০৯:৫৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
                       

নীল অর্থনীতির পালে হাওয়া : বাংলাদেশে খাদ্য প্রক্রিয়াকরনে অগ্রগতির আরো এক ধাপ টিনজাত ইলিশ বাজারগাতকরণ 

দেলোয়ার জাহিদ
  • প্রকাশ: ০৯:৫৩:০৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২ জুন ২০২৩
  • / ৫৭৫ বার পড়া হয়েছে


Google News
বিশ্লেষণ-এর সর্বশেষ নিবন্ধ পড়তে গুগল নিউজে যোগ দিন

বিশেষ শর্তসাপেক্ষে এবং স্বল্পমূল্যে এই ওয়েবসাইটটি সামাজিক কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ কিংবা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নিকট বিক্রি করা হবে।

বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় এবং উচ্চ মূল্যের মাছ ইলিশ, এটি একটি সুস্বাদু খাবার এবং দেশের রন্ধনশৈলী একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসাবে বিবেচিত। মাছটি প্রাথমিকভাবে বঙ্গোপসাগর এবং মেঘনা নদীতে ধরা হয় এবং জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এর সর্বোচ্চ মৌসুম।

বাংলাদেশে ইলিশের কদর এত বেশি যে একে “মাছের রাজা” বলা হয়। এটি দেশের খাদ্য সংস্কৃতির একটি উল্লেখযোগ্য অংশ এবং শতাব্দী ধরে সাহিত্য, কবিতা এবং শিল্পে তা পালিত হয়ে আসছে। বাংলা নববর্ষের প্রধান আকর্ষণ পান্তা-ভাত ও ইলিশ। যদিও ইলিশ এখন খাদ্য তালিকায় গরিব ও মধ্যবিত্তের মধ্যবিত্তের বাহিরে। মাছটিকে সাধারণত মশলার মিশ্রণে ম্যারিনেট করে এবং তারপর ভাজা, ভাজা করে প্রস্তুত করা হয়।

বছর জুড়ে আমাদের প্রিয় মাছের এ সরবরাহ এখন আর স্বপ্ন নয় বরং বাস্তবতা। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের দ্বারা উদ্ভাবিত টিনজাত চার স্লাইসের জন্য  দামে আসছে ৩২০ টাকা। বিশ্বব্যাপী, টিনজাত এ মাছ প্রক্রিয়াজাত খাবার হিসাবে যাতায়াতে সাথে নেয়ার লোকদের জন্য একটি দ্রুত এবং ঝামেলামুক্ত বিকল্প খাবার  – তাজা মাছের বিপরীতে এর জন্য প্রস্তুতি ও  রান্নার প্রয়োজন হয় – যা সরাসরি পাত্রের বাইরে ও খাওয়ার জন্য প্রস্তুত।

“মৎস্য ক্যানিং গবেষণার সাথে জড়িত ছিলেন মোঃ মাসুদ রানা, সহ-গবেষক এবং এসএইউ-এর ফিশিং অ্যান্ড হার্ভেস্ট টেকনোলজির সহকারী অধ্যাপক এবং অধ্যাপক ড. কাজী আহসান হাবীব মৎস্য অধিদপ্তরের টেকসই উপকূলীয় ও সামুদ্রিক মৎস্য প্রকল্পের অধীনে অর্থায়নকৃত গবেষণার তত্ত্বাবধান করেন যিনি SAU-এর মৎস্য জীববিজ্ঞান ও জেনেটিক্স বিভাগের চেয়ারম্যান ।

সাগর ফিশ এক্সপোর্ট নামের একটি বেসরকারি সংস্থা টিনজাত ইলিশ পাইলট করার জন্য এগিয়ে আসে।  এ বেসরকারি সংস্থার মালিক আবেদ আহসান সাগর এছাড়াও তিনি কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক।  ২০২২ সালের ডিসেম্বরে সাগর ফিশ ধারণাটি গ্রহণ করে এবং কক্সবাজারের উত্তর নুনিয়ার চাতায় ১.৫ জমির একটি ছোট অংশে তা রূপান্তরিত করে। একটি পাইলটিং উদ্ভিদ। বিগত ৪০ বছরেরও বেশি সময় ধরে মাছের এ ব্যবসা উত্তরাধিকারসূত্রে পেয়েছেন আবেদ আহসান সাগর। গবেষকরা মনে করেন, সাগরের মতই, টিনজাত ইলিশের শিল্পায়ন নিকট ভবিষ্যতে লাখ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করবে। গবেষকরা মনে করেন  প্রয়োজনীয় সব ধরনের অর্থনৈতিক বিশ্লেষণের পর তারা এই মূল্য নির্ধারণ করেছেন। জানা গেছে মডেলের কন্টেইনার গুলো চীন থেকে আমদানি করা, স্থানীয়ভাবে কনটেইনার তৈরি করা গেলে দাম আরও কমে যাবে। এমনকি একজন নিম্ন বিত্তের মানুষ ও মাসে একাধিকবার টিনজাত ইলিশ কিনতে পারবেন আশাবাদ উদোক্তাদের। 

“খাদ্য বিপ্লব” শব্দটি দেশে খাদ্য শিল্পে বিভিন্ন আন্দোলন এবং প্রবণতাকে নির্দেশ করতে পারে, তবে একটি সাধারণ বিষয় হল স্বাস্থ্যকর, আরও টেকসই এবং আরও নৈতিক খাদ্য অনুশীলনের উপর বর্তমানে ফোকাস দেয়া হচ্ছে। 

বাংলাদেশে ইলিশ মাছের জনসংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে, অতিমাত্রায় মাছ ধরা, দূষণ এবং আবাসস্থল ধ্বংসের কারণে  টেকসই মাছ ধরার অনুশীলনের প্রচার এবং নদী ও উপকূলীয় অঞ্চলে দূষণ হ্রাস করে প্রজাতি এবং এর আবাসস্থল রক্ষার জন্য কাজ করার প্রক্রিয়া নিয়ে এগুচ্ছে স্টেপ টু হিউম্যানিটি এসোসিয়েশন ও কোস্টাল১৯।

এ কথা সত্যি খাদ্য বিপ্লবের আরেকটি দিক হল স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত ও  টেকসইভাবে উত্পাদিত খাদ্যের উপর ফোকাস করা। এই প্রবণতা খাদ্য শিল্পের কার্বন পদচিহ্ন কমাতে এবং স্থানীয় কৃষক ও উৎপাদকদের সমর্থন করার ইচ্ছা দ্বারা পরিচালিত হয়ে । এটি নতুন, সম্পূর্ণ খাবারের পক্ষে ভারী প্রক্রিয়াজাত এবং প্যাকেজ করা খাবার থেকে দূরে সরে যাওয়ার প্রশ্ন  জড়িত।

খাদ্য বিপ্লব খাদ্যের প্রবেশাধিকার উন্নত করতে এবং খাদ্যের অপচয় কমানোর জন্য বিভিন্ন প্রচেষ্টাকে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে । এর মধ্যে রয়েছে খাদ্য বন্টন উন্নত করার উদ্যোগ এবং শহুরে অঞ্চলে খাদ্য-মরুভূমি হ্রাস করার পাশাপাশি সরবরাহ শৃঙ্খলের দক্ষতা উন্নত করে এবং খাদ্য অপচয় কমানোর প্রচেষ্টা নেয়া এছাড়াও ভোক্তাদের তাদের নিজস্ব খাদ্য অপচয় কমাতে উত্সাহিত করা প্রয়োজন ।

সামগ্রিকভাবে, খাদ্য বিপ্লব হলো একটি বিস্তৃত আন্দোলন যা স্বাস্থ্যকর, আরও টেকসই, এবং আরও নৈতিক খাদ্য অনুশীলনের প্রচারের লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রবণতা এবং উদ্যোগের একটি পরিসরকে অন্তর্ভুক্ত করে। এটি পরিবেশ এবং জনস্বাস্থ্যের উপর খাদ্য শিল্পের নেতিবাচক প্রভাব সম্পর্কে ক্রমবর্ধমান সচেতনতা এবং সেই সাথে আরও ন্যায্য এবং ন্যায়সঙ্গত খাদ্য ব্যবস্থা তৈরি করার ইচ্ছা দ্বারা চালিত হয়।

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (এসইউ) গবেষকরা সম্প্রতি স্থানীয়ভাবে রাসায়নিকমুক্ত টিনজাত সরষে ইলিশ তৈরি করেছেন যা সাশ্রয়ী মূল্যে উপলব্ধ করা হবে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার তথ্য সংরক্ষিত রাখুন

লেখকতথ্য

দেলোয়ার জাহিদ

সিনিয়র রিসার্চ ফ্যাকাল্টি মেম্বার, প্রাবন্ধিক ও রেড ডিয়ার (আলবার্টা, কানাডা) নিবাসী

বিশেষ শর্তসাপেক্ষে এই ওয়েবসাইটটি সামাজিক কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ কিংবা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নিকট বিক্রি করা হবে।

নীল অর্থনীতির পালে হাওয়া : বাংলাদেশে খাদ্য প্রক্রিয়াকরনে অগ্রগতির আরো এক ধাপ টিনজাত ইলিশ বাজারগাতকরণ 

প্রকাশ: ০৯:৫৩:০৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২ জুন ২০২৩

বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় এবং উচ্চ মূল্যের মাছ ইলিশ, এটি একটি সুস্বাদু খাবার এবং দেশের রন্ধনশৈলী একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসাবে বিবেচিত। মাছটি প্রাথমিকভাবে বঙ্গোপসাগর এবং মেঘনা নদীতে ধরা হয় এবং জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এর সর্বোচ্চ মৌসুম।

বাংলাদেশে ইলিশের কদর এত বেশি যে একে “মাছের রাজা” বলা হয়। এটি দেশের খাদ্য সংস্কৃতির একটি উল্লেখযোগ্য অংশ এবং শতাব্দী ধরে সাহিত্য, কবিতা এবং শিল্পে তা পালিত হয়ে আসছে। বাংলা নববর্ষের প্রধান আকর্ষণ পান্তা-ভাত ও ইলিশ। যদিও ইলিশ এখন খাদ্য তালিকায় গরিব ও মধ্যবিত্তের মধ্যবিত্তের বাহিরে। মাছটিকে সাধারণত মশলার মিশ্রণে ম্যারিনেট করে এবং তারপর ভাজা, ভাজা করে প্রস্তুত করা হয়।

বছর জুড়ে আমাদের প্রিয় মাছের এ সরবরাহ এখন আর স্বপ্ন নয় বরং বাস্তবতা। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের দ্বারা উদ্ভাবিত টিনজাত চার স্লাইসের জন্য  দামে আসছে ৩২০ টাকা। বিশ্বব্যাপী, টিনজাত এ মাছ প্রক্রিয়াজাত খাবার হিসাবে যাতায়াতে সাথে নেয়ার লোকদের জন্য একটি দ্রুত এবং ঝামেলামুক্ত বিকল্প খাবার  – তাজা মাছের বিপরীতে এর জন্য প্রস্তুতি ও  রান্নার প্রয়োজন হয় – যা সরাসরি পাত্রের বাইরে ও খাওয়ার জন্য প্রস্তুত।

“মৎস্য ক্যানিং গবেষণার সাথে জড়িত ছিলেন মোঃ মাসুদ রানা, সহ-গবেষক এবং এসএইউ-এর ফিশিং অ্যান্ড হার্ভেস্ট টেকনোলজির সহকারী অধ্যাপক এবং অধ্যাপক ড. কাজী আহসান হাবীব মৎস্য অধিদপ্তরের টেকসই উপকূলীয় ও সামুদ্রিক মৎস্য প্রকল্পের অধীনে অর্থায়নকৃত গবেষণার তত্ত্বাবধান করেন যিনি SAU-এর মৎস্য জীববিজ্ঞান ও জেনেটিক্স বিভাগের চেয়ারম্যান ।

সাগর ফিশ এক্সপোর্ট নামের একটি বেসরকারি সংস্থা টিনজাত ইলিশ পাইলট করার জন্য এগিয়ে আসে।  এ বেসরকারি সংস্থার মালিক আবেদ আহসান সাগর এছাড়াও তিনি কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক।  ২০২২ সালের ডিসেম্বরে সাগর ফিশ ধারণাটি গ্রহণ করে এবং কক্সবাজারের উত্তর নুনিয়ার চাতায় ১.৫ জমির একটি ছোট অংশে তা রূপান্তরিত করে। একটি পাইলটিং উদ্ভিদ। বিগত ৪০ বছরেরও বেশি সময় ধরে মাছের এ ব্যবসা উত্তরাধিকারসূত্রে পেয়েছেন আবেদ আহসান সাগর। গবেষকরা মনে করেন, সাগরের মতই, টিনজাত ইলিশের শিল্পায়ন নিকট ভবিষ্যতে লাখ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করবে। গবেষকরা মনে করেন  প্রয়োজনীয় সব ধরনের অর্থনৈতিক বিশ্লেষণের পর তারা এই মূল্য নির্ধারণ করেছেন। জানা গেছে মডেলের কন্টেইনার গুলো চীন থেকে আমদানি করা, স্থানীয়ভাবে কনটেইনার তৈরি করা গেলে দাম আরও কমে যাবে। এমনকি একজন নিম্ন বিত্তের মানুষ ও মাসে একাধিকবার টিনজাত ইলিশ কিনতে পারবেন আশাবাদ উদোক্তাদের। 

“খাদ্য বিপ্লব” শব্দটি দেশে খাদ্য শিল্পে বিভিন্ন আন্দোলন এবং প্রবণতাকে নির্দেশ করতে পারে, তবে একটি সাধারণ বিষয় হল স্বাস্থ্যকর, আরও টেকসই এবং আরও নৈতিক খাদ্য অনুশীলনের উপর বর্তমানে ফোকাস দেয়া হচ্ছে। 

বাংলাদেশে ইলিশ মাছের জনসংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে, অতিমাত্রায় মাছ ধরা, দূষণ এবং আবাসস্থল ধ্বংসের কারণে  টেকসই মাছ ধরার অনুশীলনের প্রচার এবং নদী ও উপকূলীয় অঞ্চলে দূষণ হ্রাস করে প্রজাতি এবং এর আবাসস্থল রক্ষার জন্য কাজ করার প্রক্রিয়া নিয়ে এগুচ্ছে স্টেপ টু হিউম্যানিটি এসোসিয়েশন ও কোস্টাল১৯।

এ কথা সত্যি খাদ্য বিপ্লবের আরেকটি দিক হল স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত ও  টেকসইভাবে উত্পাদিত খাদ্যের উপর ফোকাস করা। এই প্রবণতা খাদ্য শিল্পের কার্বন পদচিহ্ন কমাতে এবং স্থানীয় কৃষক ও উৎপাদকদের সমর্থন করার ইচ্ছা দ্বারা পরিচালিত হয়ে । এটি নতুন, সম্পূর্ণ খাবারের পক্ষে ভারী প্রক্রিয়াজাত এবং প্যাকেজ করা খাবার থেকে দূরে সরে যাওয়ার প্রশ্ন  জড়িত।

খাদ্য বিপ্লব খাদ্যের প্রবেশাধিকার উন্নত করতে এবং খাদ্যের অপচয় কমানোর জন্য বিভিন্ন প্রচেষ্টাকে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে । এর মধ্যে রয়েছে খাদ্য বন্টন উন্নত করার উদ্যোগ এবং শহুরে অঞ্চলে খাদ্য-মরুভূমি হ্রাস করার পাশাপাশি সরবরাহ শৃঙ্খলের দক্ষতা উন্নত করে এবং খাদ্য অপচয় কমানোর প্রচেষ্টা নেয়া এছাড়াও ভোক্তাদের তাদের নিজস্ব খাদ্য অপচয় কমাতে উত্সাহিত করা প্রয়োজন ।

সামগ্রিকভাবে, খাদ্য বিপ্লব হলো একটি বিস্তৃত আন্দোলন যা স্বাস্থ্যকর, আরও টেকসই, এবং আরও নৈতিক খাদ্য অনুশীলনের প্রচারের লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রবণতা এবং উদ্যোগের একটি পরিসরকে অন্তর্ভুক্ত করে। এটি পরিবেশ এবং জনস্বাস্থ্যের উপর খাদ্য শিল্পের নেতিবাচক প্রভাব সম্পর্কে ক্রমবর্ধমান সচেতনতা এবং সেই সাথে আরও ন্যায্য এবং ন্যায়সঙ্গত খাদ্য ব্যবস্থা তৈরি করার ইচ্ছা দ্বারা চালিত হয়।

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (এসইউ) গবেষকরা সম্প্রতি স্থানীয়ভাবে রাসায়নিকমুক্ত টিনজাত সরষে ইলিশ তৈরি করেছেন যা সাশ্রয়ী মূল্যে উপলব্ধ করা হবে।