বুধবার, অক্টোবর ৫, ২০২২

পররাষ্ট্রনীতি এবং কূটনীতির সংজ্ঞা ও এদের মধ্যে পার্থক্য কী? বিভিন্ন সরকারের শাসনামলে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি কী ছিল?

পররাষ্ট্রনীতি এবং কূটনীতি দুটো কাছাকাছি বিষয় এবং একটি অন্যটির সাথে সম্পর্কিত। পররাষ্ট্রনীতি থেকে আসে কূটনীতি বিষয়টি, আর কূটনীতি কে বলা হয় পররাষ্ট্রনীতি বাস্তবায়নের হাতিয়ার। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে বিভিন্ন সরকারের আমলে প্রয়োজনের তাগিদে বিভিন্ন ধরনের পররাষ্ট্রনীতি গ্রহন করা হয়েছে। তবে পররাষ্ট্রনীতির কিছু মূলনীতি রয়েছে যা সংবিধানের ২৫ নং অনুচ্ছেদে রয়েছে।

পররাষ্ট্রনীতি এবং কূটনীতি কাছাকাছি বিষয় অনেকটা, তবে এক নয়। আমরা অনেকে কখনো কখনো পররাষ্ট্রনীতি এবং কূটনীতি কে একত্র করে ফেলি, আসলে বিষয়টি তেমন নয়। একটি দেশের জন্য পররাষ্ট্রনীতি এবং কূটনীতি এই দুটি বিষয় খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এর বিকল্প নেই। সব দেশই তার নিজস্ব স্বার্থরক্ষা বা দেশের বা দেশের জনগণের কল্যাণে কাজ করে থাকে। আর এক্ষেত্রে পররাষ্ট্রনীতি এবং কূটনীতি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। দেশের অভ্যন্তরীন অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক কার্যক্রমের পাশাপাশি কোনো একটি দেশকে বর্হিবিশ্বের সাথে সম্পর্ক স্থাপন এবং তা ধরে রেখে পথ চলতে হয়, বিভিন্ন বাণিজ্যিক সম্পর্ক স্থাপন করতে হয়, ইমপোর্ট-এক্সপোর্ট এর বিষয় থাকে, বহিঃশত্রুর আক্রমণ থেকে রক্ষায় সম্পর্ক বজায় রেখে চলা এবং সতর্কতা অবলম্বন করতে হয়। আর এসবের ক্ষেত্রে পররাষ্ট্রনীতি এবং কূটনীতি খুবই দরকারি দুটি টার্ম। 

এবার আলাদা আলাদা ভাবে বিষয় দুটি বুঝতে চেষ্টা করা যাক—

পররাষ্ট্রনীতি আসলে কী?

এককথায় বলতে গেলে, কোনো দেশের নিজস্ব স্বার্থরক্ষার জন্য অন্যান্য দেশের সাথে যে নীতি বা সম্পর্ক স্থাপন করা হয়ে থাকে তা পররাষ্ট্রনীতি।

কোনো দেশের নিজস্ব স্বার্থ রক্ষার জন্য অভ্যন্তরীন বিভিন্ন নীতির পাশাপাশি যে নীতিগুলো বহিঃরাষ্ট্র সম্পর্কিত গ্রহন করা হয়ে থাকে তাকে পররাষ্ট্রনীতি বলে।

অর্থাৎ আমার দেশের নিজস্ব স্বার্থ রক্ষার জন্য অন্যান্য রাষ্ট্রের সাথে আমি যে ধরনের সম্পর্ক বজায় রাখবো সে বিষয়ে গ্রহন করা নীতি। একেকটা দেশের পররাষ্ট্রনীতি একেকরকম হয়ে থাকে আর এক্ষেত্রে ঐ দেশের ভৌগোলিক অবস্থান, আয়তন, অর্থনৈতিক অবস্থা বিবেচিত হয়। বাংলাদেশের মতো একটি ক্ষুদ্র এবং দরিদ্র দেশের পররাষ্ট্রনীতি কখনো আমেরিকার মতো হতে পারে না। কারণ আমাদের এখনো বৈদেশিক বিভিন্ন সাহায্যের উপর নির্ভর করতে হয়, আমাদের অর্থনীতি ততটা শক্তিশালী নয়। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের নীতি হলো— ‘সবার সাথে বন্ধুত্বের সম্পর্ক, কারও সাথে শত্রুতা নয়’।

আমাদের সব দেশের সাথে সম্পর্ক বজায় রেখে তাল মিলিয়ে চলতে হবে এটাই স্বাভাবিক। আবার আমাদের উপর যদি বহিঃশত্রুর আক্রমণ আসে সেক্ষেত্রে আমরা অনেকটা দুর্বল দেশ, অর্থনৈতিক এবং সামরিক দিক থেকেও ততটা অগ্রগামী নয। এজন্য এসব বিষয় বিবেচনা করে আমাদের নীতি সবার সাথে সম্পর্ক রেখে কিভাবে অর্থনৈতিক সুবিধা লাভ করা যায়, কিভাবে অর্থনৈতিক অগ্রগতি বা প্রবৃদ্ধি অর্জন করা যায়। আর অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাওয়ার জন্য বৈদেশিক বাণিজ্য, বৈদেশিক বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা যেমনঃ জিএসপি। অর্থাৎ, এককথায় কিভাবে আমরা অন্য দেশ থেকে সহযোগিতা পেয়ে এগিয়ে যেতে পারি। দেশের অভ্যন্তরীন কোনো বিষয়ের উন্নয়ন ঘটাতে চাইলে আমাদের সে বিষয়ে কিছু ব্যবস্থা বা নীতি গ্রহন করতে হয় যাকে অভ্যন্তরীন নীতি বলা যায়। যেমনঃ কৃষির উন্নয়ন করতে চাই, আর এক্ষেত্রে কৃষির আধুনিকায়ন, কৃষি খাতে ভর্তুকি, কৃষি উৎপাদনের ব্যবহৃত দ্রব্যসামগ্রী সহজলভ্য বা উৎপাদন খরচ কম হয় এদিকে নজর দিতে হবে। আর কোনো বিষয়ে যখন আন্তর্জাতিক ভাবে কিছু ব্যবস্থা বা নীতি গ্রহন করতে হয় তা পররাষ্ট্রনীতি যা অপর একটি রাষ্ট্রের সাথে হয়ে থাকে।

কূটনীতি বলতে কী বোঝায়?

কূটনীতি বিষয়টি আসে পররাষ্ট্রনীতি থেকেই। কোনো একটা দেশের সাথে কোনো বিষয়ে সম্পর্ক স্থাপন করা হলো। আর এ সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে বা ধরে রাখতে যে ব্যবস্থা গ্রহন করা হয় তা হলো কূটনীতি। কূটনীতি হচ্ছে কোনো রাষ্ট্র পররাষ্ট্রনীতি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে পরিচালিত সরকারি (কিছু বিষয়ে বেসরকারিভাবে সম্পন্ন) কার্যক্রম। অর্থাৎ কূটনীতি হচ্ছে শান্তিপূর্ণ উপায়ে কোনো রাষ্ট্রের প্রতিনিধি দ্বারা অন্য কোনো রাষ্ট্রে পরিচালিত কার্যক্রম। কূটনীতির ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো ‘Diplomacy’ যার উদ্ভব ঘটেছে প্রাচীনকালে। প্রাচীন গ্রীসে যখন একটি রাষ্ট্র হতে অন্য কোনো রাষ্ট্রে কোনো প্রতিনিধি যেত তখন তিনি তার পরিচয় খোদাই করা একটা কাঠের টুকরো গ্রাহক রাষ্ট্রের প্রধানের কাছে হস্তান্তর করতেন। কাঠের খন্ডটিকে বলা হতো ”Diplom’ আর এখান থেকে ‘Diplomacy’ শব্দটি এসেছে। 

কূটনীতির ক্ষেত্রে নিয়োগ করা হয় বিভিন্ন কূটনীতিক। আর এই কূটনীতিকরা কোনো দেশের পররাষ্ট্রনীতি বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে থাকেন, কোনো দেশের সাথে সম্পর্ক বজায় রাখার মাধ্যমে যেন আক্রমণ না হয় এমনটি নিশ্চিত করেন। অর্থাৎ সম্পর্ক এমন পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া হয় যে আক্রমণ হবে না। অনেক সময় আমরা শুনে থাকি কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনে ব্যর্থ হয়েছে কোনো দেশ আর তখন বিভিন্ন সমস্যা সৃষ্টি হয় দুই দেশের মধ্যে। কূটনৈতিক মহল সবসময় চেষ্টা করে সম্পর্ক বজায় থাকুক, আক্রমণ না হোক। কোনো দেশের পররাষ্ট্রনীতি হতে পারে – বন্ধুত্বপূর্ণ বা আক্রমানাত্মক বা ডিফেন্সিভ। আর সম্পর্ক যেমনটি হোক তা বাস্তবায়নের জন্য ই কূটনীতি। অর্থাৎ, কূটনীতি কে বলা যায় পররাষ্ট্রনীতি বাস্তবায়নের হাতিয়ার। আর পররাষ্ট্রনীতি বাস্তবায়নের জন্য ই বিভিন্ন দেশ অন্যান্য দেশে রাষ্ট্রদূত বা এম্বাসেডর হিসেবে বিভিন্ন ব্যক্তিকে নিয়োগ করে থাকেন যারা কোনো দেশের পররাষ্ট্রনীতি বাস্তবায়নের জন্য বা কোনো একটা সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে কাজ করে থাকে।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি

বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা
বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি কী

‘সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারও সাথে শত্রুতা নয়’।

বাংলাদেশ একটি দরিদ্র রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশের অর্থনীতি বিভিন্ন দেশের তুলনায় দুর্বল বা আকার ছোট। বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন বৈদেশিক সাহায্যের উপর নির্ভর করতে হয়। যার কারণে বাংলাদেশকে বিভিন্ন মতাদর্শী দ্বারা প্রভাবিত হতে হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেছিলেন, “আমাদের একটি ক্ষুদ্র রাষ্ট্র, কারও প্রতি বিদ্বেষ নয়, আমরা চাই সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব”।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি সংবিধানের ২৫ নং অনুচ্ছেদে রয়েছে। এবং বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির মূলনীতি ৪ টি।

  1. সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারও প্রতি বিদ্বেষ নয়। 
  2. অন্য রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্ব, রাষ্ট্রীয় স্বাধীনতা ও ভৌগোলিক অখণ্ডতার প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন।
  3. অন্য রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীন ব্যাপারে হস্তক্ষেপ না করা।
  4. বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠা এবং দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করা।

মুক্তিযুদ্ধকালীন পররাষ্ট্রনীতি

  • মুক্তিযুদ্ধের প্রতি সমর্থন আদায়। 
  • মুক্তিযুদ্ধে অর্থনৈতিক ও সামরিক সাহায্য লাভ করা। এজন্য বিচারপতি আবু সাইদ চৌধুরী কে বৈদেশিক মুখপাত্র নিয়োগ করা হয়েছিল।

ফলাফল: চীন ও আমেরিকা ব্যতিত অন্য তিন সুপার পাওয়ার রাষ্ট্র সমর্থন দেয়। সোভিয়েত ইউনিয়ন, ভারত মুক্তিযুদ্ধে অর্থনৈতিক ও সামরিক সাহায্য করে। 

শেখ মুজিবুর রহমানের পররাষ্ট্রনীত

  • বাংলাদেশের প্রতি স্বীকৃতি অর্জন করা। 
  • যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের পুর্নগঠনে অর্থনৈতিক সাহায্য লাভ করা। 

ফলাফল: চীন ব্যতিত অন্য সব সুপার পাওয়ার স্বীকৃতি দেয়। বাংলাদেশ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থায় সদস্যপদ লাভ করে— জাতিসংঘ, ওআইসি, ন্যাম ইত্যাদি। 

জিয়াউর রহমানের পররাষ্ট্রনীতি

  • বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ১৯৭৭ সালে দ্বিতীয় পানি বণ্টন চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।
  • ১৯৭৯ সালে NPT (Non-proliferation of Nuclear Weapons Treaty) তে স্বাক্ষর। অর্থাৎ পরমাণু অস্ত্রের বিস্তার নিয়ন্ত্রণ চুক্তি, স্বাক্ষরকারী কোনো দেশ পরমাণু শক্তি বাড়াতে পারবে না।
  • বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে রোহিঙ্গা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।
  • সার্ক (SAARC) গঠনের জন্য ৭ টি দেশকে চিঠি দেয়া হয়। যার ফলে সার্ক গঠন করা হয়।

এরশাদ সরকারের পররাষ্ট্রনীতি

  • ১৯৮৬ সালে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে বাংলাদেশের হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী সভাপতি নির্বাচিত।
  • ১৯৮৬ সালে ইউরোপীয় ইউনিয়নে বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানি শুরু করতে পারে।
  • ১৯৮৮ সালে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনী তে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ বা যোগদান। 

খালেদা জিয়ার পররাষ্ট্রনীতি

  • ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের মধ্যে দিয়ে অর্থনৈতিক কূটনীতির সূত্রপাত ঘটে। তিনটি বিষয় জড়িত অর্থনৈতিক কূটনীতি তে – বৈদেশিক বিনিয়োগে আর্কষণ করা, আন্তর্জাতিক বাজার সংস্কার করা, এবং জনশক্তি রপ্তানি।
  • ১৯৯২ সালে তিনবিঘা করিডর ভারতকে হস্তান্তর।
  • SAPTA (South Asian Free Trade Area) গঠন।

শেখ হাসিনার পররাষ্ট্রনীতি

  • ১৯৯৬ সালে ভারতের সাথে ৩০ বছর মেয়াদি গঙ্গা চুক্তি স্বাক্ষর।
  • ভারতের সাথে স্থল সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়ন ও ছিটমহল বিনিময়।
  • ইউনেস্কো কর্তৃক ২১ শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি।
  • ভারত-চীন-রাশিয়া-জাপানসহ বিভিন্ন দেশের সহায়তায় উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহন।
  • মিয়ানমার ও ভারতের থেকে বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা উদ্ধার।
  • যুক্তরাষ্ট্রের সাথে TICFA (Trade and Investment Cooperation Forum Agreement) চুক্তি স্বাক্ষর। 

উপসংহার

পররাষ্ট্রনীতি এবং কূটনীতি দুটো কাছাকাছি বিষয় এবং একটি অন্যটির সাথে সম্পর্কিত। পররাষ্ট্রনীতি থেকে আসে কূটনীতি বিষয়টি, আর কূটনীতি কে বলা হয় পররাষ্ট্রনীতি বাস্তবায়নের হাতিয়ার। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে বিভিন্ন সরকারের আমলে প্রয়োজনের তাগিদে বিভিন্ন ধরনের পররাষ্ট্রনীতি গ্রহন করা হয়েছে। তবে পররাষ্ট্রনীতির কিছু মূলনীতি রয়েছে যা সংবিধানের ২৫ নং অনুচ্ছেদে রয়েছে।

বিশ্লেষণ-এর সকল লেটেস্ট নিবন্ধ পেতে Google News-এ অনুসরণ করুন

মো. আসাদুল আমীন
শিক্ষার্থী, অর্থনীতি বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

নিবন্ধটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানান আমাদেরকে। নিচের মন্তব্যের ঘরে সংক্ষেপে লিখুন আপনার মন্তব্য। মন্তব্যের ভাষা যদি প্রকাশযোগ্য হয় তবে তা এখানে প্রকাশিত হবে। আর যদি আপনার কোনো অপ্রকাশিত নিবন্ধ বিশ্লেষণ-এ প্রকাশ করতে চান তাহলে নিম্নোক্ত ইমেইলে তা পাঠিয়ে দিন নিজের নাম, পরিচয় ও ছবিসহ।

ইমেইল: [email protected]

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সাম্প্রতিক মন্তব্য

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।

সুশাসন কী? সুশাসনের ধারণা, সংজ্ঞা ও উপাদান কী?

সুশাসন হলো এক ধরনের শাসন প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ক্ষমতার...