শনিবার, অক্টোবর ১, ২০২২

রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত কী? রায়তওয়ারি বন্দোবস্তের কারণ, শর্ত ও ফলাফল কী?

রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত হলো ভারতে ১৮২০ সালে প্রবর্তিত এক ধরনের ভূমি রাজস্ব ব্যবস্থাপনা।

ভারতীয় উপমহাদেশে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি যতগুলো সিদ্ধান্তের বাস্তবায়ন ঘটায় সেগুলোর মধ্য একটি হলো রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত। এখানে খুবই সংক্ষেপে রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত (The Ryotwari System)  সম্পর্কে উল্লেখ করা হলো।

রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত কী

রায়ত শব্দের অর্থ হলো ‘চাষী’ ও ‘প্রজা’। জমিদার কিংবা শাসকের অধীন কোনো জমির দখল-স্বত্ব বিশিষ্ট প্রজাদের বলা হয় রায়ত।

রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত হলো ভারতে ১৮২০ সালে প্রবর্তিত এক ধরনের ভূমি রাজস্ব ব্যবস্থাপনা।

আঠারো শতকে দিকে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি শুধু মাদ্রাজ প্রেসিডেন্সি বাদে দক্ষিণ ভারতের বিভিন্ন জায়গায় স্যার টমাস মনরাের  এবং বােম্বাই প্রদেশে লিফিনস্টোনের নেতৃত্বে এক ধরনের ভূমিরাজস্ব ব্যবস্থা প্রবর্তন করে, যা রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত নামে পরিচিতি লাভ করে। রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত চালু হয় ১৮২০ সালে।

রায়তওয়ারি বন্দোবস্তের কারণ

রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত চালু করার পেছনে কারণ ছিল দক্ষিণ ভারতের বিভিন্ন জায়গায় চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত প্রবর্তনে সুনির্দিষ্ট কিছু অসুবিধা বা বাধা।

রায়তওয়ারি বন্দোবস্তের দুইটি প্রধান কারণ নিচে উল্লেখ করা হলো:

  • দক্ষিণ ভারতে জমিদারশ্রেণির অপ্রতুলতা
  • সংখ্যায় অল্প হলেও দক্ষিণ ভারতের জমিদারগণ ব্রিটিশবিরোধী ভূমিকা নিয়েছিল

রায়তওয়ারি বন্দোবস্তের শর্তাবলি

  • কৃষক ও সরকারের মধ্যে সরাসরি ভূমি বন্দোবস্ত ব্যবস্থা, যেখানে সকল জমির মালিক সরকার। অর্থাৎ কৃষকদের জমির মালিকানা স্বত্ব ছিল না।
  • নির্দিষ্ট রাজস্বের বিনিময়ে কৃষকরা জমির ভােগদখলি স্বত্ব লাভ করে।
  • ২০ থেকে ৩২ বছর পর পর কৃষকদের সাথে আলোচনা করে সরকার ভূমিরাজস্বের পরিমাণ বাড়াবে হবে বলে সিদ্ধান্ত হয়।
  • রাজস্বের পরিমাণ নির্ধারিত হয় মােট উৎপাদিত ফসলের ৪৫ থেকে ৫৫ শতাংশ।
  • জমি জরিপের মাধ্যমে এবং উৎপাদনের মাপকাঠিতে জমিকে ৯ ভাগে ভাগ করা হয়। 
  • বন্যা, খরা বা যে-কোনো প্রকারের দুর্যোগের কারণে শস্যহানি হলেও কৃষকরা খাজনা দিতে বাধ্য থাকত।

রায়তওয়ারি বন্দোবস্তের ফলাফল

রায়তওয়ারি বন্দোবস্তের সুফল

  • রায়তওয়ারি বন্দোবস্তের মাধ্যমে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া সরকারের সঙ্গে রায়তদের সরাসরি সম্পর্ক গড়ে ওঠায় প্রশাসনিক জটিলতা হ্রাস পায় ও জমি সংক্রান্ত ভুল বােঝাবুঝি অনেকাংশেরই অবসান ঘটে।
  • রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত প্রবর্তন করার ফলে মধ্যস্বত্বভােগীর কোনাে অস্তিত্ব না থাকায় কৃষকরা অন্যায় জোরজুলুম ও অত্যাচারের হাত থেকে রেহাই পায়।
  • জমিদাররা ইচ্ছেমতো মতাে কৃষকদের জমি থেকে উচ্ছেদ করতে পারত না।
  • রায়তওয়ারি বন্দোবস্তে ফলে বেশিরভাগ রায়তেরই ভূমিদাস রাখার ক্ষমতা না থাকায় ভূমিদাস প্রথার অবসান ঘটে।

রায়তওয়ারি বন্দোবস্তের কুফল

  • রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত চালু হওয়ার পর থেকেই বেশিরভাগ কৃষক সরাসরি ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কর্মচারীদের হাতে শােষিত ও অত্যাচারিত হতো।
  • রায়তওয়ারি বন্দোবস্ত ব্যবস্থাতে জমির ওপর কৃষকের মালিকানা স্বত্ব প্রতিষ্ঠিত হয়নি।
  • ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি কৃষক প্রজাদের কাছ থেকে অধিক হারে (শতকরা ৪৫ থেকে ৫৫ ভাগ) রাজস্ব আদায় করত।
  • রায়তওয়ারি বন্দোবস্তে খাজনার হার অত্যন্ত বেশি হওয়ায় কোম্পানিকে খাজনা দেওয়ার পর কৃষকের হাতে অবশিষ্ট যা থাকত তা দিয়ে সারাবছর জীবিকা নির্বাহ করা কঠিন ছিল।
  • বন্যা, খরার কিংবা যে-কোনো ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগে শস্যহানি ঘটলেও প্রজারা খাজনা বা রাজস্ব দিতে বাধ্য থাকত; এর ফলে প্রজারা জমিরক্ষার তাগিদে সাউকার ও মহাজনদের কাছে ঋণ নিয়ে দেনায় আকণ্ঠ ডুবে থাকত।

এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, স্বাধীনতার পরে ভারতে ‘রাষ্ট্রীয় অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইন, ১৯৫০’ আইনের মাধ্যমে রায়তরা জমির প্রকৃত মালিকে পরিণত হয়।

বিশ্লেষণ-এর সকল লেটেস্ট নিবন্ধ পেতে Google News-এ অনুসরণ করুন

আহমেদ মিন্টো
মিন্টো একজন ফ্রিল্যান্স লেখক এবং বিশ্লেষণ'র কন্ট্রিবিউটর।

নিবন্ধটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানান আমাদেরকে। নিচের মন্তব্যের ঘরে সংক্ষেপে লিখুন আপনার মন্তব্য। মন্তব্যের ভাষা যদি প্রকাশযোগ্য হয় তবে তা এখানে প্রকাশিত হবে। আর যদি আপনার কোনো অপ্রকাশিত নিবন্ধ বিশ্লেষণ-এ প্রকাশ করতে চান তাহলে নিম্নোক্ত ইমেইলে তা পাঠিয়ে দিন নিজের নাম, পরিচয় ও ছবিসহ।

ইমেইল: [email protected]

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সাম্প্রতিক মন্তব্য

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

সুশাসন কী? সুশাসনের ধারণা, সংজ্ঞা ও উপাদান কী?

সুশাসন হলো এক ধরনের শাসন প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ক্ষমতার...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।