি প্রফেশনাল কমিউনিকেশন কোর্স করুন ২৮% ছাড়ে
তাহসান খান এবং মুনজেরিন শহীদের দুটি প্রফেশনাল কমিউনিকেশন কোর্স করুন ২৮% ছাড়ে

২৮℅ ছাড় পেতে ৩০/০৬/২০২৪ তারিখের মধ্যে প্রোমো কোড “professional10” ব্যবহার করুন। বিস্তারিত জানতে ও ভর্তি হতে ক্লিক করুন এখানে

Accounting: হিসাববিজ্ঞান বা হিসাববিজ্ঞানের তথ্য ব্যবহারকারী কারা?

প্রকাশ: ১২:৫৭:০০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর ২০২১

হিসাববিজ্ঞানের শেষ কাজ হলো তথ্য সরবরাহ করা। এই তথ্য প্রতিষ্ঠানের বাহিরে (External) এবং ভিতরে (Internal) উভয় পক্ষসমুহ ব্যবহার করে থাকে। হিসাববিজ্ঞানের তথ্য ব্যবহারকারীদের দুই ভাগে ভাগ করা যায়।

  • ১. অভ্যন্তরীণ ব্যবহারকারী
  • ২. বাহ্যিক ব্যবহারকারী

অভ্যন্তরীন ব্যবহারকারী

হিসাব কর্মকর্তা

প্রতিষ্ঠানের হিসাব সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য হিসাব কর্মকর্তা প্রণয়ন করে। প্রাতিষ্ঠানিক কর্মকান্ড নির্বাহ করতে বিভিন্ন সময় এ তথ্য প্রয়োজন হয়।

ব্যবস্থাপক

ব্যবস্থাপক তাঁর অধঃনস্ত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নিয়ে কাজ করার সময় এ সকল তথ্য অনুযায়ী বিভিন্ন রকমের নির্দেশনা, প্রেষণা ও নিয়ন্ত্রণ করেন।

পরিচালক

প্রতিষ্ঠানের কোনো পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হলে, হিসাববিজ্ঞান সংক্রান্ত অনেক তথ্য প্রয়োজন হয়। হিসাববিজ্ঞানের তথ্য ছাড়া কোনো পরিকল্পনা প্রনয়ন ও বাস্তবায়ন করা যায় না। তাই পরিচালকের নিকট এ তথ্য অতীব জরুরি।

অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষক

নিরীক্ষকের প্রধান কাজ হল, হিসাবের সত্যতা যাচাই করা এবং মূল্যায়ন করা। হিসাব তথ্য ছাড়া নিরীক্ষা কাজ করা অসম্ভব। 

স্বত্বাধিকারী

প্রতিষ্ঠানের মালিক পক্ষ তাদের বিনিয়োগকৃত অর্থের বিনিময়ে অর্জিত আয় সম্পর্কে জানার জন্য এ সকল তথ্য প্রয়োজন। তাদের মূলধন কতটুকু নিরাপত্তায় আছে এবং ভবিষ্যতের সাফল্য সম্পর্কে অনুমান করতে পারে।

বাহ্যিক ব্যবহারকারী

পাওনাদার

পাওনাদার ধারে পণ্য সরবরাহ করে থাকেন। ফলে, উক্ত প্রতিষ্ঠানের দায় পরিশোধ করার ক্ষমতা আছে কিনা তা জানার জন্য হিসাব তথ্য প্রয়োজন।

ভোক্তা

প্রতিষ্ঠানের ভোক্তা হিসাব তথ্য ব্যবহার করেন। যখন পণ্য উৎপাদনের ব্যয় নিয়ন্ত্রণ করে তখন পণ্যের মূল্যও কমে যায়। ফলে হিসাব তথ্য ভোক্তার জন্যেও প্রয়োজন আছে।

বণিক সমিতি

কোনো প্রতিষ্ঠানের হিসাব তথ্যের উপর পর্যালোচনা করে বণিক সমিতি তাদের নীতিমালা তৈরি করে।

বিনিয়োগকারী

বিনিয়োগকারী তার বিনিয়োগকৃত অর্থ নিরাপত্তায় আছে কিনা তাহা জানতে চাইবে। হিসাব তথ্যের উপর নির্ভর করে পুনঃবিনিয়োগ করবে, নাকি বিনিয়োগ উঠিয়ে নিবে এ সকল সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।

আয়কর কর্তৃপক্ষ

কর ধার্যের সময় যে-কোনো প্রতিষ্ঠানের আয় বিবরণী প্রয়োজন। আয় বিবরণীতে সঠিক আয় প্রর্দশন করা হয়েছে কিনা তা জানা প্রয়োজন। সুতরাং হিসাব তথ্য ছাড়া কর ধার্য করা যায় না।

ঋণদাতা

যে-কোনো ঋণদাতা উক্ত প্রতিষ্ঠানের আর্থিক অবস্থা পর্যালোচনা করে ঋণ প্রদান করেন। প্রতিষ্ঠানের ঋণ ও সুদ ফেরত, নিরাপত্তা বিবেচনা করে ঋণ প্রদান করেন।

সরকার

দেশের সরকার প্রতিষ্ঠানের হিসাব তথ্য ব্যবহার করে। হিসাব তথ্যের উপর নির্ভর করে বিক্রয়কর, আয়কর, ও ভ্যাট ধার্য করে।