প্রবাসে নাগরিকত্ব গ্রহণকারী বাংলাদেশি ও রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের নিয়ে কৌশল, চ্যালেঞ্জ এবং এগিয়ে যাওয়ার পথ বাধা সমন্বয়হীনতা  

জাতীয় উন্নয়ন প্রচেষ্টায় অনাবাসী বাংলাদেশিদের সম্পৃক্ত করার জন্য বাংলাদেশের প্রচেষ্টাকে আরও ত্বরান্বিত করতে হবে। প্রবাসী বাংলাদেশিদের সর্বোচ্চ সেবা প্রদানে সমন্বিত পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। প্রবাসীদের জন্য উৎসাহজনক ও দৃশ্যমান সুযোগ সুবিধা প্রদান করা হলে রেমিট্যান্স ও বিনিয়োগ বাড়বে।

বাংলাদেশ হাই কমিশন, লন্ডন এর উদ্যোগে এবং অনুরোধে গত ১৮ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক স্মারকে জানানো হয়েছে যে, এখন থেকে যুক্তরাজ্যের নাগরিকত্ব গ্রহণকারী বাংলাদেশি নাগরিকসহ দ্বিতীয় বা তৃতীয় প্রজন্ম পর্যন্ত বাংলাদেশি নাগরিকত্ব বহাল থাকবে বিধায় তাদের বাংলাদেশি পাসপোর্ট পেতে দ্বৈত নাগরিকত্ব সনদের প্রয়োজন নেই। এ প্রেক্ষাপটে দ্বিতীয় বা তৃতীয় প্রজন্মের বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত ব্রিটিশ নাগরিকগণ শুধুমাত্র জন্মনিবন্ধন সনদ এবং পিতা/মাতার বাংলাদেশি পাসপোর্টের ভিত্তিতে নতুন বাংলাদেশি পাসপোর্ট গ্রহণ করতে পারবেন।(জিবিএন, ২০ ডিসেম্বর ২০২২) প্রতিবেদনটিতে প্রকাশ, ইতোপুর্বে বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর কর্তৃক ব্রিটিশ-বাংলাদেশি দ্বৈত নাগরিকগণের সন্তানদের বাংলাদেশি পাসপোর্ট প্রাপ্তির ক্ষেত্রে দ্বৈত নাগরিকত্ব সনদ প্রদান বাধ্যতামূলক করার ফলে সৃষ্ট দীর্ঘসূত্রিতার কারণে উল্লিখিত সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনাকরণের জন্য বাংলাদেশ হাই কমিশন লন্ডন সরকারের উচ্চ পর্যায়ে পত্র প্রেরণ করে এবং যোগাযোগ অব্যাহত রাখে। তারই ফলশ্রুতিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গত ১৮ ডিসেম্বর উল্লিখিত স্মারক ইস্যু করে।

অস্থায়ী এবং স্থায়ী বাংলাদেশিদের অভিবাসীদের প্রতি এ প্রতিবেদনটি দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।  দূতাবাসের নেয়া এটি একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ। কিন্তু সুযোগটি কি শুধুমাত্র যুক্তরাজ্যের নাগরিকত্ব গ্রহণকারী বাংলাদেশি নাগরিকসহ তাদের দ্বিতীয় বা তৃতীয় প্রজন্ম পর্যন্তদের জন্য নাকি বিদেশে সকল বাংলাদেশী নাগরিকত্ব গ্রহণকারীদের জন্য সমভাবে প্রযোজ্য তা স্পষ্ট নয়.

আন্তর্জাতিক সংস্থা অনুসারে মাইগ্রেশনের (IOM) ওয়ার্ল্ড মাইগ্রেশন রিপোর্ট ২০২০ এর তথ্য মতে মোট ৭.৫ মিলিয়ন বাংলাদেশি বিদেশে বসবাস করে, দেশটি আন্তর্জাতিক অভিবাসীদের জন্য শীর্ষ ২০টি দেশের মধ্যে ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে। আন্তর্জাতিক এ সংস্থার মতে, ভারত এখনও আন্তর্জাতিক অভিবাসীদের জন্য সবচেয়ে বড় দেশ, যেখানে ১৭.৫ মিলিয়ন ভারতীয় বিদেশে বসবাস করে, তারপরে মেক্সিকো (১১.৮ মিলিয়ন), চীন (১০.৭ মিলিয়ন), রাশিয়া (১০.৬ মিলিয়ন) এবং সিরিয়া (৫.৬ মিলিয়ন)…প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অভিবাসীদের পাঠানো আন্তর্জাতিক রেমিট্যান্স ২০১৮ সালে বেড়ে $৬৮৯ বিলিয়ন হয়েছে, যার শীর্ষ সুবিধাভোগীরা হচ্ছে ভারত ($৭৮.৬ বিলিয়ন), চীন ($৬৭.৪ বিলিয়ন), মেক্সিকো ($৩৫.৭ বিলিয়ন) এবং ফিলিপাইন ($৩৪ বিলিয়ন)।

জাতীয় উন্নয়ন প্রচেষ্টায় অনাবাসী বাংলাদেশিদের সম্পৃক্ত করার জন্য বাংলাদেশের প্রচেষ্টাকে আরও ত্বরান্বিত করতে হবে। প্রবাসী বাংলাদেশিদের সর্বোচ্চ সেবা প্রদানে সমন্বিত পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। প্রবাসীদের জন্য উৎসাহজনক ও দৃশ্যমান সুযোগ সুবিধা প্রদান করা হলে রেমিট্যান্স ও বিনিয়োগ বাড়বে।

সরকারি সূত্রে বর্তমানে প্রায় ৭.৫ মিলিয়ন বাংলাদেশি অভিবাসী সারা বিশ্বে কাজ করছে। বার্ষিক বাংলাদেশ থেকে অভিবাসন প্রায় ০.৩-০.৪মি. ২০১০ সালে, মাইগ্রেশন বাংলাদেশ থেকে ছিল ৩,৯০,৭০২ জন। বাংলাদেশী শ্রমিকদের মূলত ১৪৩ জন নিয়োজিত বিশ্বের দেশগুলি কিন্তু প্রায় ৯০% অভিবাসন মধ্যভাগে হয় পূর্ব ও মালয়েশিয়া। লিবিয়া, কাতার সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কুয়েত, ওমান, মালয়েশিয়া এবং সিঙ্গাপুর গন্তব্যের কয়েকটি প্রধান দেশ। বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে দুই ধরনের আন্তর্জাতিক অভিবাসন ঘটে। স্থানটি বেশিরভাগ শিল্পোন্নত পশ্চিমে এবং অন্যটি মধ্যপ্রাচ্য ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশগুলো। শিল্পোন্নত পশ্চিমে স্বেচ্ছায় অভিবাসন অন্তর্ভুক্ত স্থায়ী বাসিন্দা, অভিবাসী, ওয়ার্ক পারমিট ধারক এবং পেশাদার। তারা সাধারণত দীর্ঘমেয়াদী বা স্থায়ী অভিবাসী হিসেবে ধরা হয়।

বিভিন্ন মহাদেশ ও দেশে বসবাসকারী অভিবাসীরা “বাংলাদেশি” নামে পরিচিত “ডায়াস্পোরা” যাদের মধ্যে দেশে  উল্লেখযোগ্য অবদান রাখার অপার সম্ভাবনা রয়েছে।  বাংলাদেশি অ্যাকাডেমিয়া, সুশীল সমাজের সদস্য ও থিঙ্ক ট্যাঙ্কের অংশ যারা প্রবাসে রয়েছেন তাদের দক্ষতা, প্রযুক্তি জ্ঞান, রেমিট্যান্স ও দেশপ্রেম বাংলাদেশের উন্নয়নে সমন্বিতভাবে কাজে লাগাতে হবে।

দেলোয়ার জাহিদ
সিনিয়র রিসার্চ ফ্যাকাল্টি মেম্বার, প্রাবন্ধিক ও রেড ডিয়ার (আলবার্টা, কানাডা) নিবাসী
এ বিষয়ের আরও নিবন্ধ

মূল্যস্ফীতি কী এবং মূল্যস্ফীতি কীভাবে মানুষের জীবনকে প্রভাবিত করে?

মূল্যস্ফীতি হলো কোনো একটি নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে কোনো নির্দিষ্ট পণ্যের বা পণ্যসমূহের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়া। মূল্যস্ফীতি বিভিন্নভাবে একটি দেশে বসবাসরত মানুষের জীবনকে...

বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগে ইউজিসির স্বতন্ত্র কমিশন গঠনের প্রস্তাব: দুর্নীতি প্রতিরোধ করতে পারবে?

জানুয়ারি ১২, ২০২৩ তারিখ সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের কাছে বাংলাদেশের ইউনিভার্সিটি গ্রান্ট কমিশন (ইউজিসি) ১৭ দফা সুপারিশ সহ একটি বার্ষিক প্রতিবেদন...

‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ বাস্তবায়নের জন্য যা প্রয়োজন

স্মার্ট বাংলাদেশ মানেই আধুনিক কারিগরি প্রযুক্তির সর্বাত্মক ব্যবহার নয়। একজন মানুষ সে নারী অথবা পুরুষ হোক না কেন তার সাজসজ্জা পোশাক-আশাক, চলন-বলন...

দেশের উন্নয়নে নারী শিক্ষা

প্রাচীনকাল থেকে আমাদের দেশে প্রচলিত আছে যে, ‘সংসার সুখী হয় রমণীর গুণে’। মানবসমাজে নারী ও পুরুষ পরস্পর নির্ভরশীল হলেও আগেকার দিনে নারীকে...
আরও পড়তে পারেন

রাষ্ট্রবিজ্ঞান বলতে কী বোঝায় এবং ভারতীয় উপমহাদেশে রাজনীতি বা রাষ্ট্রচিন্তা

রাষ্ট্রবিজ্ঞান (Political Science) সমাজবিজ্ঞানের একটি শাখাবিশেষ যেখানে পরিচালন প্রক্রিয়া, রাষ্ট্র, সরকার এবং রাজনীতি সম্পর্কীয় বিষয়াবলী নিয়ে আলোকপাত করা হয়।  এরিস্টটল রাষ্ট্রবিজ্ঞানকে রাষ্ট্র...

গণতন্ত্রের সংজ্ঞা কী বা গণতন্ত্র বলতে কী বোঝায়

গণতন্ত্র বলতে কোনো জাতিরাষ্ট্রের অথবা কোনো সংগঠনের এমন একটি শাসনব্যবস্থাকে বা পরিচালনাব্যবস্থাকে বোঝায় যেখানে নীতিনির্ধারণ বা সরকারি প্রতিনিধি নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রত্যেক নাগরিক...

সমাজতন্ত্র কী? সমাজতন্ত্রের উৎপত্তি, ইতিহাস, বৈশিষ্ট্য, সুবিধা, অসুবিধা ও অর্থনীতি

সোভিয়েত ইউনিয়নে সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র কায়েম করা হয়েছিল ১৯১৭ সালে। সমাজতন্ত্রে বৈরি শ্রেণি নেই, কেননা কলকারখানা, ভূমি, সবই সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রের সম্পত্তি। সমাজতন্ত্রে শ্রেণি...

জীবনী: সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী

সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী ছিলেন একজন বাঙালি লেখক ও কবি। তিনি উনিশ ও বিশ শতকে বাঙালি মুসলিম পুনর্জাগরণের প্রবক্তাদের একজন। সিরাজী মুসলিমদের...

জীবনী: সুভাষ মুখোপাধ্যায়

বাঙালি সম্প্রদায়ের মধ্যে খুবই জনপ্রিয় একটি হলো "ফুল ফুটুক না ফুটুক, আজ বসন্ত"; এই উক্তিটি কার জানেন? উক্তিটি পশ্চিমবঙ্গের কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের।...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here