মঙ্গলবার, মে ২৪, ২০২২

আইএফ‌আইসি ব্যাংক লিমিটেড (IFIC Bank Limited) সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

আইএফআইসি ব্যাংকের উদ্দেশ্য হলো— দক্ষ এবং নিবেদিত কর্মীবাহিনীর সৃজনশীল প্রতিভা, উদ্ভাবনী কার্যক্রম এবং তুলনামূলক অগ্রগামিতার মাধ্যমে গ্রাহকদেরকে সেবা প্রদান করা।

ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স ইনভেস্টমেন্ট এন্ড কমার্স ব্যাংক লিমিটেড (আইএফআইসি ব্যাংক) সীমিত দায়বদ্ধতা নিয়ে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত একটি ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান। IFIC Bank হলো বাংলাদেশের অন্যতম বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক। 

বাংলাদেশ সরকার প্রতিষ্ঠার পর পরই ১৯৭৬ সালে একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে দেশের অভ্যন্তরে কাজ করার জন্য এবং দেশের বাইরে যৌথ উদ্যোগ ব্যাংক/আর্থিক প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকার এবং বেসরকারি স্পন্সরদের মধ্যে একটি যৌথ উদ্যোগ হিসেবে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৮৩ সালে সরকার যখন বেসরকারি ব্যাংক প্রতিষ্ঠার অনুমতি দেয় তখন আইএফআইসি একটি পূর্ণাঙ্গ বাণিজ্যিক ব্যাংকে রূপান্তরিত হয়। বর্তমানে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার আইএফআইসি ব্যাংকের ৩২.৭৫% শেয়ার ক্যাপিটালের মালিক। ব্যাবসা ও বাণিজ্য ক্ষেত্রে বিস্তৃত সুগভীর অভিজ্ঞতাসম্পন্ন পরিচালক ও স্পন্সরদের হাতে আছে ৪.১১ শেয়ার ক্যাপিটালের মালিকানা এবং অবশিষ্ট শেয়ার ক্যাপিটালের মালিক বিভিন্ন দেশি-বিদেশি প্রতিষ্ঠান ও সাধারণ শেয়ারহোল্ডারবৃন্দ।

আইএফ‌আইসি ব্যাংকের লক্ষ্য (Aim of IFIC Bank)

আইএফআইসি ব্যাংক একটি উদ্ভাবনী, টেকসই এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নের মাধ্যমে পছন্দের আর্থিক সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান হতে চায় এবং সব স্টেকহোল্ডারদের সর্বোচ্চ স্বার্থরক্ষা করতে চায়।

আইএফ‌আইসি ব্যাংকের উদ্দেশ্য (Objectives of IFIC Bank)

আইএফআইসি ব্যাংকের উদ্দেশ্য হলো— দক্ষ এবং নিবেদিত কর্মীবাহিনীর সৃজনশীল প্রতিভা, উদ্ভাবনী কার্যক্রম এবং তুলনামূলক অগ্রগামিতার মাধ্যমে গ্রাহকদেরকে সেবা প্রদান করা। যেসব প্রতিষ্ঠান এবং ব্যক্তিদের জন্য আইএফআইসি ব্যাংক যত্ন নিয়ে কাজ করছি তাদেরকে মানসম্মত সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে এসবই আইএফআইসি ব্যাংককে স্বতন্ত্র আসনে স্থান করে দেয়।

মানুষ এবং সমাজের কল্যাণ ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির প্রতি আইএফআইসি ব্যাংক প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, কেননা তাদের কাছে থেকেই আইএফআইসি ব্যাংক অনুপ্রেরণা অর্জন করে এবং অগ্রগামিতা থেকে সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে চলে।

একটি তীব্র প্রতিযোগিতামূলক, জটিল আর্থিক এবং ব্যবসায়িক পরিবেশে আইএফআইসি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তাদের সাথে সম্পৃক্ত সবার প্রবৃদ্ধি এবং লাভের দিকে বিশেষভাবে মনোযোগী।

আইএফ‌আইসি ব্যাংকের মূলনীতি (Principles of IFIC Bank)

  • একনিষ্ঠতা: সবসময় সবখানে আইএফআইসি ব্যাংক যা করে তাতে একনিষ্ঠতা বজায় রাখে। 
  • ন্যায্যতা: স্বচ্ছতার সাথে ন্যায্যভাবে আইএফআইসি ব্যাংকের গ্রাহকদেরকে সবচেয়ে সেরাটা দেবার অব্যাহত প্রচেষ্টা।
  • উদ্ভাবন: সৃজনশীলতাকে লালন ও উৎসাহিত করা।
  • প্রতিশ্রুতিবদ্ধতা: সম্মিলিতভাবে কাজ করার মাধ্যমে গ্রাহকসেবার ক্ষেত্রে উৎকর্ষতা অর্জন ও স্টেকহোল্ডারদের স্বার্থরক্ষায় আইএফআইসি ব্যাংক প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

কৌশলগত অগ্রাধিকার

  • মানসম্মত ও সময়োচিত সেবা প্রদানের মাধ্যমে গ্রাহকসন্তুষ্টি নিশ্চিত করে সুষ্ঠু ব্যবসায়িক প্রবৃদ্ধি আব্যাহত রাখা
  • লক্ষ্য অর্জন নিশ্চিত করতে ব্যাংককে সবচেয়ে কার্যকর পদ্ধতিতে ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনা করা
  • উত্তরোত্তর প্রবৃদ্ধির জন্য পর্যাপ্ত মূলধন প্রবাহ বজায় রাখা
  • ব্যবসার টেকসই প্রবৃদ্ধির জন্য কার্যকর এবং দক্ষ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা
  • সুসংহত অর্থায়ন এবং কর্পোরেট, এসএমই, কৃষি ও রিটেইল ব্যবসার সম্প্রসারণের মাধ্যমে লোন পোর্টফোলিও-তে বৈচিত্র্য নিয়ে আসা
  • আর্থিক অন্তর্ভুক্তির জন্য অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সংযোজন এবং উদ্ভাবনী ভাবনা গ্রহণ করা
  • দক্ষতার সাথে গ্রাহকদের সেবা দেওয়ার জন্য ক্রমাগত মানবসম্পদের উন্নয়ন ঘটানো  
  • ব্যাংকের ইতিবাচক ভাবমূর্তি তৈরি করে ব্র্যান্ডের দৃশ্যমানতা বৃদ্ধি করা।
  • সমাজসেবা করার ক্ষেত্রে পথিকৃৎ হিসেবে নিজেদের তৈরি করা এবং পরিবেশের প্রতি দায়িত্বশীল আচরণ করা
  • সুষ্ঠু কর্পোরেট গভর্নেন্স চর্চা নিশ্চিত করা
  • ব্যাংকিং সেবায় গতিশীলতা বৃদ্ধির জন্য ইন্টারনেট এবং মোবাইল ব্যাংকিং হালনাগাদ করা
  • সব স্টেকহোল্ডারের স্বার্থরক্ষা করা

আইএফআইসি ব্যাংকের ব্যবস্তাপনা কাঠামো (Management Structure of IFIC Bank)

পরিচালনা পর্ষদের আট সদস্য ব্যাংকের কৌশলগত পরিকল্পনা এবং সামগ্রিক নীতিমালার জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত। এছাড়াও জরুরি ব্যবসায়ের প্রস্তাবসমূহ নিষ্পত্তি করার জন্য বোর্ডের একটি নির্বাহী পর্ষদ রয়েছে।

পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ নিয়ন্ত্রক ও পরিচালনামূলক বিষয়গুলোর তদারকি করার জন্য বোর্ডে একটি নিরীক্ষা ও ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা পর্ষদ রয়েছে।

ব্যবসায়ের লক্ষ্য অর্জন এবং প্রতিদিনকার কার্যক্রম পরিচালনা তদারকি করার জন্য ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং বিভাগীয় প্রধানরা দায়িত্বপ্রাপ্ত।

উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং বিভাগের প্রধানদের সমন্বয়ে একটি সিনিয়র ম্যানেজমেন্ট গ্রুপ আছে, যাদের সহায়তায় ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাবৃন্দ কেন্দ্রীয়ভাবে বিভিন্ন বিভাগের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করেন এবং শাখাসমূহের কার্যক্রম সমন্বয় করে থাকেন।

মূল বিষয়গুলো দেখাশোনার জন্য ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী’র নেতৃত্বে পরিচালিত একটি কমিটি রয়েছে, যা দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণে সহায়তা করে।

ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী’র নেতৃত্বে সিনিয়র এক্সিকিউটিভদের সমন্বয়ে একটি সম্পদ দায়বদ্ধতা এবং ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা কমিটি রয়েছে, যা ব্যাংকের সমস্ত পরিচালনা কার্যক্রম এবং ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা তদারকি করে থাকে।

মানব সম্পদ উন্নয়ন বিভাগ (Human Resources Development Department)

আইএফআইসি’তে আইএফআইসি ব্যাংক বিশ্বাস করে যে, মানব সম্পদই সাফল্যের মূল চালিকা শক্তি এবং আইএফআইসি ব্যাংক তাদের ব্যাবসায়ের প্রবৃদ্ধির জন্য কর্মীদের মেধাকে কৃতিত্ব দিয়ে থাকে। আইএফআইসি ব্যাংকের মানব সম্পদ উন্নয়ন বিভাগ বিশ্বাস করে যে, দীর্ঘমেয়াদি টেকসই প্রবৃদ্ধি অর্জনের জন্য প্রয়োজনীয় তিনটি স্তম্ভ হচ্ছে মানব সম্পদ, প্রক্রিয়া এবং প্রযুক্তি। 

মানব সম্পদ বিভাগ তাই মেধাশক্তি ভিত্তিক সংস্কৃতি গড়ে তোলার জন্য সক্রিয় ভূমিকা পালন করছে, যেখানে মেধা অর্জন, মেধা বিকাশ, প্রতিযোগিতামূলক ক্ষতিপূরণ প্যাকেজ এবং কর্মীদের  অংশগ্রহণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

আইএফআইসি ব্যাংকের নিয়োগ বিভাগ সম্ভাবনাময়, নেতৃত্ব দানের গুণাবলি সম্পন্ন এবং উদ্যোগী মানুষদের নির্বাচন করতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। আইএফআইসি ব্যাংক তাদের প্রয়োজনীয় দক্ষতা এবং মান ভিত্তিক নেতৃত্বের গুণাবলি দিয়ে সমৃদ্ধ করে তুলি। সর্বোপরি, আইএফআইসি ব্যাংক তাদের দায়বদ্ধ কর্পোরেট নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলি।

আইএফআইসি ব্যাংক ট্রেনিং একাডেমি বেসরকারি খাতে অন্যতম পুরানো প্রতিষ্ঠান এবং আমাদের কর্মীদের সমস্ত শিক্ষা ও উন্নয়নে প্রয়োজনীয় যত্ন নিতে পরিপূর্ণভাবে সুসজ্জিত একটি অত্যাধুনিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। আইএফআইসি ব্যাংক দেশ-বিদেশ থেকে সর্বোচ্চ পর্যায়ের ফ্যাকাল্টিদের দিয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করে এবং প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ নিতে আইএফআইসি ব্যাংক ধারাবাহিকভাবে আমাদের কর্মীদের বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন বিশ্বমানের প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে পাঠিয়ে থাকে।

এছাড়াও বহুমুখী অংশগ্রহণমূলক কার্যক্রম এবং টাউন হল সেশনের মাধ্যমে কর্মীদের অসাধারণ সততা, উদ্ভাবনী ক্ষমতা এবং অঙ্গীকারাবদ্ধতা নিয়ে নিজ কাজে ছাপিয়ে যাওয়ার জন্য কর্মীদের অংশগ্রহণমুখী, ক্ষমতায়িত ও সক্ষম করে তুলতে মানব সম্পদ বিভাগ মূল ভূমিকা পালন করে থাকে। 

মানব সম্পদ বিভাগ আমাদের কর্মীদের উপর বিশেষ দৃষ্টি রেখে চলেছে এবং তাদের পদোন্নতি, পুরস্কার, কর্ম-জীবনের ভারসাম্য ও ক্যারিয়ার উন্নয়নের মাধ্যমে একটি চমৎকার কর্ম-অভিজ্ঞতা প্রদান করে চলেছে।

মাইলফলক

আইএফআইসি ব্যাংকের মাইলফলক

১৯৭৬

কোম্পানি প্রতিষ্ঠা:

১৮৭৬ সালে বাংলাদেশ সরকারের সাথে যৌথ উদ্যোগ চুক্তির মাধ্যমে বিনিয়োগ ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়। 

১৯৮০

বৈদেশিক মুদ্রা ব্যবসা:

সীমিত আকারে বৈদেশিক ফরেন এক্সচেঞ্জ ব্যবসার কার্যক্রম শুরু হয়।

১৯৮২

প্রথম বৈদেশিক যৌথ উদ্যোগ:

বাণিজ্যিক ব্যাংক হিসেবে কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য সরকারের অনুমোদন প্রাপ্তি, মালদ্বীপ প্রজাতন্ত্রে প্রথম বৈদেশিক যৌথ উদ্যোগ প্রতিষ্ঠান (ব্যাংক অব মালদ্বীপ লিমিটেড) স্থাপন (পরবর্তী সময়ে ১৯৯২ সালে ব্যাংক অব মালদ্বীপ লিমিটেড-এ আইএফআইসি’র শেয়ার মালদ্বীপ সরকারের কাছে বিক্রি করা হয়)।

১৯৮৩

পূর্ণাঙ্গ বাণিজ্যিক ব্যাংকিং;

বাংলাদেশের একটি পূর্ণাঙ্গ বাণিজ্যিক ব্যাংক হিসেবে কার্যক্রম শুরু।

১৯৮৫

যৌথ উদ্যোগ এক্সচেঞ্জ কোম্পানি:

ওমান সালতানাতে একটি যৌথ উদ্যোগ এক্সচেঞ্জ কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করা হয়, যার নাম ছিল ওমান বাংলাদেশ এক্সচেঞ্জ কোম্পানি (পরবর্তীকালে ওমান ইন্টারন্যাশনাল এক্সচেঞ্জ, এলএলসি নামে পুনঃনামকরণ করা হয়)।

১৯৮৭

বিদেশে প্রথম শাখা:

পাকিস্তানের করাচিতে প্রথম বৈদেশিক শাখা প্রতিষ্ঠা করা হয়।

১৯৯৩

বিদেশে দ্বিতীয় শাখা:

পাকিস্তানের লাহোরে দ্বিতীয় বৈদেশিক শাখা প্রতিষ্ঠা করা হয়।

১৯৯৪

নেপালে প্রথম যৌথ উদ্যোগ:

নেপাল বাংলাদেশ ব্যাংক লিমিটেড নামে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনার জন্য নেপালে প্রথম যৌথ উদ্যোগ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হয়।

১৯৯৯

নেপালে দ্বিতীয় যৌথ উদ্যোগ:

নেপাল বাংলাদেশ ফাইন্যান্স অ্যান্ড লিজিং কোম্পানি লিমিটেড নামে লিজ ফিন্যান্সিংয়ের জন্য নেপালে দ্বিতীয় যৌথ উদ্যোগ প্রতিষ্ঠান স্থাপন (যা ২০০৭ সালে এনবিবিএল-এর সাথে একীভূত হয়)।

২০০৩

এনডিএলসি-আইএফআইসি ব্যাংক লিমিটেড:

পাকিস্তানে এনডিএলসি-আইএফআইসি ব্যাংক লিমিটেড নামে একটি নতুন ব্যাংক স্থাপন (যা পরবর্তীতে এনআইবি ব্যাংক লিমিটেড নামে নামকরণ করা হয়)। আইএফআইসি-এর বৈদেশিক শাখাসমূহ এবং স্থানীয় লিজিং কোম্পানি এনডিএলসি-কে এর সাথে একীভূত ও অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

২০০৫

অনলাইন ব্যাংকিং-এর জন্য মাইসিস সলিউশন:

রিয়েল টাইম অনলাইন ব্যাংকিং অ্যাপ্লিকেশনের জন্য মাইসিস সলিউশন নেয়া হয়। মূল ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা বাস্তবায়িত হয়েছে।

২০০৭

ভিসা ব্র্যান্ডেড ক্রেডিট কার্ড (VISA Branded Credit Card):

ভিসা ব্র্যান্ডযুক্ত ক্রেডিট কার্ড চালু হয় (২০১০ সালের মধ্যে সবধরনের কার্ড, যেমন- ডেবিট, ক্রেডিট এবং প্রিপেইড কার্ড চালু করা হয়)

২০১০

অফশোর ব্যাংকিং ইউনিট (Offshore Banking Unit):

অফশোর ব্যাংকিং ইউনিট (ওবিইউ) প্রতিষ্ঠা।

২০১১

আইএফআইসি মানি ট্রান্সফার (ইউকে) লিমিটেড:

আইএফআইসি মানি ট্রান্সফার (ইউকে) লিমিটেড নামে একটি সম্পূর্ণ নিজস্ব মালিকানাধীন সাবসিডিয়ারি এক্সচেঞ্জ কোম্পানি প্রতিষ্ঠা।

২০১২

ব্যাংক-এর শততম শাখা:

ঢাকার তেজগাঁও-গুলশান লিংক রোডে ১০০তম শাখার উদ্বোধন।

২০১৩

১০,০০০ কোটি টাকার অধিক আমানত:

১০,০০০ কোটি টাকা আমানতের মাইলফলক অর্জন

২০১৪

মোবাইল ব্যাংকিং সেবা (Mobile Banking Service):

আইএফআইসি মোবাইল ব্যাংক উদ্বোধন

২০১৫

২০,০০০ কোটি টাকার অধিক বৈদেশিক বাণিজ্য ব্যবসা:

বৈদেশিক বাণিজ্য ব্যবসায় ২০,০০০ কোটি টাকার মাইলফলক অতিক্রম

২০১৬

আইএফআইসি টাওয়ার, এক মর্যাদার প্রতীক:

৬১ পুরানা পল্টন, ঢাকায় আইএফআইসি টাওয়ারের উদ্বোধন

২০১৭

ওয়ান স্টপ সার্ভিস মডেল (One-stop Service Model):

  • চলতি ও  সঞ্চয়ী হিসাব, এফডিআর, ক্রেডিট কার্ড ইত্যাদি সুবিধাসমূহের সমন্বয়ে একটি উদ্ভাবনী পণ্য আইএফআইসি ‘আমার একাউন্ট’–এর উদ্বোধন।
  • রিটেইল ব্যাংকিং-এর অধীনে গৃহঋণ পণ্যে বাজারে সবচেয়ে এগিয়ে থাকার গৌরব অর্জন।
  • বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো ব্যাংক-এর শাখাগুলোতে ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালু হয়।

২০১৮

  1. আইএফআইসি গৃহঋণের পরিমাণ ২,৯১১.৪০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়।
  2. আমার একাউন্ট-এর মোট ৯৯,৩৯৯টি ব্যাংক হিসাবের অর্থের পরিমাণ দাঁড়ায় ১,৪৫৬.৪৯ কোটি টাকা।

২০১৯

সারাদেশে ৩৫ টি উপশাখা স্থাপন

আইএফ‌আইসি আমার ব্যাংক চালু (IFIC Aamar Bank is the Digital Banking Platform if IFIC Bank)

আইএফআইসি সহজ অ্যাকাউন্ট চালু (Launched IFIC Shohoj Account to expand financial inclusion)

2020

  • আইএফআইসি সহজ ঋণ চালু (Launched IFIC Shohoj Rin)
  • সংখ্যা ১৫০ টি শাখা ও ২৮৫ টি উপশাখা অতিক্রম করে (Number of Branches crossed 150 and the number of Uposhakhas around the country stood at 285).
  • IFIC Home Loan Sanctioned amount reached BDT 61061.924 Million as of 31 December2020.
  • Formation of IFIC Investment Limited for merchant banking operations.

আইএফআইসি সহকারী

আইএফআইসি সিকিউরিটিজ লিমিটেড (IFIC Securities Limited)

আইএফআইসি সিকিউরিটিজ লিমিটেড (আইএফআইসি ব্যাংক-এর একটি সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান) ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের জন্য বিশ্বমানের ব্রোকারেজ সেবা প্রদানের মাধ্যমে দেশের মূলধন বাজারের উন্নয়নে নিবেদিত। 

আইএফআইসিএসএল মূলধন বাজারে সিকিউরিটি ক্রয়, বিক্রয় এবং ব্যাবসা বিষয়ে কাজ করে থাকে।

একটি পরিশীলিত ও উদ্ভাবনী আর্থিক সমাধান সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে আইএফআইএসএসএল তার গ্রাহকদের নিবেদিত কর্মবাহিনীর সাহায্যে সব রকমের ব্রোকারেজ এবং রক্ষণাবেক্ষণ পরিষেবা প্রদানের লক্ষ্যে অভীষ্ট। 

আইএফআইসিএসএল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড-এর টিআরইসি হোল্ডার।

আইএফআইসিএসএল পরিষেবাসমূহ (Services of IFIC Securities Limited)

ব্রোকারেজ পরিষেবা (Brokerage Services)

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড-এ ট্রেড এক্সিকিউশন

বাণিজ্যের জন্য নিবেদিত, দক্ষ ও অভিজ্ঞ ডিলার

ভিআইপি ট্রেডিং বুথ এবং নারী ট্রেডিং বুথ।

মার্জিন লোন সুবিধা (Margin Loan Opportunities)

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)-এর মার্জিন রুলস অ্যান্ড রেগুলিউশন, ১৯৯৯ সময় সময় কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নির্ধারিত সীমার মধ্যে গ্রাহকদের মার্জিন ডিপোজিটের বিপরীতে সেকেন্ডারি মার্কেটে বিনিয়োগের জন্য গ্রাহকদের আর্থিক সহায়তা বৃদ্ধি করে থাকে।

সম্পূর্ণ পরিষেবা ডিপি
  • বিও (মুনাফাভোগী মালিক) একাউন্ট খোলা
  • শেয়ার ডিম্যাটেরিয়ালাইজেশন
  • শেয়ার রিম্যাটেরিয়ালাইজেশন
  • স্থানান্তর এবং একাধিক একাউন্ট মুভমেন্ট
  • প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, অপ্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং বাজেয়াপ্ত করা
  • কর্পোরেট কার্যপ্রক্রিয়া অনুসন্ধান
  • বিও আইএসআইএন ব্যালান্স অনুসন্ধান
ইলেক্ট্রনিক পরিষেবাসমূহ
  • ইমেইল এবং ফোনের মাধ্যমে বাণিজ্য
  • মোবাইল অ্যাপ এবং ওয়েব সংস্করণের মাধ্যমে বাণিজ্য
  • এসএমএস পরিষেবা
  • দৈনিক পোর্টফোলিও ইমেইল পরিষেবা

প্রাথমিক পাবলিক অফারিং বা আইপিও (Initial Public Offering or IPO)

  • কার্যপ্রণালী অনুযায়ী গ্রাহকদের জন্য ওয়ান স্টপ আইপিও পরিষেবা

আইএফআইসি ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড (IFIC Investment Limited)

আইএফ‌আইসি ইনভেস্টমেন্ট লিমিটড (IFIC Investment Limited) হলো আইএফ‌আইসি ব্যাংক লিমিটেড  (IFIC Bank Limited)-এর একটি সাবসিডিয়ারি কোম্পানি।

IFIC Investment Limited মার্চেন্ট ব্যাংকিং এবং অন্যান্য ব্যবসার ব্যবসা প্রতিষ্ঠা, রক্ষণাবেক্ষণ, পরিচালনা, পরিচালনা, লেনদেনের পাশাপাশি পুঁজিবাজার সম্পর্কিত পরিষেবা ও ইস্যু ম্যানেজমেন্ট, আন্ডাররাইটিং, পোর্টফোলিও ম্যানেজমেন্ট এবং অ্যাসেট সংক্রান্ত সমস্ত বিষয় সম্পাদনে নিবেদিত। 

উপর্যুক্ত কাজগুলো ছাড়াও IFIC Investment Limited বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের বাইরে ব্যবস্থাপনা, পুঁজিবাজার পরিচালনা এবং অন্যান্য আর্থিক পরিষেবা সহ কর্পোরেট উপদেষ্টা পরিষেবা, একীভূতকরণ ও অধিগ্রহণ, ইক্যুইটি বিনিয়োগ, জয়েন্ট ভেনচার সোর্সিং, কর্পোরেট পুনর্গঠন, আর্থিক পরামর্শ, কর্পোরেট গবেষণা ইত্যাদি পরিষেবাসংক্রান্ত কাজ করে যাচ্ছে।

এক নজরে IFIC Investment Corporation-র কর্মসূচি:

  • Issue Management
  • Underwriting Management
  • Portfolio Management
  • Asset Management
  • Capital Market Operation
  • Corporate Advisory Services
  • Mergers & Acquisition
  • Equity Investment
  • Joint-Venture Sourcing
  • Corporate Restructuring
  • Financial Consultancy
  • Corporate Research
  • Privatization

বিদেশে জয়েন্ট ভেঞ্চারস

Nepal Bangladesh Bank Limited

Nepal Bangladesh Bank Limited, a joint venture commercial bank between IFIC Bank limited and the Nepali Nationals, started its operation with effect from 06 June 1994 in Nepal with 50% equity from IFIC Bank Limited. The Bank has so far opened 81 (eighty -one) branches at the different important locations in Nepal. IFIC Bank presently holds 40.91% shares in Nepal Bangladesh Bank Limited.

ওমান এক্সচেঞ্জ এলএলসি

ওমানে বাংলাদেশি মজুরি উপার্জনকারীদের রেমিট্যান্সের সুবিধার্থে আইএফআইসি ব্যাংক লিমিটেড এবং ওমান নাগরিকদের মধ্যে যৌথ উদ্যোগে ১৯৮৫ সালে ওমান এক্সচেঞ্জ এলএলসি প্রতিষ্ঠিত হয়। 

এই প্রতিষ্ঠানের মোট শেয়ারের ৪৯% আইএফআইসি ব্যাংকের এবং বাকি ৫১% শেয়ার ওমানের স্পনসরদের। ওমানের সব বড় শহরগুলোতে এই বিনিময় প্রতিষ্ঠানের মোট ১২টি শাখা রয়েছে। বর্তমানে সংস্থাটি ৯টি দেশ- বাংলাদেশ, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, নেপাল, পাকিস্তান, ফিলিপাইন, কাতার, শ্রীলঙ্কা ও আরব আমিরাতের সাথে সরাসরি রেমিটেন্স পরিষেবা প্রদান করছে।

এমসিবি ব্যাংক লিমিটেড, পাকিস্তান (MCB Bank Limited, Pakistan)

আইএফআইসি ব্যাংকের পাকিস্তানে দুইটি শাখা ছিল, একটি করাচি এবং অন্যটি লাহোরে। করাচি শাখাটি ১৯৮৭ সালের ২ এপ্রিল এবং লাহোর শাখাটি ১৯৯৩ সালের ২৩ ডিসেম্বর চালু হয়েছিল।

২০১৭ সালে এনআইবি ব্যাংক লিমিটেড (NIB Bank Limited) এমসিবি ব্যাংক লিমিটেড (MCB Bank Limited)-এর সাথে একীভূত হয়। এমসিবি ব্যাংক লিমিটেড-এ আইএফআইসি ব্যাংক-এর ১৭৫,৫০৮টি শেয়ার রয়েছে।

স্টেট ব্যাংক অব পাকিস্তানের (State Bank of Pakistan) শর্তানুযায়ী ন্যূনতম মূলধন পূরণের জন্য আইএফআইসি-র পাকিস্তান শাখাগুলি এনডিএলসি নামে একটি নামী লিজিং সংস্থার সাথে একীভূত হয়েছিল এবং নাম বদলে নতুন নাম  এনডিএলসি-আইএফআইসি ব্যাংক লিমিটেড (NDLC-IFIC BANK Limited) নামে ২০০৩ সালের ২ অক্টোবর থেকে কার্যকর হয়, এরপর পরিশেষে এটির নামকরণ করা হয় এনআইবি ব্যাংক লিমিটেড, যা ২০০৫ সালের ২৮ নভেম্বর থেকে কার্যকর হয়।

[সব তথ্য IFIC Bank Limited-এর ওয়েবসাইট থেকে নেওয়া। ব্যাংকটির ওয়েবসাইট হলো– https://www.ificbank.com.bd/ । আপনার চাইলে এই ওয়েবসাইট থেকেও পছন্দমতো অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন।]

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।

জেন্ডার কাকে বলে? জেন্ডার সমতা, সাম্য, লেন্স এবং বৈষম্য কী?

সাধারণভাবে বা সঙ্কীর্ণ অর্থে জেন্ডার শব্দের অর্থ বলতে অনেকে...