রবিবার, নভেম্বর ২৭, ২০২২

কোলেস্টেরল সম্পর্কে ভুল ধারণা

কোলেস্টেরল আমাদের শরীরের জন্য একটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় রাসায়নিক যৌগ। শরীরে পর্যাপ্ত কোলেস্টেরল না থাকলে ভিটামিন ডি, টেস্টোস্টেরন, ইসট্রোজেন ও অ্যালডোস্টেরন জাতীয় অত্যাবশ্যকীয় হরমোন উৎপাদন কমে যাবে। ফলে শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমে গেলে অসুস্থতার উপসর্গ দেখা দেবে, যৌন ক্ষমতা হ্রাস পাবে এবং শরীরে হতাশা বাসা বাঁধবে।

কয়েক দশক ধরে আমাদের চিকিৎসকরা বলে আসছেন, কোলেস্টেরল স্ট্রোক ও হৃদরোগের মূল কারণ এবং এসব রোগ থেকে বাঁচতে হলে আমাদের রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে হবে। লাইফস্টাইল পরিবর্তন বা প্রাকৃতিক উপায়ে নয়, কোলেস্টেরল কমাতে হলে নামিদামি ওষুধ খেতে হবে। এসব কথা তারা নিজের স্বার্থে বলেন, নাকি কোম্পানির স্বার্থে বলেন, তা বুঝতে কারও অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। 

চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা ১৯৮৭ সালে ‘দ্য জার্নাল অব দি অ্যামেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনে’ প্রকাশ করেন, পঞ্চাশোর্ধ্ব মানুষের মৃত্যুর কারণের সঙ্গে রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রার কোনো সম্পর্ক নেই। ওই বৈজ্ঞানিক গবেষণায় আরও দেখা যায়, কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি কমে গেলে শরীরের বিভিন্ন মেটাবলিক ডিজঅর্ডার তৈরি হয়। এখানেই শেষ নয়। অতি সম্প্রতি ‘দ্য জার্নাল অব কার্ডিয়াক ফেলিয়ার’ ও জার্নাল ‘ল্যানসেট’ প্রকাশ করেছে, রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমে গেলে জটিল হৃদরোগীদের মৃত্যুহার বেড়ে যায়।

প্রকৃতি থেকে প্রাপ্ত কোলেস্টেরল স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ নয়। কিন্তু কোলেস্টেরলকে উচ্চতাপে রান্না করা হলে বা পোড়ানো হলে তা নষ্ট হয়ে যায়। ১০০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় কোলেস্টেরল সহজে পরিবর্তনীয় নয়। কিন্তু ১২০ ডিগ্রি বা তার বেশি তাপমাত্রায় এক ঘণ্টা রান্না করা হলে কোলেস্টেরল অক্সিডাইজেশনের মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন রাসায়নিক যৌগে রূপান্তরিত হয়। এগুলোকে ক্ষতিকর (Damaged) কোলেস্টেরল বলা হয়। এসব ক্ষতিকর উপাদানের মধ্যে রয়েছে ৭-আলফা হাইড্রোক্সিকোলেস্টেরল, ৭-বিটা হাইড্রোক্সিকোলেস্টেরল, ৫-আলফা ইপক্সিকোলেস্টেরল, ৫-বিটা ইপক্সিকোলেস্টেরল, কোলেস্টেনট্রায়ল ও ৭ কিটোকোলেস্টেরল।

প্রকৃত অর্থে ব্যাড কোলেস্টেরল বলতে এসব ক্ষতিকর যৌগগুলোকেই বোঝানো হয়। এছাড়া কোলেস্টেরলকে ব্যাড কোলেস্টেরল বা গুড কোলেস্টেরল বলে আখ্যায়িত করা ঠিক নয়। তবে মাত্রাতিরিক্ত পরিমাণে সব কোলেস্টেরলই খারাপ। পরিমিত পরিমাণে কোনো কোলেস্টেরলই খারাপ নয়। এলডিএল কোলেস্টেরলের খারাপ দিকটাই একশ্রেণির মানুষ দেখতে বেশি পছন্দ করে। শরীরে এলডিএল কোলেস্টেরলের অসংখ্য ভালো কাজগুলোর কথা কি আমরা স্বীকার করি? 

২০০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় উত্তপ্ত করা হলে কোলেস্টেরলের গাঠনিক সংকেত (Structure) পুরো ভেঙে যায়। যেসব খাবার রান্না করার জন্য ১২০ ডিগ্রির বেশি তাপমাত্রার দরকার হয়, সেসব খাবারে বিদ্যমান কোলেস্টেরল স্বাস্থ্যোপযোগী থাকে না, ক্ষতিকর কোলেস্টেরলে রূপান্তরিত হয়। কোলেস্টেরলসমৃদ্ধ প্রাণিজ খাবার যেমন: খাসি, গরু, মহিষজাতীয় পশুর মাংস উচ্চতাপে দীর্ঘক্ষণ ধরে রান্না করতে হয় বলে তা স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। কেউ যদি প্রতিনিয়ত ক্ষতিকর কোলেস্টেরল ও ফ্রি রেডিক্যালসমৃদ্ধ খাবার খায়, তবে এসব ক্ষতিকর উপাদান রক্তের ঘনত্ব বাড়িয়ে দেবে এবং ক্রমান্বয়ে শিরা-উপশিরার অভ্যন্তরের গায়ে সৃষ্ট ক্ষতে জমতে শুরু করবে। তাই কেলেস্টেরলসমৃদ্ধ খাবার দীর্ঘক্ষণ উচ্চ তাপে রান্না বা পোড়া তেলে ভাজা আপনার স্ট্রোক ও হৃদরোগের জন্য ঝুঁকি বয়ে আনতে পারে।

কোলেস্টেরল আমাদের শরীরের জন্য একটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় রাসায়নিক যৌগ। শরীরে পর্যাপ্ত কোলেস্টেরল না থাকলে ভিটামিন ডি, টেস্টোস্টেরন, ইসট্রোজেন ও অ্যালডোস্টেরন জাতীয় অত্যাবশ্যকীয় হরমোন উৎপাদন কমে যাবে। ফলে শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমে গেলে অসুস্থতার উপসর্গ দেখা দেবে, যৌন ক্ষমতা হ্রাস পাবে এবং শরীরে হতাশা বাসা বাঁধবে। কোলেস্টেরল কমানোর জন্য চিকিৎসকরা যাদের স্ট্যাটিন গ্রুপের (জেনেরিক : অ্যাটরভেস্ট্যাটিন, ব্র্যান্ড : লিপিটর, ম্যাভাকর, যুকর, প্যাবাকল, ল্যাসকল) ওষুধ প্রদান করেন, তাদের যৌন ক্ষমতা বা যৌন বাসনা প্রায় ক্ষেত্রে হ্রাস পায় নতুবা বিনষ্ট হয়ে যায় (Loss of libido)। এ সমস্যা নিয়ে অনেক রোগীকে আবার চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হয়। অনেক চিকিৎসক তখন রোগীকে ভায়াগ্রা বা ওই জাতীয় বিপজ্জনক ওষুধ গ্রহণ করা বা এমন সব পরামর্শ দেন, যা করলে তাকে সমূহ বিপদের সম্মুখীন হতে হয়।

আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য মনে রাখা দরকার। আমাদের শরীরের কয়েক ট্রিলিয়ন কোষের প্রাচীর তৈরির জন্য কোলেস্টেরল একটি অত্যাবশ্যকীয় উপাদান। কোলেস্টেরলের অভাবে কোষপ্রাচীর তৈরি হয় না বলে শরীরে পর্যাপ্ত কোলেস্টেরল থাকা বাধ্যতামূলক। মস্তিষ্কের মোট পরিমাণের ২৫ শতাংশ কোলেস্টেরল। পর্যাপ্ত কোলেস্টেরলের অভাবে মস্তিষ্ক ঠিকমতো কাজ করতে পারে না। এত কিছুর পরও চিকিৎসকরা রোগীকে কোলেস্টেরল কমানোর জন্য একেবারে চকলেট বা ক্যান্ডির মতো উচ্চমাত্রার স্ট্যাটিন গ্রুপের ওষুধ গ্রহণ করার পরামর্শ দেন।

এক গবেষণায় দেখা গেছে, তিন-চতুর্থাংশ রোগীর মধ্যে এ গ্রুপের ওষুধ কোনো কাজই করে না বা করলেও তা নগণ্য পরিমাণে করে। ‘কোচরান লাইব্রেরি’ কর্তৃক প্রকাশিত এক সমীক্ষায় বলা হয়, ৩৪ হাজার রোগীর মধ্যে স্ট্যাটিনের ১৪টি ট্রায়ালের ফলাফলে রোগীদের মধ্যে হতাশা, মেজাজ পরিবর্তন, যকৃতের সমস্যা বা কর্মক্ষমতা হ্রাস, কিডনি বিকল হওয়া, চেখে ছানিপড়া, পেশি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া ও সাময়িক স্মৃতিশক্তি লোপ পাওয়া অন্যতম বলে প্রমাণিত হয়েছে। সারা বিশ্বে এখন স্ট্যাটিন গ্রুপের ওষুধের রাজত্ব চলছে। ২০০৭ সালে শুধু যুক্তরাষ্ট্রে লিপিটরের বিক্রির পরিমাণ ছিল প্রায় আট বিলিয়ন ডলার। আর সারা বিশ্বে এর বিক্রির পরিমাণ ছিল কম করে হলেও ১৩ বিলিয়ন ডলার। ২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের চিকিৎসকরা ৫ কোটি ৭০ লাখ রোগীকে লিপিটর প্রেসক্রাইব করেছিলেন। কেন এত মানুষ অ্যান্টিকোলেস্টেরল ওষুধ গ্রহণ করে? এজন্য চিকিৎসাবিজ্ঞানী ও চিকিৎসকদের একটা বড়ো ভূমিকা আছে।

২০০৪ সালে চিকিৎসকদের একটি দল স্ট্রোক আর হৃদরোগের ঝুঁকির কথা চিন্তা করে এলডিএলের স্বাভাবিক মাত্রা ১৩০ থেকে ১০০-তে নামিয়ে আনেন। হৃদরোগের ঝুঁকি কমানোর নাম করে তারা আবার এলডিএলের মাত্রা ১০০ থেকে ৭০-এ নামিয়ে আনেন। এ মাত্রা কমিয়ে আনার ফলে যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় দুই কোটি মানুষ লিপিটর গ্রহণের আওতায় চলে আসে। প্রিয় পাঠক, এখন নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন, ফাইজারের একটি মাত্র ওষুধ কেন বিলিয়ন ডলারের ব্যবসা করে আসছে বছরের পর বছর। পরবর্তী সময়ে গোপন কথা প্রকাশ হয়ে যায় যে, যেসব চিকিৎসাবিজ্ঞানী ও চিকিৎসক কোলেস্টেরলের মাত্রা কমানোর কাজে লিপ্ত ছিলেন, তাদের সঙ্গে কোম্পানির একটি স্বার্থসংশ্লিষ্ট যোগসূত্র ছিল। এ অনৈতিক অপকর্মের জন্য তারা ১০টি কোম্পানি থেকে প্রত্যেকে লাখ লাখ ডলার সম্মানি পেয়েছিলেন। এক্ষেত্রে আমাদের দেশও ব্যতিক্রম নয়।

কারও রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা অস্বাভাবিক পর্যায়ে বেড়ে গেলে তা আমরা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই প্রাকৃতিক নিয়মে ও লাইফস্টাইল পরিবর্তনের মাধ্যমে স্বাভাবিক মাত্রায় কমিয়ে আনতে পারি। প্রাকৃতিক উপায়ে কোলেস্টেরল কমানোর পরিবর্তে চিকিৎসকের পরামর্শ মোতাবেক ক্ষতিকর ওষুধ খেয়ে আমরা নিজেদের উপকারের চেয়ে ক্ষতিই করি বেশি। আমরা অনেক সময় অসুস্থ হয়ে থাকি স্বাস্থ্যসচেতনতার অভাবে। স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য ন্যূনতম যে সাধারণ জ্ঞানটুকু থাকার দরকার, তা অর্জন করতেও আমাদের প্রচণ্ড অনীহা। স্বেচ্ছাচারিতা বা বাড়াবাড়ির কারণে আমরা অসুস্থ হয়ে পড়লে সুস্থ হওয়া বা সুস্থ থাকার জন্য আমরা অতিমাত্রায় আত্মসচেতন হয়ে পড়ি। অমূলক ভয়ভীতির কারণে জীবনযাপন বা খাওয়াদাওয়ার ক্ষেত্রে এমন নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করি, যা আবার বাড়াবাড়ির পর্যায়ে চলে যায়। সুখী ও সুস্থ জীবনের জন্য সব সময় মধ্যপন্থা অবলম্বন করাই শ্রেয়।

আমাদের ধারণা, কোলেস্টেরলসমৃদ্ধ খাবার খেলেই শুধু রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে যায়। কোলেস্টেরলসমৃদ্ধ খাবার যেমন খাসি-গরুর মাংস, ডিম, দুধ, যকৃত, মগজ প্রভৃতি খেলে রক্তে যে পরিমাণে কোলেস্টেরল বাড়ে, তার চেয়ে বেশি কোলেস্টেরল তৈরি হয় মাত্রাধিক চিনি, ভাত, রুটিজাতীয় খাবার থেকে। অসংখ্য তথ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে বলা হয়ে থাকে, কোলেস্টেরলসমৃদ্ধ খাবার খেলে শরীরের কোলেস্টেরলের মাত্রায় তেমন কোনো হেরফের হয় না। এসব খাবার খেলে কোলেস্টেরলের মাত্রা কিছু বাড়লেও তা শরীরে তেমন কোনো প্রভাব ফেলে না। এার প্রধান কারণ, শরীরের ৮০ থেকে ৮৫ শতাংশ কোলেস্টেরল তৈরি হয় শর্করাজাতীয় খাবার থেকে উৎপন্ন গ্লুকোজ থেকে। বাকি মাত্র ১০ থেকে ১৫ শতাংশ কোলেস্টেরল আসে কোলেস্টেরলসমৃদ্ধ খাবার থেকে।

বিশ্বায়নের কারণে আমাদের খাদ্যাভ্যাস অতি দ্রুত পালটে যাচ্ছে। শুধু ছোটোরা নয়, বয়স্করাও আজকাল জাঙ্কফুডে আসক্ত হয়ে পড়ছে। সারা দেশে, বিশেষ করে ঢাকা শহরের অলিগলির যেদিকে তাকাই শুধু রংবেরঙের ফাস্ট ফুডের দোকান দেখি। এসব দোকানে যেসব খাবার বিক্রি হয়, তাতে প্রচুর লবণ, ক্ষতিকর কোলেস্টেরল ও ট্রান্সফ্যাট থাকে। এছাড়া থাকে মাত্রাতিরিক্ত চিনিসমৃদ্ধ ফলের রস ও কোমল পানীয়। উল্লিখিত সব খাবারই বয়স্কদের স্ট্রোক ও হৃদরোগের ঝুঁকি বহুলাংশে বাড়িয়ে দেয়। উচ্চ তাপে তেলে বা ট্রান্সফ্যাটে পোড়া সব খাবারই স্ট্রোক ও হৃদরোগের মূল কারণ।

যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ক্যারোলাইনার বয়স্ক মানুষের ওপর পরিচালিত এক বৈজ্ঞানিক সমীক্ষায় দেখা গেছে-পনির, বাটার, সম্পূর্ণ দুধ, ডিম, প্রাণিজ চর্বি, লাল গোশতজাতীয় তথাকথিত খাদ্যাভ্যাসের সঙ্গে শরীরের কোলেস্টেরল মাত্রার কোনো সম্পর্ক নেই। প্রতিদিন একটি করে ডিম খেলে স্ট্রোক বা হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কা বাড়ে না বা থাকে না। বলা হচ্ছে, প্রতিদিন দুটি করে ডিম খেলেও সুস্থ মানুষের হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ে না। অথচ বছরের পর বছর ডিমের সাদা অংশ খেতে খেতে আমরা আসল ডিমের স্বাদই ভুলে গেছি।

অনুন্নত বিশ্বে স্ট্রোক ও হৃদরোগের ভয়ে মানুষ মাখন খায় না। অথচ মাখন শরীরের জন্য অতি দরকারি ও উপকারী একটি খাবার। মাখনে রয়েছে ভিটামিন-ই, ভিটামিন কে-২ ও ভিটামিন-এ। এছাড়া রয়েছে দরকারি খনিজ পদার্থ, স্বাস্থ্যসম্মত চর্বি, আয়োডিন, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও ক্যানসার নিরোধক উচ্চমানের লিনোলিক অ্যাসিড। ডিম সম্পর্কেও আমাদের রয়েছে ভ্রান্তধারণা। অথচ ডিম হলো দুধের মতো একটি অত্যাবশ্যকীয় সুষম খাবার। ডিমে রয়েছে প্রোটিন বা আমিষ, চর্বি, কোলিন, সেলেনিয়াম, বায়োটিন, বি-ভিটামিন, ফসফরাস, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট লিউটিন ও জিয়াজেন্থিন। কোলেস্টেরলের ভয়ে আমরা এত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান বর্জন করে চলেছি বছরের পর বছর। ডিম কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায় এবং এই কোলেস্টেরল হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের জন্য দায়ী-এ কথার কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই।

কোলেস্টেরল সম্পর্কে আমাদের ভুল ধারণা দূর করতে হবে
কোলেস্টেরল সম্পর্কে আমাদের ভুল ধারণা দূর করতে হবে

বহু মানুষ দুধ খায় না চর্বির ভয়ে। বাজারে যেসব দুধ পাওয়া যায়, তার অধিকাংশ চর্বিমুক্ত বা এক থেকে ১.৫ শতাংশ চর্বি রয়েছে বলে বিজ্ঞাপনে প্রচার করা হয়। বিদেশেও আমি ঠিক একই প্র্যাকটিস দেখেছি। দুধে শতকরা ১ বা ১.৫ শতাংশ চর্বির পরিবর্তে ৫ শতাংশ চর্বি থাকলে সেই দুধ স্বাস্থ্যসম্মত নয়, এমনটি ভাবার কোনো বৈজ্ঞানিক কারণ নেই। তারপরও ডিম, দুধ ও মাখন খাওয়ার ব্যাপারে আমরা অতিমাত্রায় রক্ষণশীল হয়ে পড়েছি। সমীক্ষার ফল এটাই সমর্থন করে যে, আমরা অতীতে যা ভাবতাম, খাদ্য থেকে প্রাপ্ত কোলেস্টেরল তার চেয়ে অনেক কম ক্ষতিকর।

ক্রিস মাস্টারজন কানেকটিকাট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পুষ্টি বিজ্ঞানের ওপর পিএইচডি অর্জন করেছেন। তিনি বলেছেন, প্রতিদিনের কার্যসম্পাদনের জন্য শরীরে যে পরিমাণ কোলেস্টেরল দরকার, সেই পরিমাণ কোলেস্টেরল আমরা খাবার থেকে গ্রহণ করতে পারি না বলে শরীর নিজের প্রয়োজন মেটানোর জন্য নিজেই কোলেস্টেরল সংশ্লেষণ করে থাকে। আমরা কোলেস্টেরলসমৃদ্ধ খাবার থেকে যদি বেশি পরিমাণ কোলেস্টেরল গ্রহণ করি, তবে শরীর ভারসাম্য রক্ষা করার জন্য কম পরিমাণ কোলেস্টেরল তৈরি করবে। ডিম, দুধ, বাটার বা যকৃতের মতো কোলেস্টেরলসমৃদ্ধ খাবার খাওয়া বন্ধ করে দিলে আমাদের শরীর এ অত্যাবশ্যকীয় যৌগটির সংশ্লেষণ বাড়িয়ে দেয়। ৭০ শতাংশ মানুষের ক্ষেত্রে কোলেস্টেরলসমৃদ্ধ খাবার সামান্য পরিমাণ কোলেস্টেরল বাড়ায় বা একদম বাড়ায় না। বাকি ৩০ শতাংশ মানুষের ক্ষেত্রে কোলেস্টেরলসমৃদ্ধ খাবার কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায়, তবে এ বর্ধিত কোলেস্টেরলের সঙ্গে হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের কোনো সম্পর্ক আছে বলে বিজ্ঞান সমর্থন করে না। গবেষণায় প্রমাণিত হয়নি যে, শরীরের কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়লে তা স্বাস্থ্যহানির কারণ হবে।

স্ট্রোক, হৃদরোগ থেকে রক্ষা পেতে আমরা কিছু পন্থা অবলম্বন করতে পারি। এক. খাদ্যতালিকা হতে হবে পরিমিত ও সুষম। খাবার নিয়ে বাড়াবাড়ি ভালো নয়। দুই. কার্বোহাইড্রেটজাতীয় খাবারের পরিমাণ কমাতে হবে। আমরা মাত্রাতিরিক্ত পরিমাণে ভাত বা রুটি খাই। এত ভাত খাওয়ার কোনো দরকার নেই। যারা ভাত বেশি খায়, তাদের কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি। চিনিসমৃদ্ধ খাবার ও কোমল পানীয় বর্জন করা দরকার।

সাম্প্রতিককালের এক পরীক্ষায় দেখা গেছে, অতিমাত্রায় ‘হাই ফ্রুকটোস কর্ন সিরাপ’ গ্রহণ করার কারণে হৃদরোগের ঝুঁকি বেড়ে যায়। চিনি ছাড়াও ফ্রুকটোস কর্ন সিরাপ ব্যবহার করে ইদানীং কোমল পানীয়গুলো প্রস্তুত হচ্ছে। চিনিভর্তি এসব কোমল পানীয়ের প্রতি অনেকেরই প্রচণ্ড আসক্তি রয়েছে। অতিমাত্রায় চিনি, হাই ফ্রুকটোস কর্ন সিরাপ, বেশি ভাত-রুটি বা স্টার্চজাতীয় খাবার খেলে বাড়তি কার্বোহাইড্রেট লিভারে চর্বি ও ডায়াবেটিসজাতীয় রোগ তৈরি করে। ফাইবার বা আঁশজাতীয় শাকসবজি, ফলমূল, খোসাযুক্ত আটা ও চাল খাবারের মূল অংশ হতে হবে। স্বাস্থ্যের উপযোগী চর্বির জন্য অ্যাভাকাডো, অলিভ, নারিকেল, দুধ, ডিম, বাটার, পনির, মিঠা পানির মাছ খাওয়া আবশ্যক। তেলে পোড়া খাবার, আগুনে ঝলসানো ও উচ্চ তাপে রান্না প্রাণিজ খাবার কম খেতে হবে। প্রতিদিন অন্তত তিন লিটার পানি পান অত্যাবশ্যক। বাকি থাকল ব্যায়াম। অবশ্যই প্রতিদিন পর্যাপ্ত ব্যায়াম করতে হবে। ব্যায়াম স্ট্রোক, হৃদরোগ, ডায়াবেটিসসহ বহু জটিল রোগ থেকে আপনাকে রক্ষা করতে পারে। সবাই নিয়মতান্ত্রিক জীবনযাপন করুন ও সুস্থ থাকুন।

বিশ্লেষণ-এর সকল লেটেস্ট নিবন্ধ পেতে Google News-এ অনুসরণ করুন

নিচের মন্তব্যের ঘরে সংক্ষেপে লিখুন আপনার মন্তব্য। মন্তব্যের ভাষা যদি প্রকাশযোগ্য হয় তবে তা এখানে

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সাম্প্রতিক মন্তব্য

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।

অর্থনীতি কাকে বলে? অর্থনীতির সংজ্ঞা, পরিধি বা বিষয়বস্তু কী?

অর্থনীতির ইংরেজি হলো 'ইকোনোমিকস' (Economics); এই ইকোনোমিকস শব্দটি গ্রিক...