বুধবার, অক্টোবর ৫, ২০২২

সর্বাত্মক পরিচয়পত্রের সংজ্ঞা এবং এতে কী থাকে? সর্বাত্মক পরিচয়পত্র প্রস্তুত প্রণালী কী?

সর্বাত্মক পরিচয়পত্রের অপর নাম 'ক্রমপুঞ্জিত পরিচয়পত্র'।

সর্বাত্মক পরিচয় পত্র কী

সর্বাত্মক পরিচয়পত্র হলো শিক্ষার্থীদের জীবনের ইতিহাস, যা শুরু হয় তাদের যোগদানের সময় এবং তার শিক্ষা সমাপ্তিকাল পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে লিপিবদ্ধ করা হয়। সর্বাত্মক পরিচয়পত্রের অপর নাম ‘ক্রমপুঞ্জিত পরিচয়পত্র’।

সর্বাত্মক পরিচয়পত্র হলো একেকজন শিক্ষার্থীর সর্বাঙ্গীন উন্নতির পরিচয়পত্র। সর্বাত্মক পরিচয়পত্রে শিক্ষার্থীর শিক্ষণীয় বিষয়ের কৃতিত্বের রেকর্ডসহ তার দৈহিক, মানসিক, প্রক্ষোভিক, সামাজিক, প্রবণতা, বুদ্ধি ইত্যাদি বিভিন্ন ক্ষেত্রের উন্নতির মাত্রা ও পরিচয় লিপিবদ্ধ করা হয়।

সুতরাং, যে পুস্তিকা বা পত্রে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের শিক্ষণীয় বিষয়ের কৃতিত্ব বা অগ্রগতি, তাদের স্বাস্থ্য ও ব্যক্তিসত্তার বিশেষ বৈশিষ্ট্য, কাজকর্ম, সামাজিক আচরণ, বুদ্ধি, প্রবণতা ইত্যাদি বিষয়ের উপর নিয়মিত পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে আহরিত তথ্য লিপিবদ্ধ থাকে, তাকে সর্বাত্মক পরিচয়পত্র বলে। এই সর্বাত্মক পরিচয়পত্র বা ক্রমপুঞ্জিত পরিচয়পত্রের উপর ভিত্তি করে শিক্ষার্থীদের আচরণ বা জীবনে পরিবর্তন আনার সুযোগ পাওয়া যায়।

সর্বাত্মক পরিচয়পত্রে কী কী থাকে?

ইতোমধ্যেই বলা হয়েছে যে, সর্বাত্মক পরিচয়পত্রের অপর নাম ক্রমপুঞ্জিত পরিচয়পত্র; সুতরাং এই পরিচয়পত্রে সকল তথ্যের পুঞ্জিভুত রূপ থাকে। সধারণত যে সব বিষয় ক্রমপুঞ্জিত বা সর্বাত্মক পরিচয়পত্রে থাকে তা হলো: 

  • মৌলিক পরিচয়
  • পারিবারিক পরিচয়
  • পাঠোন্নতির বিবরণ
  • সামাজিকতার পরিচয়
  • ঝোঁকের পরিচয়
  • চারু ও কারুশিল্পে প্রবণতার পরিচয়
  • স্বাস্থ্য পরিচয়
  • ব্যক্তিত্বের পরিচয়
  • সহ-পাঠক্রমিক কার্যাবলির পরিচয়
  • বিদ্যালয়ে নিয়মিত উপস্থিতির নকশা
  • আগ্রহের পরিচয়
  • স্কুলে দায়িত্ব পালনে শিক্ষার্থীর অবস্থান 
  • পুরষ্কার প্রাপ্তি ইত্যাদির পরিচয়

সর্বাত্মক পরিচয়পত্র সংরক্ষণ প্রণালী 

সর্বাত্মক পরিচয়পত্র সংরক্ষণের পূর্বে অবশ্যই শিশুদের (শিক্ষার্থী) ধারাবাহিক মূল্যায়নকে গুরুত্ব দিতে হবে। সর্বাত্মক পরিচয়পত্র সংরক্ষণের জন্য যে বিষয়গুলো মনে রাখতে হবে তা হলো:

  • প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কম পক্ষে তিন বা পাঁচ বছরের রেকর্ড একসঙ্গে থাকবে।

সাধারণত ১ম পরিচয়পত্রে প্রাথমিক পর্যায়ে ১ম থেকে ৫ম শ্রেণি;

দ্বিতীয়টিতে নিম্ন মাধ্যমিক পর্যায়ে ষষ্ঠ শ্রেণিতে যে রেকর্ড রাখা শুরু হবে তা অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত চলবে;

তৃতীয় পরিচয়পত্র শুরু হবে নবম শ্রেণি থেকে চলবে দশম শ্রেণি পর্যন্ত।

  • যে-কোনো শিক্ষক যে-কোনো শিক্ষার্থীর পরিচয়পত্র দেখতে পারেন।
  • এক শিক্ষার্থীকে অন্য শিক্ষার্থীর পরিচয়পত্র দেখানো যাবে না।
  • পরিচয়পত্রটি এমনভাবে লিখতে হবে যেন যে কোন শিক্ষার্থী সম্বন্ধে প্রয়োজনীয় কোন তথ্য এক নজরে চোখে পড়ে।
  • পরিচয়পত্রে তথ্যের পুনরাবৃত্তি ঘটবে না।
  • শ্রেণি শিক্ষক বা পরামর্শদাতাই কেবলমাত্র পরিচয়পত্র সংরক্ষণ করবেন।
  • শিক্ষার্থীর চাহিদা অনুসারে শিক্ষক বিভিন্ন সময়ে তাকে প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করবেন।
  • প্রয়োজনে অভিভাবককে এই পরিচয়পত্র দেখানো যেতে পারে।
  • বিদ্যালয় পরিবর্তনের ক্ষেত্রে এই পরিচয়পত্র ট্রান্সফার সার্টিফিকেটের সাথে দিতে হবে।

বিশ্লেষণ-এর সকল লেটেস্ট নিবন্ধ পেতে Google News-এ অনুসরণ করুন

জারিন তাসনিম
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং স্বাধীন লেখক।

নিবন্ধটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানান আমাদেরকে। নিচের মন্তব্যের ঘরে সংক্ষেপে লিখুন আপনার মন্তব্য। মন্তব্যের ভাষা যদি প্রকাশযোগ্য হয় তবে তা এখানে প্রকাশিত হবে। আর যদি আপনার কোনো অপ্রকাশিত নিবন্ধ বিশ্লেষণ-এ প্রকাশ করতে চান তাহলে নিম্নোক্ত ইমেইলে তা পাঠিয়ে দিন নিজের নাম, পরিচয় ও ছবিসহ।

ইমেইল: [email protected]

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সাম্প্রতিক মন্তব্য

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।

সুশাসন কী? সুশাসনের ধারণা, সংজ্ঞা ও উপাদান কী?

সুশাসন হলো এক ধরনের শাসন প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ক্ষমতার...