রবিবার, নভেম্বর ২৭, ২০২২

নৈতিক চেতনা কী এবং নৈতিক চেতনার প্রকৃতি, বৈশিষ্ট্য ও উপাদান

নৈতিক চেতনাসম্পন্ন মানুষ যখন একটি পরম লক্ষ্যরে দিকে অগ্রসর হয় তখন তাকে বলা হয় নৈতিক আদর্শ। আবার জীবনের পূর্ণতা অর্জনের জন্যে মানুষ যখন পরম লক্ষ্যরে দিকে ধীরে ধীরে অগ্রসর হয় তখন তাকে বলা হয় নৈতিক প্রগতি।

নৈতিক চেতনা একটি মানসিক ক্রিয়া। মানুষ যখন তার ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলীর ন্যায়-অন্যায় বোধ, উচিত-অনুচিত বোধ সম্পর্কে সচেতন হয় তখন ধরে নিতে হবে মানুষ নৈতিক চেতনার পরিসরে তার ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলীকে বিবেচনা করছে। নৈতিক চেতনা মানুষকে ন্যায় ও অন্যায়ের মধ্যকার পার্থক্য বুঝতে সহায়তা করে যা মূলত চিন্তাপ্রসূত, সামাজিক, সক্রিয়, বাধ্যবাধকতামূলক, ভাবাবেগমূলক ইত্যাদি বৈশিষ্ট্যমন্ডিত।

নৈতিক চেতনাসম্পন্ন মানুষ যখন একটি পরম লক্ষ্যরে দিকে অগ্রসর হয় তখন তাকে বলা হয় নৈতিক আদর্শ। আবার জীবনের পূর্ণতা অর্জনের জন্যে মানুষ যখন পরম লক্ষ্যরে দিকে ধীরে ধীরে অগ্রসর হয় তখন তাকে বলা হয় নৈতিক প্রগতি। মানুষ নৈতিক আদর্শের বলে বলীয়ান হয়ে যখন নৈতিক প্রগতির দিকে ধাবিত হয় তখন তার কতকগুলো সদগুণ থাকতে হয় যেগুলো মানুষের নৈতিক অধিকার ও কর্তব্যের বন্ধনে যুগবদ্ধ থাকে।

নৈতিক চেতনা কী

অনৈতিক চেতনা নৈতিকতার ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। নৈতিক চেতনা মানুষকে তার আচরণের নৈতিক গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতন করে তোলে। মানুষকে তার কর্মপন্থা নির্ধারণ করতে সাহায্য করে। ন্যায় ও অন্যায় সম্পর্কীয় নৈতিক চেতনা কেবল মানুষকে তার নিজস্ব সুখ-স্বাচ্ছন্দ্য বৃদ্ধি করতেই সাহায্য করে না, বরং অপরাপর মানুষের সামাজিক সুখ-স্বাচ্ছন্দ্য বৃদ্ধি করতেও সাহায্য করে থাকে। 

নৈতিক চেতনা এমন এক বিশেষ ধরনের মানসিক ক্রিয়া যা আমাদেরকে আমাদের ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলী ন্যায়-অন্যায় বা উচিত-অনুচিত বিষয়গুলো সম্পর্কে সচেতন করে তোলা। নৈতিক চেতনা আমাদের বলে দেয়, আমাদের প্রতিজ্ঞা পালন করা উচিত এবং প্রতিজ্ঞা ভঙ্গ করা উচিত নয়, দুস্থ ব্যক্তিকে সাহায্য করা ভাল এবং কাউকে আঘাত করা মন্দ। নৈতিক চেতনা আমাদেরকে আমাদের কার্যাবলীর ন্যায়বোধ ও অন্যায়বোধ সম্পর্কে সচেতন করে তোলে। আমাদের প্রাত্যহিক কর্মকান্ডের নৈতিকতা সম্পর্কীয় এ চেতনা ন্যায় কাজ সম্পন্ন করার ও অন্যায় থেকে বিরত থাকার জন্যে আমাদের বাধ্যবাধকতা সম্পর্কে সচেতন করে তোলে। 

নৈতিক চেতনার প্রকৃতি ও বৈশিষ্ট্য

আমাদের ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলীর গুণ বা আমাদের চরিত্রের নৈতিক গুরুত্বের অবগতি হচ্ছে নৈতিক চেতনা। নৈতিক চেতনার কতকগুলো বৈশিষ্ট্য রয়েছে এবং নীচে এ সম্পর্কে আলোচনা করা হলো: 

নৈতিক চেতনা চিন্তামূলক

নৈতিক চেতনা হলো আমাদের ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলীর নৈতিক গুণ সম্পর্কীয় চেতনা। ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলী বিবেচনা, পছন্দ ও সংকল্পের সঙ্গে জড়িত বলে তা আমাদের মনের চিন্তামূলক দৃষ্টিভঙ্গীর প্রতিফলন ঘটায়। ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলীর উচিত ও অনুচিত বোধ নৈতিক আদর্শের প্রেক্ষিতে নিরুপণ করা হয়। যে কাজ নৈতিক আদর্শের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ তাকে ন্যায় এবং যে কাজ নৈতিক আদর্শের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ তাকে অন্যায় কাজ বলা হয়। তাই আমাদের ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলীর ন্যায় ও অন্যায় বোধ সম্পর্কীয় নৈতিক চেতনা আমাদের চিন্তামূলক দুষ্টিভঙ্গীর ফল। 

নৈতিক চেতনা সক্রিয়

নৈতিক চেতনা আমাদের ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলীর ন্যায় ও অন্যায বোধ সম্পর্কীয় সচেতনতাকে বুঝায়। নৈতিক চেতনা মানুষের নিষ্ক্রিয় অভিজ্ঞতার পরিবর্তে ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলীর উল্লেখ করে। ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলীর ক্ষেত্রে মানুষের বিবেচনা, পছন্দ ইত্যাদি জড়িত বলে বিকল্প কার্যাবলীর মধ্যে ন্যায় কাজকে গ্রহণ করতে ও অন্যায় কাজকে বাদ দিতে নৈতিক সক্রিয়তা বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। আমাদের ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলীর নৈতিক মূল্যায়ন সম্পর্কীয় সচেতনতা হচ্ছে নৈতিক চেতনা। তাই নৈতিক চেতনা সক্রিয়। 

নৈতিক চেতনা সামাজিক

মানুষ সামাজিক জীব। মানুষের নৈতিক জীবনে সামাজিক পটভূমির প্রয়োজনীয়তা অস্বীকার করা যায় না। নৈতিক চেতনার মাধ্যমে মানুষের ভাল-মন্দের ধারণা সমাজের অপরাপর ব্যক্তির ভাল-মন্দের প্রশ্নকেও জড়িত করে থাকে। সমাজের অপরাপর ব্যক্তির সঙ্গে মানুষের সম্পর্কের কথা স্মরণ রেখেই মানুষের নৈতিক কর্তব্য ও দায়িত্ব বা ভাল-মন্দের বিচার করা হয়ে থাকে। তাই বলা যায়, নৈতিক চেতনা সামাজিক। 

নৈতিক চেতনামূলক

নৈতিক চেতনার ফলে আমরা ভালো কাজ করার জন্যে এবং মন্দ কাজ বাদ দেয়ার জন্যে একটা নৈতিক বাধ্যতাবোধ অনুভুব করি বলে নৈতিক চেতনার সঙ্গে নৈতিক বাধ্যবাধকতাবোধ ওতপ্রোতভাবে জড়িত হয়ে যায়। এই নৈতিক বাধ্যবাধকতাবোধ কোন বাইরেরকর্তৃপক্ষের নিকট থেকে আসে না। এটা আমাদের অন্তরের ভেতর থেকে আসে। তাই, এটা স্ব-আরোপিত। অতএব বলা যায়, নৈতিক চেতনা বাধ্যবাধকতামূলক। 

নৈতিক চেতনা ভাবাবেগমূলক

নৈতিক আদর্শের জন্যে নৈতিক চেতনার একটা শ্রদ্ধাবোধ রয়েছে, এ কথা স্বীকার করতে হবে। ভালো কাজের ক্ষেত্রে যেমন আমাদের মনে একটা প্রীতিকর ভাব জেগে উঠে, তেমনি মন্দ কাজের ক্ষেত্রেও আমাদের মনে একটা অপ্রীতিকর ভাব জেগে উঠে। তাই নৈতিক চেতনার মধ্যে একটা ভাবাবেগমূলক অবস্থা বিরাজ করে। এটা নেহায়েতই মানুষের অš—রের অনুভূতির ব্যাপার। 

নৈতিক চেতনা মানুষকে তার আচরণের নৈতিক গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতন করে তোলে। মানুষকে তার কর্মপন্থা নির্ধারণ করতে সাহায্য করে।
নৈতিক চেতনা মানুষকে তার আচরণের নৈতিক গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতন করে তোলে। মানুষকে তার কর্মপন্থা নির্ধারণ করতে সাহায্য করে।

নৈতিক চেতনার উপাদান 

আমরা আগেই জেনেছি যে, ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলী উচিত-অনুচিত বোধ, ভাল-মন্দ সম্পর্কিত চেতনাকে বলা হয় নৈতিক চেতনা। নৈতিক চেতনা একটি জটিল মানসিক প্রক্রিয়া। এতে চিন্তামূলক, অনুভূতিমূলক ও ইচ্ছামূলক উপাদান বর্তমান। নিচে নৈতিক চেতনার উপাদান সম্পর্কে একটু বিস্তৃত আলোচনা করা হলো : 

চিন্তামূলক উপাদান

নৈতিক পার্থক্যবোধ ও এ সম্পর্কিত বিষয়সমূহ নৈতিক চেতনার চিন্তামূলক উপাদান। নিম্নলিখিত বিষয়সমূহ নৈতিক পার্থক্যবোধের অন্তর্গত:

  • ভালোমন্দ, উচিত-অনুচিত বোধ সম্পর্কিত নৈতিক বিচার। এটি আচরণের উচিত-অনুচিতের বোধকে নির্দেশ করে। যথাযথ কাজ কোনটি তা বুঝতে অনুচিত কাজ কোনটি তা বুঝা দরকার।
  • আত্মসচেতন ও আত্মনিয়ন্ত্রণশীল সত্তা। মানুষ যে ইচ্ছাপ্রসূত কার্যাবলী ও অভ্যাসজাত কার্যাবলী সম্পাদন করে তা করার জন্যে তার নৈতিক বিচারে আত্মসচেতনতা থাকতে হবে। 
  • কোনো একটি আদর্শের চেতনা যে আদর্শ ন্যায়-অন্যায় ভালো-মন্দের মধ্যে পার্থক্য জ্ঞাপন করে।
  • কল্যাণের ধারণা নৈতিক আদর্শ সম্পর্কে সুষ্ঠু মতবাদ গঠনে সাহায্য করে।
  • নৈতিক বিচার যথোচিত ও অনুচিত বিষয়ের মধ্যে পার্থক্যবোধের নির্দেশ দেয়।
  • উচিত ও অনুচিত ধারণা আমাদের মনে কর্তব্যবোধ সৃষ্টি করে। যে কাজকে আমরা উচিত বলে মনে করি সে কাজ সম্পাদন করার একটা তাগিদ অনুভব করি, আবার যে কাজকে আমরা অনুচিত বলে মনে করি সে কাজ সম্পাদন করার তাগিদ অনুভব করি না। 
  • কর্তব্যবোধের সাথে অধিকারের প্রশ্নও জড়িত। একজনের যা কর্তব্য অন্যের তা অধিকার। 
  • উৎকর্ষ ও অপকর্ষের চেতনা এ ক্ষেত্রে বিবেচ্য। কারণ যে ব্যক্তি কর্তব্যপরায়ণ তাকে আমরা প্রশংসা করি; আর যে ব্যক্তি কর্তব্য কাজে কর্তব্যপরায়ণ নয় তাকে আমরা নিন্দা করি।
  • দায়িত্ববোধের চেতনাও বিবেচ্য। বিচারশক্তিসম্পন্ন মানুষ তার ইচ্ছাকৃত ও অভ্যাসপ্রসূত কাজের জন্যে দায়ী।
  • ধর্ম ও অধর্মের চেতনা এ ক্ষেত্রে অন্যতম মানদন্ড বলে মনে করা যায়। 

আবেগমূলক উপাদান

নৈতিক ভাবাবেগ হচ্ছে নৈতিক চেতনার আবেগমূলক উপাদান। যখন আমরা কোন কাজকে ন্যায় বলে মনে করি, তখন আমাদের মনে একটা প্রীতিভাব জেগে উঠে এবং সেই কাজটি আমাদের অনুমোদন লাভ করে থাকে। আবার যখন আমরা কোন কাজকে অন্যায় বলে মনে করি, তখন আমাদের মনে একটা অপ্রীতিকর ভাব জেগে উঠে এবং সেই কাজটিকে আমরা অনুমোদন দেই না। তাই দেখা যায়, ন্যায় কাজের ক্ষেত্রে সন্তোষের ভাব ও অন্যায় কাজের ক্ষেত্রে অসন্তোষের ভাবের সৃষ্টি হয়। তাই বলা যায়, নৈতিক অবধারণের ক্ষেত্রে সন্তোষ-অসন্তোষের মতো নৈতিক ভাবাবেগ বর্তমান থাকে। 

ইচ্ছামূলক উপাদান

তাড়না সংকল্প হচ্ছে নৈতিক চেতনার ইচ্ছামূলক উপাদান। নৈতিক অবধারণের ক্ষেত্রে আমাদের একটা কর্মপন্থাকে নির্বাচন করতে হয় এবং নৈতিক বিচার আমাদের মনে একটি বাধ্যবাধকতাবোধ সৃষ্টি করে।যে কাজটি ন্যায় বলে মনে হয় সে কাজটি করতে আমাদের মনে একটা তাড়নার সৃষ্টি হয় এবং যে কাজটি অন্যায় বলে মনে হয় সে কাজ থেকে বিরত থাকতে আমাদের মনে একটা তাড়নার সৃষ্টি হয়; আর এই তাড়নাকেই ক্রিয়ামূলক আবেগ বলা যেতে পারে।

বিশ্লেষণ-এর সকল লেটেস্ট নিবন্ধ পেতে Google News-এ অনুসরণ করুন

নিচের মন্তব্যের ঘরে সংক্ষেপে লিখুন আপনার মন্তব্য। মন্তব্যের ভাষা যদি প্রকাশযোগ্য হয় তবে তা এখানে

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সাম্প্রতিক মন্তব্য

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।

অর্থনীতি কাকে বলে? অর্থনীতির সংজ্ঞা, পরিধি বা বিষয়বস্তু কী?

অর্থনীতির ইংরেজি হলো 'ইকোনোমিকস' (Economics); এই ইকোনোমিকস শব্দটি গ্রিক...