সোমবার, জুলাই ৪, ২০২২

নেতৃত্ব: নেতৃত্বের বিকাশে সমস্যা ও দূরীকরণের উপায়

প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও কৌশল এবং ব্যক্তির লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও কৌশলের যোগসূত্রই একজন নেতাকে সফল করে তোলে।

নেতৃত্বের বিকাশে সমস্যা (Problems in Developing Leadership)

নেতৃত্ব হলো এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে অনুসারীদের আনুগত্য আদায় করা যায়। নেতৃত্ব একটি শিল্প। পৃথিবীতে এই শিল্পের কুশলীর অভাব প্রচণ্ড। প্রকৃত নেতৃত্ব তখনই গড়ে ওঠে যখন কতগুলো নির্দিষ্ট বিষয় একযোগে কাজ করে এবং সফলতা অর্জিত হয়। নেতার ভুলে প্রতিষ্ঠানকে অনেক খেসারত দিতে হয়। আদর্শ নেতা কখনোই অনুসারীকে উপেক্ষা করে সিদ্ধান্ত দেন না। নেতৃত্ব কখনোই দাম্ভিকতা নিয়ে টিকতে পারে না। রাজনৈতিক নেতৃত্ব, ব্যবসায়িক নেতৃত্ব অথবা যে কোনো ধরনের নেতৃত্বের ক্ষেত্রে সত্যিকারের সূত্রগুলো কিন্তু একই। তবে বিভিন্ন কারণে নেতৃত্ব বিকাশে নানাবিধ সমস্যা দিতে পারে।

  1. সঠিক ফলাবর্তনের অভাব (Lack of proper feedback): নেতাকে তার কার্যকলাপের উপর যথাযথ ফলাবর্তন বা ভববফনধপশ পেতে হবে। অপরের ইচ্ছা-অনিচ্ছাকে অবশ্যই প্রাধান্য দিতে হবে। ফলাবর্তন সঠিক না হলে নেতৃত্ব টিকে থাকতে পারে না। ফলাবর্তনকে অগ্রাহ্য করা নেতৃত্বের সবচেয়ে বড়ো ভুল। 
  2. অংশগ্রহণমূলক নেতৃত্বের অভাব (Lack of participatory leadership): নেতাকে অবশ্যই অনুসারীদের মাঝে অংশগ্রহণমূলক মনোভাব গড়ে তুলতে হবে। অনুসারীদের সাথে আলাপ-আলোচনা করে তাকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। অংশগ্রহণমুলক অর্থ হলো সিদ্ধান্তগ্রহণে অনুসারীদেরকে আলাপ-আলোচনা করার সুযোগ দেওয়া। এতে সুফল পাওয়া যায়। কেননা সিদ্ধান্তগ্রহণ অংশগ্রহণমূলক হওয়ার কারণে অনুসারীরা নেতার প্রতি অধিক আনুগত্য প্রকাশ করে। 
  3. অধীনস্তদের সময় দিতে অনিচ্ছা (Unwillingness to spend time for subordinates): অধীনস্তরা সর্বদা নেতার নৈকট্য পছন্দ করে। কোনো নেতা যদি তার অধীনস্তদের সময় না দেন, তারা নেতার সমালোচনা করবেন এটাই স্বাভাবিক। অনুসারীদের অভাব-অভিযোগ না শোনা নেতৃত্বের বড়ো সমস্যা। 
  4. সুস্পষ্ট লক্ষ্যের অভাব (Lack of clear goals):  নেতাকে সর্বদা অর্জনযোগ্য লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। যদি সেটা না করা যায় তবে নেতৃত্বে সফলতা আসে না। যদি কোনো প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য ঠিক না থাকে, তখন ঐ প্রতিষ্ঠানে নেতৃত্ব বিকাশে যথেষ্ট সমস্যা দেখা দেয়। 
  5. অধীনস্তদের সাথে অতিরিক্ত সখ্যতা (Lack of clear goals):  কোনো কোনো নেতা অনেক সময় অধীনস্তদের সাথে অতিরিক্ত সখ্যতায় জড়িয়ে পড়ে। এতে তোষামোদকারী বেড়ে যায় এবং নেতার আবেগকে কাজে লাগিয়ে তাকে বিভ্রান্ত করে। অধীনস্তদের সাথে সখ্যতার কারণে অনুসারীরা নেতাকে ভয় পায় না এবং কাজে ফাঁকি দেয় ও দায়িত্ব এড়ায়। 
  6. সুনির্দিষ্ট সাংগঠনিক কাঠামোর অভাব (lack of specific organization structure): সাংগঠনিক কাঠামো সুনির্দিষ্ট না হলে অর্থাৎ দায়-দায়িত্ব সুনির্দিষ্ট না হলে নেতাকে অধীনস্তরা পাত্তা দেয় না। এটা নেতৃত্ব বিকাশে বড়ো ধরনের সমস্যা। 
  7. প্রতিষ্ঠানের রীতিনীতি (Policy and procedure): প্রতিষ্ঠানের পলিসি ও কর্মপদ্ধতি সঠিক না হলে নেতৃত্বের বিকাশে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হতে পারে। এ ছাড়া পলিসি বারবার পরিবর্তন করলে নেতৃত্বের বিকাশ বাধাগ্রস্ত হয়। 
  8. স্বজনপ্রীতি (Nepotism): স্বজনপ্রীতি সুষ্ঠু নেতৃত্ব বিকাশের অন্তরায়। নেতার উচিত অনুসারীদের তোষামোদ উপেক্ষা করে স্বজনপ্রীতি পরিহার করা। 
  9. অহংকার (Egoism): অহংকার পতনের মূল। অনেক নেতা ক্ষমতার মোহে পড়ে দাম্ভিকতা দেখায়। ফলে অনুসারীদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়।
  10. আবেগ (Emotion): প্রতিটি মানুষই কম-বেশি আবেগপ্রবণ। কিন্তু অতিরিক্ত আবেগ নেতার সুষ্ঠু নেতৃত্বের পথে বাধা সৃষ্টি করে। 
  11. অন্যান্য (Others): প্রযুক্তিগত বাধা, ক্ষমতার অপব্যবহার, শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার অভাব ইত্যাদি নেতৃত্ব বিকাশে বড়ো ধরনের সমস্যা। 
কোনো গোষ্ঠী বা প্রতিষ্ঠানের উন্নতির জন্য যোগ্য নেতৃত্ব বা লিডারশিও খুবই গুরুত্বপূর্ণ
কোনো গোষ্ঠী বা প্রতিষ্ঠানের উন্নতির জন্য যোগ্য নেতৃত্ব বা লিডারশিও খুবই গুরুত্বপূর্ণ | August de Richelieu/Pexels

নেতৃত্বের বিকাশের পথে সৃষ্ট সমস্যাসমূহ সমাধানের উপায় (Ways to Solve the Problems of Developing Leadership) 

নেতৃত্ব বিকাশের পথে সৃষ্ট সমস্যাগুলো সমাধানের জন্য নেতাকে নিচের কাজগুলো করতে হবে:

  • সঠিক ফলাবর্তন নিশ্চিত করতে হবে। 
  • অনুসারীদের সাথে আলাপ-আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। 
  • অনুসারীদের অভাব-অভিযোগ মনোযোগ সহকারে শ্রবণ করতে হবে এবং সাধ্যমত তা সমাধানের চেষ্টা করতে হবে। 
  • অনুসারীদের প্রেষণা দান করতে হবে। 
  • নেতাকে কৃতকার্য হতে হলে স্বজনপ্রীতি পরিহার করতে হবে। 
  • সাংগঠনিক কাঠামো সহজ ও সবল করতে হবে যাতে প্রত্যেক দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তির দায়-দায়িত্ব সুনির্দিষ্ট থাকে। 
  • নেতাকে অহংকার এড়িয়ে স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে হবে। 
  • পরিবর্তনের সাথে তাল মিলিয়ে চলার জন্য সর্বাধুনিক কারিগরি জ্ঞানের অধিকারী হতে হবে। 

একটি বৃহৎ সাফল্য ধাপে ধাপে অর্জিত বিভিন্ন সাফল্যের সমন্বিত রূপ। সফল নেতৃত্বের জন্য সঠিক সময়ে সঠিক লক্ষ্য নির্ধারণ এবং লক্ষ্য অর্জনের ধারাবাহিকতা ও সমন্বয় অত্যন্ত জরুরি। শুধু তাই নয়, একজন প্রকৃত নেতা প্রতিষ্ঠানের ভেতরে প্রতিযোগিতার বদলে সহযোগিতার সৃষ্টি করে। ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্যের মধ্যে সমন্বয়সাধনের ব্যাপারে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত করে প্রকৃত নেতৃত্ব। প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও কৌশল এবং ব্যক্তির লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও কৌশলের যোগসূত্রই একজন নেতাকে সফল করে তোলে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

সুশাসন কী? সুশাসনের ধারণা, সংজ্ঞা ও উপাদান কী?

সুশাসন হলো এক ধরনের শাসন প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ক্ষমতার...

পাঠ পরিকল্পনা: পাঠ পরিকল্পনার সংজ্ঞা এবং হার্বার্টের পঞ্চসোপান ও আধুনিক ত্রিসোপান

শিক্ষার্থীরা কী শিখবে, কীভাবে তা শেখানো হবে এবং কীভাবে শিখন মূল্যায়ন করা হবে সে সম্পর্কে শিক্ষকের দৈনন্দিন নির্দেশনা হলো পাঠ পরিকল্পনা