বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১, ২০২২

প্রাক-বৈবাহিক কাউন্সেলিং ও কাউন্সেলিং পদ্ধতি

বিয়ের জন্য উপযুক্ত বয়স কোনটি বা বিয়ের পর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কীভাবে করতে হবে, সেই বিষয়ে কাউন্সেলিং সহায়তা করবে। সাধারণত দেখা যায় বিয়ের পাত্র-পাত্রীরা তাদের সঙ্গী কেমন হবে, পরিবারের সদস্যরা কেমন হবে, যৌন জীবন কেমন হবে ইত্যাদি বিষয়ে উৎকণ্ঠার মধ্যে থাকেন। কাউন্সেলরের দায়িত্ব হবে তাদের কী কী সমস্যা আছে তা প্রথমে চিহ্নিত করা এবং সমস্যার বিস্তারিত ব্যাখ্যা করা যেন তারা বিষয়টি সম্পর্কে সঠিক তথ্য পায় ও তাদের চাহিদা অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

মনস্তত্ত্ববিদেরা মনে করেন সুস্থ ও উন্নত বিবাহিত জীবন পেতে হলে অবশ্যই প্রাক-বৈবাহিক কাউন্সেলিং বা পরামর্শ নেওয়া দরকার। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বিবাহিত জীবনে দুই জন মানুষের মধ্যে যেসব সমস্যা দেখা যায়, তার অনেকটাই আসে ভুল প্রত্যাশা থেকে এবং বিয়ে-পরবর্তী জীবন সম্পর্কে সঠিক তথ্য না জানার কারণে। প্রাক-বৈবাহিক কাউন্সেলিং-এর সাহায্যে এই বিষয়গুলোর মোকাবিলা করা যায়। এই কারণেই একজন পরিবার কল্যাণ কর্মী হিসেবে ভবিষ্যৎ দম্পতিকে সঠিক পরামর্শ দেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এখানে প্রাক-বৈবাহিক কাউন্সেলিং কী এবং কোন পদ্ধতিতে প্রাক-বৈবাহিক কাউন্সেলিং করা যেতে পারে সে বিষয়ে আলোকপাত করা হয়েছে।

প্রাক-বৈবাহিক কাউন্সেলিং

কাউন্সেলিং জেনে শুনে বুঝে সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করে। বিশেষ করে মানুষ যখন নতুন পরিবেশে বা অবস্থানে জটিল পরিস্থিতির সম্মুখীন হয় তখন কাউন্সেলিং সেই অবস্থা থেকে উত্তরণে সাহায্য করে । এটা এমন একটা প্রক্রিয়া বা ব্যবস্থা যা মানুষকে তাদের নিজেদেরকে ভালো করে চিনতে শেখায় বা বুঝতে শেখায়। আর সেই সঙ্গে আমরা যে বিরূপ বা জটিল পরিস্থিতির মোকাবিলা করছি সেই পরিস্থিতি সম্পর্কে আমাদের মনে স্বচ্ছ ধারণার জন্ম দেয়। এর সাহায্যে আমাদের জীবনের অভিজ্ঞতা বা বোধ গড়ে ওঠে, নিজেদের পরিচয় সম্পর্কে আমরা ওয়াকিবহাল হয়ে উঠি এবং গঠনমূলক উপায়ে প্রতিবন্ধকতার বিরুদ্ধে আমরা লড়াই করতে সক্ষম হই।

কাউন্সেলিং ক্লায়েন্টের আচার-আচরণে পরিবর্তন আনে, আত্মনির্ভরতা ও মানসিক স্থিতিস্থাপকতা বৃদ্ধি করে। এসব কিছুই একজন মানুষের সর্বাঙ্গীন বিকাশে সহায়তা করে এবং জীবনের সফলতার সাথেও এর গভীর যোগাযোগ রয়েছে।

অবিবাহিত যুবক বা যুবতীদের বিয়ে সম্পর্কে তাদের জ্ঞান বৃদ্ধি করতে কাউন্সেলিং করার সময় সঠিক তথ্য দিয়ে তাদের সাহায্য করতে হবে। বিবাহ কোনো জটিল বা বিরূপ পরিস্থিতি নয়। এটি মানব জীবনের একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া— যার মাধ্যমে মানুষ জীবনের একটি নতুন অধ্যায়/ধাপে/পরিবেশে/নতুন জীবনে প্রবেশ করে। এটি পারস্পরিক দায়িত্ব পালনের চুক্তি বা অঙ্গীকার। পারস্পরিক আশা, ভরসা, নির্ভরতা ও অঙ্গীকারের সমন্বয়। এতে পরস্পরকে খাপ খাওয়াতে হয়। না পারলে বিরোধের আশঙ্কা থেকেই যায়। দ্বন্দ্ব ও বিরোধ মীমাংসা না হলে তা থেকে অশান্তি, অস্থিতিশীলতা, নির্যাতন ও চূড়ান্ত পর্যায়ে বিচ্ছেদ ঘটতে পারে। বিবাহপূর্ব কাউন্সেলিং এক্ষেত্রে যুব বয়সীদের সাহায্য করতে পারে।

বিয়ের জন্য উপযুক্ত বয়স কোনটি বা বিয়ের পর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কীভাবে করতে হবে, সেই বিষয়ে কাউন্সেলিং সহায়তা করবে। সাধারণত দেখা যায় বিয়ের পাত্র-পাত্রীরা তাদের সঙ্গী কেমন হবে, পরিবারের সদস্যরা কেমন হবে, যৌন জীবন কেমন হবে ইত্যাদি বিষয়ে উৎকণ্ঠার মধ্যে থাকেন। কাউন্সেলরের দায়িত্ব হবে তাদের কী কী সমস্যা আছে তা প্রথমে চিহ্নিত করা এবং সমস্যার বিস্তারিত ব্যাখ্যা করা যেন তারা বিষয়টি সম্পর্কে সঠিক তথ্য পায় ও তাদের চাহিদা অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিতে পারে। অনেক সময় বিয়ে নিয়ে যুববয়সীদের মনে দুশ্চিন্তা দেখা দেয়, যা নিরসন করা জরুরি। আবার অতীতের কোন অভিজ্ঞতাও তাদের বর্তমান আচরণ এবং সম্পর্কের উপর প্রভাব ফেলতে পারে। অনেক সময় কেউ কেউ কোনো একটা বিষয় নিয়ে ভবিষ্যৎ আশংকায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে। এক্ষেত্রে কাউন্সেলিং তাদের জীবনের হতাশা, উৎকন্ঠা বা ভুল ধারণা দূর করে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করবে।

প্রাক-বৈবাহিক কাউন্সেলিং করার সময় যে সব বাধা আসতে পারে

প্রাক-বৈবাহিক কাউন্সেলিং-এর সময় সামনাসামনি মৌখিক যোগাযোগ করতে হয়। এক্ষেত্রেকাউন্সেলরকে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে তাকে সাহায্য করতে হয়। মনে রাখা প্রয়োজন যে, ব্যক্তির জীবনের সমস্যার সমাধানে কাউন্সেলর অনেকগুলো দিক নির্দেশনা বা উদাহরণ তুলে ধরেন, যা থেকে ব্যক্তি তার জন্য উপযুক্ত নির্দেশনাটি বেছে নেন এবং নিজের সমস্যার সমাধান নিজেই করার ক্ষমতা অর্জন করতে পারেন। কাউন্সেলিং-এর ক্ষেত্রে যে বাধা আসতে পারে—

  • কাউন্সেলরের নিজের প্রস্তুতি না থাকলে ক্লায়েন্টের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ ও আন্তরিক হতে না পারলে
  • কাউন্সেলরের নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস কম থাকলে
  • বিষয় সম্পর্কে কাউন্সেলরের সার্বিক জ্ঞান না থাকলে
  • কাউন্সেলর এবং অবিবাহিত যুবক-যুবতীর মধ্যে বয়সের বেশি পার্থক্য থাকলে গ্রহীতার চাহিদা/প্রত্যাশা পূরণ করতে না পারলে
  • বিষয় সম্পর্কে ব্যাখ্যা দিতে না পারলেবার্তা উপলব্ধি করতে না পারলে
  • ক্লায়েন্টের গোপনীয়তা বজায় রাখতে না পারলে স্পর্শকাতর বিষয়গুলো সঠিকভাবে মোকাবিলা করতে না পারলে
  • অংশগ্রহণকারীদের কাছে গ্রহণযোগ্যতা না থাকলে বা বিশ্বাস স্থাপন করতে না পারলে 
  • কৌশলগত দিক, ভাষার ব্যবহার, উপকরণের যথাযথ ব্যবহার করতে না পারলে নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে ক্লায়েন্টের উপর প্রভাব খাটালে
  • ক্লায়েন্টের প্রতি যথাযথ সম্মান দেখাতে না পারলে
  • নিজ নিজ ধর্মীয় বিশ্বাস ও মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধা না দেখাতে পারলে
  • ক্লায়েন্টের প্রতি অবহেলা বা অবজ্ঞা প্রকাশ করলে
  • সবজান্তা ভাব, গর্বিত বা উদ্ধত ভাব প্রদর্শন করলে।

ক্লায়েন্টের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ ও আন্তরিকতার সাথে কথা বলে কাউন্সেলিং-এর অনেক বাধা দূর করা যায়।

প্রাক-বৈবাহিক কাউন্সেলিং-এর মূলনীতি

আগেই আলোচনা করা হয়েছে যে, কাউন্সেলিং একটি প্রক্রিয়া যা প্রাক-বৈবাহিক কাউন্সেলিং-এর ক্ষেত্রে অবিবাহিত যুবক-যুবতীদের সিদ্ধান্ত নিতে এবং সিদ্ধান্তগুলি চর্চা করতে সহায়তা করে। গুণগত ও কার্যকর কাউন্সেলিং-এর ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ নীতি হচ্ছে ক্লায়েন্ট-কেন্দ্রিক পরামর্শ প্রদান।

বিয়ের উপযুক্ত বয়সে উপনীত যুবক-যুবতীদের কাউন্সেলিং-এ ইতিবাচক ফলাফল আনতে অর্থাৎ কাউন্সেলিং-এর উদ্দেশ্য সফল করতে যার সাথে কাউন্সেলিং করা হচ্ছে তার সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। 

কাউন্সেলর আগ্রহ নিয়ে সাদর সম্ভাষণ জানিয়ে কথা বলা শুরু করতে পারেন এবং ফলো-আপসহ কাউন্সেলিং এর প্রত্যেকটি ধাপে যুবক-যুবতীদের গুরুত্ব দিয়ে ভালো ব্যবহার ও সম্মান দেখিয়ে ইতিবাচক ফলাফল অর্জন করতে পারেন। প্রাক-বৈবাহিক সময়ে যুবক-যুবতীদের কার্যকর কাউন্সেলিং-এর আরেকটি বড় বিষয় হচ্ছে তাদের চাহিদা বোঝা এবং সেইভাবে তাকে তথ্য দেয়া। এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে যে, বিবাহ সম্পর্কিত ভাবনা বা আশংকাগুলো সবার একই রকম হবে না। পরিবেশ, শিক্ষা, সংস্কৃতি, বিশ্বাস, দৃষ্টিভঙ্গি এবং পরিস্থিতির উপর চাহিদা নির্ভর করে। একজন সফল কাউন্সেলরকে সবকিছু বিবেচনা করে চাহিদা বের করতে হবে। সঠিক সময়ে সঠিক তথ্য প্রদান করতে পারলে অবিবাহিত যুবক-যুবতীরা সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারবে। শুধু সঠিক তথ্য না জানার কারণে অনেক কিশোরী ও নারী বিয়ের প্রথম রাত থেকেই গর্ভধারণের দিকে এগিয়ে যায়। আবার তথ্য না থাকার কারণেই দেখা যায় একজন অপুষ্ট মা অপুষ্ট শিশুর জন্ম দিচ্ছে কিংবা গর্ভকালীন, প্রসবকালীন এবং প্রসব পরবর্তী সময়ে মা ও শিশু স্বাস্থ্যগত জটিলতার সম্মুখীন হচ্ছেন, এমন কি অকালে মারা যাচ্ছেন। মনে রাখতে হবে যে, কাউন্সেলর যেন কিছুতেই নিজের মতামত অন্যের উপর চাপিয়ে না দেন। বরং জীবন ঘনিষ্ট উপযুক্ত উদাহরণ ও তথ্য দিয়ে তাদেরকে সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করেন এবং তাদের পছন্দ অনুযায়ী সেবা প্রদান করেন। কাউন্সেলরের আরেকটি বড় কাজ হবে তথ্যগুলো ক্লায়েন্টকে মনে রাখতে সাহায্য করা এবং তিনি যে ইতিবাচক সিদ্ধান্তই নিন না কেন, সেই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে তাকে সহায়তা করা। 

কাউন্সেলিং-এর মূলনীতি

কাউন্সেলিং-এর মূলনীতি হলো, ক্লায়েন্টের সাথে ভালো ব্যবহার ও সম্মান দেখিয়ে তার সাথে সুসম্পর্ক স্থাপন করা। উপযুক্ত তথ্য প্রদান করে পছন্দ অনুযায়ী তথ্য দেওয়া। সিদ্ধান্ত গ্রহণে ও গৃহীত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সাহায্য করা। কোনো কিছু বুঝতে ও মনে রাখতে না পারলে তাকে সহায়তা করা।

কাউন্সেলিং-এর সময় যোগাযোগ উপকরণ ব্যবহারের সুবিধা

মানুষ দেখে ও শুনে শিখতে পছন্দ করে। কাউন্সেলিং-এর সময় শুধু আলোচনা না করে বা পরামর্শ না দিয়ে যোগাযোগ উপকরণ দেখিয়ে বিষয় সম্পর্কে তাদের মনোযোগী করে তুলতে পারা যায়। আনন্দের মাধ্যমে শিখতে পারলে মানুষ তা মনে রাখতে পারে এবং ঘটনা ও বিষয়ের সাথে তাদের সম্পৃক্ততা খুঁজে পায়। এতে করে ফলপ্রসূ আলোচনা করা সম্ভব হয়। যোগাযোগ উপকরণের সঠিক ব্যবহার করতে পারলে আপনার দেওয়া তথ্যের গুরুত্ব বাড়বে এবং আপনার গ্রহণযোগ্যতাও তৈরি হবে। উপকরণ দেখা ও শিখনের একটি পরিবেশ তৈরি করা যা আলোচনাকে অনেক বেশি অংশগ্রহণমূলক করে। উপকরণ ব্যবহার করার আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে যে, এটি অভিজ্ঞতামূলক শিখনে সহায়তা করে যা অনেক বেশি জীবন ঘনিষ্ট হয় এবং বার্তাগুলো বুঝে, যুক্তি দিয়ে চিন্তা করে আচরণ পরিবর্তনে উদ্বুদ্ধ করে এবং বার্তাকে নিজের মতো করে ধারণ করতে (আত্মীকরণ) এবং মনে রাখতে সহায়তা করে।

— প্রাক-বৈবাহিক কাউন্সেলিং বিষয়ক গাইডবুক, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

বিশ্লেষণ-এর সকল লেটেস্ট নিবন্ধ পেতে Google News-এ অনুসরণ করুন

নিচের মন্তব্যের ঘরে সংক্ষেপে লিখুন আপনার মন্তব্য। মন্তব্যের ভাষা যদি প্রকাশযোগ্য হয় তবে তা এখানে

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সাম্প্রতিক মন্তব্য

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।

অর্থনীতি কাকে বলে? অর্থনীতির সংজ্ঞা, পরিধি বা বিষয়বস্তু কী?

অর্থনীতির ইংরেজি হলো 'ইকোনোমিকস' (Economics); এই ইকোনোমিকস শব্দটি গ্রিক...