শনিবার, অক্টোবর ১, ২০২২

হোমিওপ্যাথি কী? হোমিওপ্যাথিক ঔষধ, চিকিৎসা এবং এর ঝুঁকি কী?

হোমিওপ্যাথ চিকিৎসার মাধ্যমে কোনো বন্ধ্যা নারী তার বন্ধ্যাত্ব থেকে মুক্তি পেতে পারেন এবং স্বাভাবিক নারীদের মতোই সন্তান জন্ম দিতে পারে?

বলা হয়ে থালে হোমিওপ্যাথি (homeopathy) হলো একটি কার্যকরী চিকিৎসা পদ্ধতি। হোমিওপ্যাথিকে যে সব ঔষধ ব্যবহার করা হয় সেগুলোকেও ন্যায়সঙ্গত বলে উপস্থাপন করা হয়৷ কিন্তু এই হোমিওপ্যাথি আসলে কী?

হোমিওপ্যাথি কী?

১৭৯৬ সালে স্যামুয়েল হানেমান হোমিওপ্যাথি আবিষ্কার করেন। ক্রিস্টিয়ান ফ্রেইডরিক স্যামুয়েল হানেমান  (Christian Friedrich Samuel Hahnemann) ছিলেন একজন জার্মান চিকিৎসক। হোমিওপ্যাথি চিকিৎসাপদ্ধতির উদ্ভাবক স্যামুয়েল হানেমান প্রদত্ত তত্ত্ব হলো, কোনো একজন সুস্থ ব্যক্তির দেহে কোনো একটি সাবস্টেন্স (substance) বা উপাদান প্রয়োগ করা হলে যে প্রতিক্রিয়া হয়, সেই একই প্রতিক্রিয়া দেখানো রোগীকে সুস্থ করতে সেই সাবস্টেন্স ব্যবহার করতে হবে৷

হোমিওপ্যাথি পদ্ধিতির চিকিৎসার ক্ষেত্রে রোগীর শারীরিক লক্ষণগুলোর পাশাপাশি মানসিক এবং আবেগীয় অবস্থাকেও মূল্যায়ন করা হয়৷ হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকদের বলা হয় হোমিওপ্যাথ।

হোমিওপ্যাথরা একটি ঔষধে যেসব উপাদান ব্যবহার করেন, সেগুলো এতটাই দ্রবীভূত করা হয় যে, তার মধ্যে থাকা উপাদানটি বিশ্লেষণ করে আর মূল উপাদান সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায় না৷ 

হোমিওপ্যাথিক ঔষধ কীভাবে কাজ করে?

হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার উদ্ভাবক স্যামুয়েল হানেমান বলেছেন, ‘হোমিওপ্যাথিক ঔষধে এক ধরনের ‘স্পিরিট-লাইক পাওয়ার’ রয়েছে’৷ বলা হয়, বিশেষ এক ধরনের উপাদানকে বেশ কিছু নিয়ম মেনে পর্যায়ক্রমে অ্যালকোহল বা পানিতে দ্রবীভূত করে লঘু করা হয় এবং এর পর তা প্রয়োগ করা হয়।  অনেকেই বলেন যে, এ ধরনের কথাবার্তার কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। তবুও কেমন করে সফল বলে বিশেষ এই চিকিৎসা পদ্ধতিতে সাফল্য পেয়েছেন হোমিওপ্যাথির জনক ক্রিস্টিয়ান ফ্রেইডরিক স্যামুয়েল হানেমান।

হোমিওপ্যাথি ঔষধ কী দিয়ে তৈরি করা হয়?

হোমিওপ্যাথি চিকিৎসায় ঔষধ হিসেবে যা কিছু ব্যবহৃত হয়, তা বিভিন্ন উৎস থেকে বিভিন্ন ভাবে আসে৷ হোমিওপ্যাথি ওষুধ বনানোর জন্য খুবই বিষাক্ত রাসায়নিক উপাদান ‘আর্সেনিক’ এবং ‘প্লুটোনিয়াম’ প্রায়ই ব্যবহার করা হয়৷ হোমিওপ্যাথি ঔষুধ তৈরির উপাদানের তালিকায় ‘পটাশিয়াম সায়ানাইড’ এবং ‘মার্কারি সায়ানাইড’ও থাকে। বিভিন্ন হার্বাল এবং অ্যানিমেল প্রোডাক্ট হোমিওপ্যাথি চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়৷

গোল বড়ি বা পিল আকারের হোমিওপ্যাথিক ঔষধগুলোর মূল উপাদান হচ্ছে ‘ক্রিস্টাল সুগার’৷ আর তরল অবস্থায় হোমিওপ্যাথি সাবস্টেন্সগুলোকে আসলে অ্যালকোহল বা পানির বাইরে আর কিছু বলা যায় না৷ কেননা, অ্যাক্টিভ কম্পোনেন্টগুলোকে দ্রবীভূত করে এতটাই পাতলা করে ফেলা হয় যে, সেগুলো শনাক্ত করা অত্যন্ত জটিল ব্যাপার৷

রোগী কি জানেন তাঁকে ঠিক কী ঔষধ দেয়া হচ্ছে?

স্বাভাবিকভাবেই রোগ নিরাময়ের উদ্দেশ্যে প্রয়োগ করা ঔষধ চিকিৎসক বা হোমিওপ্যাথি চর্চা করা ব্যক্তির উপর নির্ভর করে৷ অধিকাংশ রোগীই জানেন না যে, তিনি ঔষধ হিসেবে ঠিক কী গ্রহণ করছেন৷

ঔষধের দোকানগুলোতে যে সব হোমিওপ্যাথিক ঔষধ পাওয়া যায় তা শুধু ল্যাটিন নাম দিয়ে চিহ্নিত করা থাকে৷

হোমিওপ্যাথির সমালোচকরা অবশ্য বারংবার দাবি করে আসছেন যে, একজন রোগীকে যেসব ঔষধ দেয়া হয় সেগুলোতে যাতে নিজস্ব ভাষার নাম যোগ করা হয়, যাতে করে একজন রোগী বুঝতে পারেন যে তিনি ঔষুধ হিসেবে কী গ্রহণ করছেন৷

ন্যাটোরোপ্যাথির সঙ্গে এটির সম্পর্ক কী?

ন্যাটোরোপ্যাথি এবং পাইথ্যোথেরাপিকে বিজ্ঞানসম্মত মনে করা হয়৷ তবে এসবের সঙ্গে হোমিওপ্যাথির কোনো সম্পর্ক নেই৷ যেমন হার্বাল চায়ের মধ্যে অনেক শনাক্ত করা যায় এমন সক্রিয় উপাদান রয়েছে, আর হোমিওপ্যাথিক ঔষধে অসনাক্তযোগ্য উপাদানই বেশি৷ 

হোমিওপ্যাথিক থেরাপির সবচেয়ে বড়ো ঝুঁকি কী?

অকার্যকর বলে মনে করা হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা নিতে একজন রোগী যে সময় ব্যয় করেন, সেই সময়ের কারণে তাঁর রোগ আরো জটিল আকার ধারণ করতে পারে৷

যেমন, একজন ক্যান্সার রোগী যদি কেমোথেরাপি বা রেডিওথেরাপির বদলে হোমিওপ্যাথিক উপায়ে রোগ সারানোর পথ বেছে নেন, তাহলে পরবর্তীতে তাঁর ক্যানসার চিকিৎসা করা দুরূহ হয়ে পড়তে পারে৷

আর এ ধরনের ক্ষেত্রে রোগীর মৃত্যুর আশঙ্কা বেড়ে যায়৷ তাছাড়া জার্মানিতে কোনো অভিভাবক যদি তাঁর সন্তানকে প্রচলিত চিকিৎসা ব্যবস্থাথেকে জোর করে বাইরে রেখে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা গ্রহণে বাধ্য করেন, তাহলে তিনি আইনি জটিলতায় পড়তে পারেন৷ 

হোমিওপ্যাথির সাফল্য কিসের উপর নির্ভরশীল?

হোমিওপ্যাথরা সাধারণত একজন রোগীকে এবং তাঁর রোগ সম্পর্কে জানতে বেশ কয়েক ঘণ্টা সময় ব্যয় করেন৷ তাঁরা সহানুভূতি প্রকাশের মাধ্যমে রোগীর দুর্বলতা সম্পর্কে জানার চেষ্টা করেন এবং নিবিড় আলোচনার মাধ্যমে এমন এক পরিস্থিতি তৈরি করেন যাতে রোগী নিজেকে গুরুত্বপূর্ণ ভাবতে শুরু করেন৷ 

আর এ কারণে হোমিওপ্যাথিকে মেডিসিনের বদলে সাইকোথেরাপি হিসেবে বিবেচনা করেন অনেকে৷ এভাবে আসলে একজন মানুষের ‘সেল্ফ-হিলিং’ ক্ষমতাকে জাগিয়ে তোলার চেষ্টা করা হয়৷ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা পদ্ধতিতে ঔষধ গৌণ বিষয়৷ হোমিওপ্যাথি তাই বিশ্বাসের ব্যাপার, যুক্তির নয়৷

বন্ধ্যা নারীর সন্তানলাভ ও অটিজম ভালো হয় হোমিওপ্যাথি চিকিৎসায়?

সম্প্রতি একজন হোমিওপ্যাথ দাবি করেছেন যে, হোমিওপ্যাথ চিকিৎসার মাধ্যমে কোনো বন্ধ্যা নারী তার বন্ধ্যাত্ব থেকে মুক্তি পেতে পারেন এবং স্বাভাবিক নারীদের মতোই সন্তান জন্ম দিতে পারে।

এছাড়া তিনি জানিয়েছেন যে, হোমিওপ্যাথ চিকিৎসায় অটিজম থেকে স্বাভাবিক হওয়া যায়।

এরকম দাবি করেছেন আমিনুল ইসলাম নামের একজন হোমিওপ্যাথ। তিনি থাকেন বাংলাদেশের রাজশাহী জেলার উপশহর এলাকায়। তিনি ফেইসবুকে বিশ্বাস হোমিওপ্যাথ রিসার্চ সেন্টার (Biswas Homoeo Research Centre) নামে একটি ফেইসবুক গ্রুপে এ নিয়ে বিভিন্ন রকম পোস্ট করছেন নিয়মিত।

এই নিবন্ধে ডয়চে ভেলের একটি রিপোর্টের কিছু অংশ ব্যবহার করা হয়েছে

বিশ্লেষণ-এর সকল লেটেস্ট নিবন্ধ পেতে Google News-এ অনুসরণ করুন

জারিন তাসনিম
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং স্বাধীন লেখক।

নিবন্ধটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানান আমাদেরকে। নিচের মন্তব্যের ঘরে সংক্ষেপে লিখুন আপনার মন্তব্য। মন্তব্যের ভাষা যদি প্রকাশযোগ্য হয় তবে তা এখানে প্রকাশিত হবে। আর যদি আপনার কোনো অপ্রকাশিত নিবন্ধ বিশ্লেষণ-এ প্রকাশ করতে চান তাহলে নিম্নোক্ত ইমেইলে তা পাঠিয়ে দিন নিজের নাম, পরিচয় ও ছবিসহ।

ইমেইল: [email protected]

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সাম্প্রতিক মন্তব্য

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

সুশাসন কী? সুশাসনের ধারণা, সংজ্ঞা ও উপাদান কী?

সুশাসন হলো এক ধরনের শাসন প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ক্ষমতার...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।