দেশের উন্নয়নে নারী শিক্ষা

সম্রাট নেপোলিয়ন জাতির উদ্দেশ্যে বলেছেন, ‘আমাকে তোমরা শিক্ষিত মা দাও, আমি তোমাদের শিক্ষিত জাতি উপহার দেবো।’

প্রাচীনকাল থেকে আমাদের দেশে প্রচলিত আছে যে, ‘সংসার সুখী হয় রমণীর গুণে’। মানবসমাজে নারী ও পুরুষ পরস্পর নির্ভরশীল হলেও আগেকার দিনে নারীকে গৃহসামগ্রীক কল্যাণার্থে বিবেচনা করা হতো। নারীকে তাদের স্বামী কিংবা পরিবারের ক্রীতদাসী হিসেবে ব্যবহার করা হতো। নারী শিক্ষার কথা কেউ ভাবত না, তখন পিতা-মাতারা তাদের কন্যাকে বিয়ে দিয়ে নাকি দায় মুক্ত হতেন? যার ফলে নানা রকম নির্যাতন তাদের সহ্য করতে হয়, কখনও প্রতিবাদী হতে পারত না। আজ আর সেদিন নেই, বর্তমান নারীরা পুরুষের পাশাপাশি কাজেই নেমেছে। 

তাই আজকাল নারী শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে। যেসব মহিলারা অশিক্ষিত তারা শুধু পরিবারেরই বোঝা নয়, জাতির জন্য বড়ো বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে। আজ দেশ ও জাতির উন্নয়নের জন্য নারী শিক্ষার গুরুত্ব অনেক বলে বিবেচিত। বাংলাদেশের সমাজব্যবস্থা অনেক আগে থেকেই নারী ও পুরুষের বেলায় শিক্ষার গুরুত্ব ও সমানভাবে বিচার করা হয়নি। পুরুষ শাসিত সমাজে পুরুষের জন্য শিক্ষার সুযোগ ও উদার মানসিকতা যতটুকু আছে, নারীর জন্য ততটুকু নেই বলে চলে?। ফলে একই পরিবারের পুরুষের শিক্ষার অগ্রগতির নমুনা থাকলেও নারীর সুযোগ করে দেয়া হয়নি। পরিণামে আমাদের সমাজ তারা অগ্রসর হতে পারেনি। তবে উন্নত দেশগুলোর দিকে তাকালে দেখা যায়, তারা নারী শিক্ষার প্রয়োজনীয়তায় অনেক গুরুত্ব দিচ্ছে।

নারী শিক্ষার প্রয়োজনীয় সম্পর্কে আজ আর কোনো দ্বিধাদ্বন্দ্ব নেই। নারীরা দেশের জনসংখ্যার অর্ধেক হলেও আমাদের জাতীয় জীবনে পুরুষের মতো সমান গুরুত্বপূর্ণ। তাই অর্ধেক নারী জনসংখ্যাকে বাদ দিয়ে জাতির উন্নতি আশা করা যায় না। সম্রাট নেপোলিয়ন জাতির উদ্দেশ্যে বলেছেন, ‘আমাকে তোমরা শিক্ষিত মা দাও, আমি তোমাদের শিক্ষিত জাতি উপহার দেবো।’

শিক্ষার অভাবে নারীরা আজ যথাযথ ভূমিকা পালন করতে পারছে না। তাই জাতির উন্নয়নের স্বার্থে নারী জাতিকে অবশ্যই শিক্ষার আলো লাভ করতে হবে। নারীর ভূমিকা প্রধানত মা হিসেবে হলেও রাষ্ট্রীয় ও সমাজ জীবনে ব্যবসা বাণিজ্যে সর্বক্ষেত্রে আজ নারীদের ভূমিকা তাৎপর্যপূর্ণ নয়?। কারণ পুরুষের পাশাপাশি নারীরা বর্তমানে অফিস আদালতে কলকারখানায় কাজ করছে এবং আরও এগিয়ে যাওয়ার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে?। শুধু তাই নয়, অর্ধেক নারী যদি শিক্ষিত থাকে, তবে দেশকে এক বিরাট বোঝা বহন করতে হবে।

তাই জাতীয় জীবনে সর্বাঙ্গীণ কল্যাণের জন্য নারী শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম।

নারীর ভূমিকা প্রধানত জননী হিসেবে বিবেচ্য। আগামী দিনের নাগরিক আজকের শিশুরা জননীর কোলে প্রতিপালিত হয়। ছেলেমেয়েদের লালন পালনের দায়িত্ব মায়েরা বহন করেন, শিশুর প্রাথমিক শিক্ষা ক্ষেত্রে প্রধান দায়িত্ব অর্পিত হয় মায়ের ওপর। ছেলেমেয়েদের ব্যবহার রীতিনীতি ইত্যাদি উৎস হলেন জননী।

মায়ের হাতে সন্তানের যে শিক্ষা লাভ হয়ে থাকে, তা দিয়ে আগামী দিনের জীবনকে নিয়ন্ত্রিত করে। এক্ষেত্রে বা যদি উপযুক্ত শিক্ষায় শিক্ষিত না হন, তাহলে সন্তানের জীবন গঠনে তিনি তার ভূমিকা ভালো-মন্দ বোঝার উপায় থাকে না বরং অশিক্ষিত মায়ের কাছ থেকে কখনও আশা করা যায় না। এদিকে নারী শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি।

জাতির বৃহত্তর স্বার্থে নারী সমাজের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষভাবে স্বীকার করে নিতে হবে, এ ভূমিকা যাতে বেশি পরিমাণে কার্যকর করা যায়, সেদিকে দৃষ্টি রাখা প্রয়োজন। নারী যোগ্যতা লাভের জন্য দরকার উপযুক্ত শিক্ষা-দীক্ষা পুরুষের মতো নারী সমাজকে এগিয়ে যেতে হবে এবং শিক্ষার আলোকে নিজেদের জীবনকে যোগ্যতার সম্পন্ন করতে হবে।

এরই মধ্যে বিভিন্ন দেশে প্রমাণ করে দিয়েছেন যে নারীরা পুরুষের চেয়ে নিম্ন পর্যায়ভুক্ত নন। যেমন- রাশিয়া, আমেরিকা, ফ্রান্স, ইংল্যান্ড প্রভৃতি দেশের নারীরা বিজ্ঞান, সাহিত্য, শিল্পকলা এমনকি সামরিক ক্ষেত্রে যোগ্যতা ও দক্ষতা প্রমাণ করেছেন। সমাজসেবা ও রাজনীতির বেলায় তারা পিছিয়ে নেই, প্রাসঙ্গিকভাবেই যাদের নাম আসে, তারা হলেন সুলতানা রাজিয়া, হেলেন কিলার, মাদার কুরি, মাদার তেরেসা বেনজীর ভুট্টু প্রমুখ।

আমাদের দেশে নারী শিক্ষার অভাবে আজ যৌতুক প্রথা অভিশাপের মুখে পড়েছে। তাই দেশের উন্নতি ও জাতির যথার্থ কল্যাণের কথা বিবেচনা করে নারী শিক্ষাকে জোর দিতে হবে। তাহলে আমরা উন্নয়নের শেখরে ঘুরে দাঁড়াতে পারব।

মুহাম্মদ হাফিজুর রহমান
শিক্ষার্থী, উত্তর বাংলা বিশ্ববিদ্যালয় 
এ বিষয়ের আরও নিবন্ধ

বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগে ইউজিসির স্বতন্ত্র কমিশন গঠনের প্রস্তাব: দুর্নীতি প্রতিরোধ করতে পারবে?

জানুয়ারি ১২, ২০২৩ তারিখ সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের কাছে বাংলাদেশের ইউনিভার্সিটি গ্রান্ট কমিশন (ইউজিসি) ১৭ দফা সুপারিশ সহ একটি বার্ষিক প্রতিবেদন...

‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ বাস্তবায়নের জন্য যা প্রয়োজন

স্মার্ট বাংলাদেশ মানেই আধুনিক কারিগরি প্রযুক্তির সর্বাত্মক ব্যবহার নয়। একজন মানুষ সে নারী অথবা পুরুষ হোক না কেন তার সাজসজ্জা পোশাক-আশাক, চলন-বলন...

প্রবাসে নাগরিকত্ব গ্রহণকারী বাংলাদেশি ও রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের নিয়ে কৌশল, চ্যালেঞ্জ এবং এগিয়ে যাওয়ার পথ বাধা সমন্বয়হীনতা  

বাংলাদেশ হাই কমিশন, লন্ডন এর উদ্যোগে এবং অনুরোধে গত ১৮ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক স্মারকে জানানো হয়েছে যে, এখন থেকে...

নতুন শিক্ষা কারিকুলামে প্রত্যাশা

শিক্ষা প্রত্যেক নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার। শিক্ষা হবে সর্বজনীন। শিক্ষা হবে সহজলভ্য, প্রাণচাঞ্চল্য। শিক্ষা হবে মানবিক, আধুনিক, বিজ্ঞানভিত্তিক, যুক্তিনির্ভর। শিক্ষা মানুষকে লড়তে শেখায়...
আরও পড়তে পারেন

রাষ্ট্রবিজ্ঞান বলতে কী বোঝায় এবং ভারতীয় উপমহাদেশে রাজনীতি বা রাষ্ট্রচিন্তা

রাষ্ট্রবিজ্ঞান (Political Science) সমাজবিজ্ঞানের একটি শাখাবিশেষ যেখানে পরিচালন প্রক্রিয়া, রাষ্ট্র, সরকার এবং রাজনীতি সম্পর্কীয় বিষয়াবলী নিয়ে আলোকপাত করা হয়।  এরিস্টটল রাষ্ট্রবিজ্ঞানকে রাষ্ট্র...

গণতন্ত্রের সংজ্ঞা কী বা গণতন্ত্র বলতে কী বোঝায়

গণতন্ত্র বলতে কোনো জাতিরাষ্ট্রের অথবা কোনো সংগঠনের এমন একটি শাসনব্যবস্থাকে বা পরিচালনাব্যবস্থাকে বোঝায় যেখানে নীতিনির্ধারণ বা সরকারি প্রতিনিধি নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রত্যেক নাগরিক...

সমাজতন্ত্র কী? সমাজতন্ত্রের উৎপত্তি, ইতিহাস, বৈশিষ্ট্য, সুবিধা, অসুবিধা ও অর্থনীতি

সোভিয়েত ইউনিয়নে সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র কায়েম করা হয়েছিল ১৯১৭ সালে। সমাজতন্ত্রে বৈরি শ্রেণি নেই, কেননা কলকারখানা, ভূমি, সবই সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রের সম্পত্তি। সমাজতন্ত্রে শ্রেণি...

জীবনী: সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী

সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী ছিলেন একজন বাঙালি লেখক ও কবি। তিনি উনিশ ও বিশ শতকে বাঙালি মুসলিম পুনর্জাগরণের প্রবক্তাদের একজন। সিরাজী মুসলিমদের...

জীবনী: সুভাষ মুখোপাধ্যায়

বাঙালি সম্প্রদায়ের মধ্যে খুবই জনপ্রিয় একটি হলো "ফুল ফুটুক না ফুটুক, আজ বসন্ত"; এই উক্তিটি কার জানেন? উক্তিটি পশ্চিমবঙ্গের কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের।...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here