শনিবার, অক্টোবর ১, ২০২২

তিনবিঘা করিডোর এবং তিনবিঘা করিডোরের ইতিহাস, নামকরণ ও যোগাযোগ ব্যবস্থা

১৯৭৪ সালে বাংলাদেশ চুক্তি অনুসারে সাথে সাথেই দক্ষিণ বেরুবাড়ী ভারতের কাছে হস্তান্তর করে কিন্তু ওই সময় ভারত তিনবিঘা করিডোর বাংলাদেশের কাছে রাজনৈতিক কারণে হস্তান্তর করেনি।

দহগ্রাম-আঙ্গরাপোতা ছিটমহলে যাতায়াতের সুবিধার্থে ভারত ২০১১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশকে ইজারার মাধ্যমে তিনবিঘা করিডোর (the Tinbigha Corridor) ব্যবহারের সুযোগ করে দেয়। এই তিনবিঘা করিডোর আসলে কী, এটি কোথায় অবস্থিত এবং এই তিনবিঘা করিডোরের ইতিহাস সম্পর্কে সংক্ষেপে কিছু তথ্য তুলে ধরা হলো এখানে।

তিনবিঘা করিডোর কী এবং কোথায় অবস্থিত?

তিনবিঘা করিডোর হলো ভারতের মালিকানাধীন তিন বিঘা জমির মধ্যে অবস্থিত একটি স্বতন্ত্র ভূমি। এই তিনবিঘা করিডর ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের কোচবিহার (Cooch Behar) জেলার মেখলিগঞ্জ মহকুমা ও বাংলাদেশের লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার সীমান্তে অবস্থিত।

মূলত, তিনবিঘা করিডোর হলো ভারতের ভূমিতে তিনবিঘা আয়তনের জমিতে নির্মিত এমন একটি সরু পথ যা ভারতের অভ্যন্তরে অবস্থিত ‘দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা’ নামে পরিচিত বাংলাদেশের একটি অংশে বা ছিটমহলে বাংলাদেশের মূল ভূখণ্ড থেকে বাধাহীন যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এই তিনবিঘা করিডোরটিতে রয়েছে কাঁটাতারের বেড়া।

তিনবিঘা করিডোরের ইতিহাস

মে ১৬, ১৯৭৪ সালে ‘ইন্দিরা গান্ধী-শেখ মুজিবুর রহমান চুক্তি’ অনুসারে ভারত ও বাংলাদেশ তিনবিঘা করিডোর সার্বভৌমত্ব পরস্পরের কাছে হস্তান্তর করে। এর ফলে উভয়দেশেই তাদের ছিটমহলে যথাক্রমে দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা ও দক্ষিণ বেরুবাড়ীর যাতায়াত সুবিধা তৈরি হয়।

১৯৭৪ সালে বাংলাদেশ চুক্তি অনুসারে সাথে সাথেই দক্ষিণ বেরুবাড়ী ভারতের কাছে হস্তান্তর করে কিন্তু ওই সময় ভারত তিনবিঘা করিডোর বাংলাদেশের কাছে রাজনৈতিক কারণে হস্তান্তর করেনি।

পরবর্তীতে বাংলাদেশ সরকারের অনেক বিরোধিতার পর ২০১১ সালে ভারত পূর্ণভাবে তিনবিঘা করিডোর ব্যবহার করার সুযোগ দেয়। তবে এটি স্থায়ীভাবে ব্যবহারের কোনো সুযোগ নয় নয় বরং বাংলাদেশকে সরকারকে স্বীকার করতে হয়েছে যে, বাংলাদেশ এটি ইজারা হিসাবে নিয়েছে এবং সময়ে দক্ষিণ বেরুবাড়ি ভারতের নিয়ন্ত্রণেই থাকবে। তিনবিঘা করিডোর হস্তান্তর করা বা ইজারা প্রদান করার জন্য ভারতের সংবিধান পরিবর্তন করতে হয়েছিল।

১২ নং দক্ষিণ বেরুবাড়ী ইউনিয়নের মোট আয়তন ২২.৫৮ বর্গকিলোমিটার (৮.৭২ বর্গমাইল), যার ১১.২৯ বর্গকিলোমিটার (৪.৩৬ বর্গমাইল) বাংলাদেশ পেয়েছিল। এছাড়াও পূর্বের ভাগ অনুসারে কোচ বিহারের চারটি ছিটমহল বাংলাদেশে পড়েছিল যার আয়তন ৬.৮৪ বর্গকিলোমিটার (২.৬৪ বর্গমাইল), এভাবে মোট আয়তন ১৮.১৩ বর্গকিলোমিটার (৭.০০ বর্গমাইল) যা বাংলাদেশে স্থানান্তর হওয়ার কথা ছিল। 

১৯৬৭ সালের হিসেব অনুযায়ী এই ভূখণ্ডগুলোর মোট জনসংখ্যার ৯০% ছিল হিন্দু ধর্মাবলম্বী। পক্ষান্তরে বাংলাদেশের ছিটমহল দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা ভারতে হস্তান্তরের কথা ছিল। যার মোট আয়তন ১৮.৬৮ বর্গকিলোমিটার (৭.২১ বর্গমাইল) ও ১৯৬৭ সালের হিসেব অনুযায়ী মোট জনসংখ্যার ৮০% ছিল মুসলমান। যদি এই হস্তান্তর সফল হতো তাহলে এটি জাতিগত দাঙ্গা সৃষ্টির সম্ভাবনা থাকত। ফলে তখন বেরুবাড়ীর জনগণ এই হস্তান্তরের বিরোধিতা করেছিল।

১৯৭১ সালের পর ভারত বাংলাদেশকে প্রস্তাব দেয়— বেরুবাড়ীর অর্ধাংশ ভারতের অধীন থাকবে এবং দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা বাংলাদেশেই থাকবে। এই চুক্তি অনুসারে ভারত দহগ্রাম-আঙ্গরপোতাবাসীর বাংলাদেশের মূল ভূখন্ডের সাথে যোগাযোগ রক্ষার জন্য একটি তিনবিঘা আয়তনের জায়গা ইজারা হিসেবে দেওয়া হয়। তখন এটি বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক গৃহীত হয়েছিল এবং তিনবিঘার চারপাশে সতর্কতার সাথে বেষ্টনী দেওয়া হয়েছিল।

১৯৭৪ সালের মে মাসের ১৬ তারিখ ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমানের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়; সে চুক্তির‍ ১.১৪ ধারা অনুসারে বেরুবাড়ী বিরোধের অবসান ঘটে। চুক্তি অনুসারে, “ভারত দক্ষিণ বেরুবাড়ীর দক্ষিণাংশের অর্ধেক নিয়ন্ত্রণ করবে যার আনুমানিক আয়তন ৬.৮ বর্গকিলোমিটার (২.৬৪ বর্গমাইল) এবং বিনিময়ে বাংলাদেশ দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা নিয়ন্ত্রণ করবে। ভারত দহগ্রাম-আঙ্গরপোতাবাসীদের বাংলাদেশের মূল ভূখন্ডের সাথে যোগাযোগ স্থাপনের জন্য ১৭৮ বাই ৮৫ মিটার (৫৮৪ ফুট × ২৭৯ ফুট) আয়তনের একটি ভূমি বাংলাদেশকে ইজারা হিসেবে দেবে।”

নাম কেন ‘তিনবিঘা’?

বাংলা আয়তন পরিমাপের একটি একক হলো ‘বিঘা’ এবং এই ভূমিটির মোট আয়তন ১,৫০০ থেকে ৬,৭৭১ বর্গমিটার (১৬,১৫০ থেকে ৭২,৮৮০ বর্গফুট) যা তিন বিঘা পরিমাপের সমান; এ থেকে ‘তিনবিঘা’ নামের উৎপত্তি।

তিনবিঘা করিডোরে প্রবেশ

পূর্বে করিডোরটি দিনের ১২ ঘণ্টা সময়ের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হত, এতে দহগ্রাম-আঙ্গরপোতার অধিবাসীদের কঠিন সমস্যার সম্মুখীন হতে হতো কারণ সে-সময় সেখানে কোনো হাসপাতাল ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছিল না। ২০১১ সালের ৬ই সেপ্টেম্বর ঢাকায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীর মনমোহন সিং-এর মধ্যকার একটি চুক্তি অনুযায়ী বর্তমানে করিডোরটি ২৪ ঘণ্টাই উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে।

২০১১ সালের ১৯শে অক্টোবর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে করিডোরটি উন্মুক্ত ঘোষণা করেন।

দহগ্রাম ইউনিয়নকে অনেকেই বলে থাকেন, ‘ভারতের বুকে একটুকরো বাংলাদেশ’। দহগ্রাম হলো ২০১৫ সালে ছিটমহল বিনিময়ের পরে ভারতের মধ্যে থেকে যাওয়া বাংলাদেশের একমাত্র ছিটমহল।

যোগাযোগ ব্যবস্থা

তিনবিঘা করিডোর এবং দহগ্রাম ইউনিয়নে লালমনিরহাট জেলা হতে সড়ক ও রেল-পথে এবং পাটগ্রাম উপজেলা হতে সড়ক পথে যাতায়াত করা যায়। সম্পূর্ণ পথ পাকা রাস্তা। পিচঢালা পথে পাটগ্রাম উপজেলা সদর হতে তিনবিঘা করিডোরের সড়ক পথে দূরত্ব প্রায় ১০ কিলোমিটার এবং লালমনিরহাট বাস স্ট্যান্ড হতে সড়ক পথে দূরত্ব প্রায় ৮৮ কিলোমিটার। ঢাকা (জিরো পয়েন্ট) থেকে তিনবিঘা করিডোরের দূরত্ব সড়ক পথে ৪০৫ কিলোমিটার। 

বিশ্লেষণ-এর সকল লেটেস্ট নিবন্ধ পেতে Google News-এ অনুসরণ করুন

আহমেদ মিন্টো
মিন্টো একজন ফ্রিল্যান্স লেখক এবং বিশ্লেষণ'র কন্ট্রিবিউটর।

নিবন্ধটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানান আমাদেরকে। নিচের মন্তব্যের ঘরে সংক্ষেপে লিখুন আপনার মন্তব্য। মন্তব্যের ভাষা যদি প্রকাশযোগ্য হয় তবে তা এখানে প্রকাশিত হবে। আর যদি আপনার কোনো অপ্রকাশিত নিবন্ধ বিশ্লেষণ-এ প্রকাশ করতে চান তাহলে নিম্নোক্ত ইমেইলে তা পাঠিয়ে দিন নিজের নাম, পরিচয় ও ছবিসহ।

ইমেইল: [email protected]

3 টি মন্তব্য

  1. ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যে সম্পাদিত তিন বিঘা চুক্তিটি ১৯৯২ খ্রিস্টাব্দের ২৬ শে জুন বাস্তবায়িত হয়। এই চুক্তি বাস্তবায়নের সময় আমি আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিনিধি হিসেবে তিনবিঘাতে উপস্থিত ছিলাম। আপনাদের সংবাদে কোথাও সে কোথায় উল্লেখ নেই। তিন বিঘা চুক্তি বাস্তবায়নের যে তথ্য আপনারা দিয়েছেন সেটা সঠিক নয়। আশা করি জনস্বার্থে সংশোধন করে নেবেন।

    • আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ, মিস্টার ভট্টাচার্য। আপনার হাতে যদি পর্যাপ্ত সময় থাকে তাহলে বিশ্লেষণ-এর জন্য এ নিয়ে লেখার জন্য অনুরোধ করা হলো। বিশ্লেষণে প্রকাশিত এ নিবন্ধটির অনেক সীমাবদ্ধতা আছে তা স্বীকার করছি। আপনার জন্য শুভকামনা।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সাম্প্রতিক মন্তব্য

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

সুশাসন কী? সুশাসনের ধারণা, সংজ্ঞা ও উপাদান কী?

সুশাসন হলো এক ধরনের শাসন প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ক্ষমতার...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।