সোমবার, আগস্ট ৮, ২০২২

সুইডেন ও ফিনল্যান্ডের ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত; ভেটো দিয়ে কী পেয়েছে তুরস্ক এবং রাশিয়ার পরবর্তী পদক্ষেপ কী হতে পারে?

তুরস্ক তার যে দাবি দাওয়া ছিল তা ন্যাটো সম্মেলনের মধ্যে দিয়ে ফিরে পেলো এবং চূড়ান্ত হলো সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের ন্যাটোতে যুক্ত হওয়া। তুরস্কের কুর্দিদের সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে স্বীকৃতি দেবে সুইডেন এবং ফিনল্যান্ড সহ ন্যাটোভুক্ত দেশগুলো। এখন রাশিয়া কী করবে?

সামরিক জোট ন্যাটোতে ফিনল্যান্ড (Finland) এবং সুইডেনের (Sweden) যোগদানের বিষয়ে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হয় সম্মেলনে। এর আগে ন্যাটোতে যোগদানের বিষয়ে তুরস্ক ভেটো দিয়েছিল এবং তুরস্কের (Türkiye) ভেটো ক্ষমতা রয়েছে কারণ তুরস্ক ন্যাটোর সদস্য। আর ন্যাটোতে নতুন কোন দেশ যুক্ত করতে হলে ন্যাটোভুক্ত দেশগুলোর সমর্থন দরকার হয়। কিন্তু চলমান ন্যাটো সম্মেলনে এ সমস্যার সমাধান হয় এবং ন্যাটোতে যোগদানে সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের আর কোন বাধা থাকলো না। এ বছরের ন্যাটোর সম্মেলন হচ্ছে মাদ্রিদে যা গত ২৮ জুন শুরু হয় এবং ৩০ জুন পর্যন্ত চলে।

ন্যাটো (NATO) কী?

NATO-এর পূর্ণরূপ হলো North Atlantic Treaty Organization অর্থাৎ উত্তর আটলান্টিক চুক্তি প্রতিষ্ঠান যা একটি সামরিক জোট। এই সামরিক জোট প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৪৯ সালের ৪ এপ্রিল এবং এর সদরদপ্তর বেলজিয়ামের ব্রাসেলসে। বর্তমানে ন্যাটোভুক্ত দেশের সংখ্যা বা ন্যাটোর সদস্য রাষ্ট্র ৩০ টি। 

কেন ন্যাটো প্রতিষ্ঠিত হয় বা এদের কাজ কী?

ন্যাটো প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সময় যৌথ নিরাপত্তা চুক্তি হয় যেখানে পারস্পরিক সহযোগিতা প্রদানে অঙ্গীকারবদ্ধ ন্যাটোভুক্ত সদস্য দেশগুলো। ন্যাটোর সাথে রয়েছে এমন প্রত্যেকটি সদস্য রাষ্ট্র তাদের সামরিক বাহিনীকে যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রস্তুত রাখতে বদ্ধপরিকর।

কেন সুইডেন ও ফিনল্যান্ড ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে? 

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ চলমান যা ঘটছে মূলত ইউক্রেনের (Ukraine) ন্যাটোতে যুক্ত হওয়া নিয়ে। কিন্তু এই যুদ্ধের মধ্যেই ফিনল্যান্ড এবং সুইডেন ন্যাটোতে যোগদানের আগ্রহ প্রকাশ করে যদিও এর আগে ন্যাটোতে যোগ দেবে না বা যোগ দেওয়ার বিষয়ে আগ্রহী ছিল না উত্তর ইউরোপের এই দেশ দুটির।

রাশিয়া (Russia) বিভিন্ন সময়ে ইউক্রেনকে ভয়ভীতি দেখিয়েছে কিন্তু শেষ পর্যন্ত আক্রমনও করেছে এবং বর্তমানে যুদ্ধ চলমান তাই ফিনল্যান্ড এবং সুইডেনও তাদের নিরাপত্তা নিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে খুব চিন্তিত বিশেষকরে ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমনের পরে। তাছাড়া, ২০১৪ সালে রাশিয়ার বিমান বাহিনী সুইডেনের আকাশসীমায় প্রবেশ করেছিল এবং নানা হুমকি ধামকি দিয়ে থাকে বিভিন্ন সময়ে ফিনল্যান্ড এবং সুইডেনকে, তাই এই দেশ দুটি ন্যাটোতে যুক্ত হতে চায় যাতে করে তারা সহযোগিতা পায় এবং তাদের নিরাপত্তা নিয়ে সংশয় কমে যায়।

ন্যাটোতে যোগ দেওয়া নিয়ে তুরস্কের আপত্তি ছিল কেন?

ফিনল্যান্ড এবং সুইডেন ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করলে ফিনল্যান্ডে রাশিয়ার সরবরাহ করা বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিতে দেখা যায়। তবে এই দুই দেশের ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার ক্ষেত্রে বড়ো সমস্যা ছিল তুরস্কের আপত্তি। তুরস্কের প্রসিডেন্ট এরদোয়ান সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের ন্যাটো সামরিক জোটে যোগদানে আপত্তি এবং ভেটো প্রদান করে। ন্যাটোভুক্ত অন্য দেশগুলোর সমর্থন ছিল কিন্তু তুরস্ক এখানে বাধা দেয়। কারণ যদি এই দুই দেশ ন্যাটোতে যোগ দেয় তাহলে তা তুরস্কের নিরাপত্তার জন্য হুমকি মনে করে তুরস্ক।

তুরস্কে বসবাসকারী কুর্দিদের উপর সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের সমর্থন রয়েছে। কুর্দিরা একটি স্বাধীন রাষ্ট্র দাবি করে এবং বিভিন্ন সামরিক অভিযান, ধর্মঘট করে যেখানে সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের সমর্থন রয়েছে বলে তুরস্ক মনে করা হয়। পুরো স্ক্যান্ডিনেভিয়ান অঞ্চল সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর অতিথিশালা। এ অবস্থায় সুইডেন এবং ফিনল্যান্ড যদি সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর বিষয়ে অবস্থান পরিষ্কার না করে তবে তুরস্ক ন্যাটোতে যোগদানে সমর্থন করবে না এমনটি বলা হয়। নিষিদ্ধ কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টি বা পিকেকে, বামপন্থি, চরমপন্থি গোষ্ঠী ডিএইচকেপি-সি ও যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছা নির্বাসিত ধর্মীয় নেতা ফেতুল্লাহ গুলেনের অনুসারীদের সমর্থন করে আসছে সুইডেন ও ফিনল্যান্ড।

২০১৬ সালে তুরস্কে এরদোয়ানের বিরুদ্ধে ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানের পিছনে ছিলেন নেতা ফেতুল্লাহ। এছাড়া, ২০১৯ সালে সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে তুরস্কের সামরিক অভিযানের পর ইইউ সদস্য দেশগুলো তুরস্কের বিরুদ্ধে অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা দেয়। সেই তালিকায় সুইডেন-ফিনল্যান্ডও ছিল। তাই তুরস্ক এই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার এবং কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টিকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে অ্যাখ্যা দিতে দাবি করে। এর আগে ১৯৮০ সালে তুরস্ক ন্যাটোতে গ্রিসকে অন্তর্ভুক্ত করতে সম্মত হয় এবং পরে ন্যাটোর সহযোগিতা নিয়ে তুরস্কবিরোধী হয় গ্রিস এবং সে ধরনের ভুল তুরস্ক করতে চান না।

ফিনল্যান্ড ও সুইডেনকে অফিসিয়ালি আমন্ত্রণ জানিয়েছে ন্যাটো (NATO)

ফিনল্যান্ড ও সুইডেনকে ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার সম্মতি দেওয়ায় কী পেয়েছে তুরস্ক?

তুরস্ক তার যে দাবি দাওয়া ছিল তা ন্যাটো সম্মেলনের মধ্যে দিয়ে ফিরে পেলো এবং চূড়ান্ত হলো সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের ন্যাটোতে যুক্ত হওয়া। তুরস্কের কুর্দিদের সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে স্বীকৃতি দেবে সুইডেন এবং ফিনল্যান্ড সহ ন্যাটোভুক্ত দেশগুলো। এছাড়া সিরিয়া যুদ্ধের সময় দেওয়া অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হবে। এর ফলে তুরস্ক তার দাবি-দাওয়া পূরণে সক্ষম হলো।

রাশিয়ার পরবর্তী পদক্ষেপ কী হতে পারে? 

রাশিয়া ইউক্রেনে হামলা চালালেও সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডে হামলা চালানোর বিষয়ে ভাববে। আর ইউক্রেন ছিল সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ভুক্ত রাষ্ট্র এবং ইউক্রেনের সাথে রাশিয়ার রয়েছে অনেক বড়ো সীমান্ত যা ফিনল্যান্ডের তুলনায় বেশি। তাই সুইডেন বা ফিনল্যান্ডে হয়তো আক্রমন করবে না। তবে পুতিন ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছেন যদি ন্যাটোর সেনা মোতায়েন করা হয় এই দুই দেশে এবং সামরিক শক্তি বৃদ্ধি করা বা কোন সেনা ঘাঁটি তৈরি করা হয় তাহলে রাশিয়া তার জবাব দেবে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইতোমধ্যে ইউক্রেনে রাশিয়াকে যুদ্ধের মধ্যে রেখেছে এবং ইউক্রেনে যেভাবে রাশিয়া হামলা করছে ঠিক তেমনি কম হলেও রাশিয়া পাল্টা আক্রমণের স্বীকার হচ্ছেন। আর এখানে পশ্চিমারা ইউক্রেনকে সহযোগিতা করে যাচ্ছে যদিও সরাসরি যুদ্ধে জড়ায়নি। এতে রাশিয়ার অর্থনীতি যে ক্ষতিগ্রস্ত হবে তা নিশ্চিত।

করোনাভাইরাস মহামারী পরবর্তী সময়ে এর প্রভাব এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ রাশিয়ার অর্থনৈতিক ক্ষয়ক্ষতি এবং অর্থনীতিকে বাধাগ্রস্ত করবে। এর মধ্যে সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডকে ন্যাটোতে যুক্ত করা নিয়ে যদি রাশিয়া কোনভাবে যুদ্ধ জড়িয়ে যায় তবে তা পশ্চিমাদের পাতা আরেকটি ফাঁদে রাশিয়া পা দেবে এমনটাও হতে পারে। তবে ইউক্রেনের মতো এখানে রাশিয়ার ততটা সমস্যা নেই। কারণ ইউক্রেনের সাথে দীর্ঘ সীমান্তের পাশাপাশি কৃষ্ণসাগরের মাধ্যমে রাশিয়া তাদের ব্যবসা-বাণিজ্য করে থাকে বিভিন্ন বন্দর ব্যবহারের মাধ্যমে।

ইউক্রেনকে ন্যাটোতে যুক্ত করার মধ্যে দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে ইউক্রেনের সম্পর্ক বৃদ্ধি এবং এখানে এসে আমেরিকা রাশিয়ার বাণিজ্যিক বিষয়ে প্রভাব ফেলতে পারে। তাই ইউক্রেনকে ন্যাটোতে যুক্ত হওয়ার ক্ষেত্রে রাশিয়া আক্রমণের পথ বেছে নিয়েছে। এছাড়া, ইউক্রেনের একটা গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চল ক্রিমিয়া ২০১৪ সালে রাশিয়া ক্রিমিয়া (Crimea) যুদ্ধে জড়িয়ে দখল করে নেয়। যার জন্য জি-৭ জোট থেকে বের করে দেওয়া হয় রাশিয়াকে।

নিবন্ধটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানান আমাদেরকে। নিচের মন্তব্যের ঘরে সংক্ষেপে লিখুন আপনার মন্তব্য। মন্তব্যের ভাষা যদি প্রকাশযোগ্য হয় তবে তা এখানে প্রকাশিত হবে। আর যদি আপনার কোনো অপ্রকাশিত নিবন্ধ বিশ্লেষণ-এ প্রকাশ করতে চান তাহলে নিম্নোক্ত ইমেইলে তা পাঠিয়ে দিন নিজের নাম, পরিচয় ও ছবিসহ।

ইমেইল: [email protected]

মো. আসাদুল আমীন
শিক্ষার্থী, অর্থনীতি বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

লেটেস্ট আপডেট পেতে গুগল নিউজে ফলো করুন

সমাজমাধ্যম

সাম্প্রতিক মন্তব্য

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

পাঠ পরিকল্পনা: পাঠ পরিকল্পনার সংজ্ঞা এবং হার্বার্টের পঞ্চসোপান ও আধুনিক ত্রিসোপান

শিক্ষার্থীরা কী শিখবে, কীভাবে তা শেখানো হবে এবং কীভাবে শিখন মূল্যায়ন করা হবে সে সম্পর্কে শিক্ষকের দৈনন্দিন নির্দেশনা হলো পাঠ পরিকল্পনা

সুশাসন কী? সুশাসনের ধারণা, সংজ্ঞা ও উপাদান কী?

সুশাসন হলো এক ধরনের শাসন প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ক্ষমতার...