মঙ্গলবার, মে ২৪, ২০২২

বয়ঃসন্ধিকালে প্রজনন স্বাস্থ্য এবং প্রজনন স্বাস্থ্যবিধি

দেহের যেসব অঙ্গসমূহ সন্তান জন্মদানের সাথে সরাসরি যুক্ত সেসব অঙ্গের স্বাস্থ্যকে প্রজনন স্বাস্থ্য বলে। প্রজনন স্বাস্থ্য হলো প্রজননতন্ত্র ও প্রজনন প্রক্রিয়ার সুস্থতা।

বয়ঃসন্ধিকালে কিশোর-কিশোরীদের দৈহিক পরিবর্তন ঘটে। ছেলে এবং মেয়ে উভয়েরই শারীরিক কাঠামো মজবুত, দৃঢ় ও বর্ধিঞ্চু হয় বলে এ সময় অধিক পুষ্টিকর খাদ্যের প্রয়োজন হয়। বয়ঃসন্ধিকালের বিশেষ শারীরিক ও মানসিক অবস্থায় সুস্থ দেহ ও মন বজায় রাখতে খাদ্য নির্বাচনের সময় নজর দেয়া দরকার।

বয়ঃসন্ধিকালে শারীরিক ক্রিয়াকর্ম বৃদ্ধি পায়। এ জন্য প্রতিদিনই তাদের সুষম খাদ্য সরবরাহ করা জরুরি। সুষম খাদ্য বলতে তাদের দেহের চাহিদা অনুযায়ী অধিক আমিষ ও শর্করাযুক্ত খাদ্য এবং অন্যান্য খাদ্য উপাদানের যথার্থ উপস্থিতিকেই বোঝানো হয়েছে। এ সময় কিশোরীদের লৌহ জাতীয় খাদ্যের চাহিদা অনেক বেড়ে যায়। সাধারণভাবে খাদ্যের ৬টি উপাদানই যথা আমিষ, শর্করা, স্নেহ, ভিটামিন, খনিজ লবণ, পানিসমৃদ্ধ খাদ্য দেহের চাহিদামত নির্বাচন করে খাদ্য তালিকা প্রস্তুত করতে হবে। অন্যথায় পুষ্টির অভাবে দৈহিক বৃদ্ধি ও মানসিক বিকাশ বাধাগ্রস্থ হবে।

প্রজনন স্বাস্থ্য

প্রজনন অর্থ সন্তান জন্মদান। বয়ঃসন্ধিকালে কিশোর-কিশোরীরা সন্তান জন্মদানের ক্ষমতা অর্জন করে। দেহের যেসব অঙ্গসমূহ সন্তান জন্মদানের সাথে সরাসরি যুক্ত সেসব অঙ্গের স্বাস্থ্যকে প্রজনন স্বাস্থ্য বলে। প্রজনন স্বাস্থ্য হলো প্রজননতন্ত্র ও প্রজনন প্রক্রিয়ার সুস্থতা। শিশুর নিরাপদ জন্ম ও সুস্থতা প্রজনন স্বাস্থ্যের উপর নির্ভরশীল। সামগ্রিক প্রজনন স্বাস্থ্য বলতে একটি শারীরিক, মানসিক ও পারিপার্শ্বিক সুস্থ অবস্থার মধ্য দিয়ে প্রজনন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়াকেই বোঝায়।

বয়ঃসন্ধিকালে প্রজনন স্বাস্থ্য রক্ষার প্রয়োজনীয়তা

বয়ঃসন্ধিকালে ছেলে মেয়েদের যে শারীরিক পরিবর্তন ঘটে সে সম্পর্কে কোনো ধারণা না থাকলে ভুল ধারণার বশবর্তী হয়ে অনেক সময় শারীরিক ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। প্রজনন স্বাস্থ্যের অন্যতম শর্ত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা। বিশেষত মেয়েদের ঋতুস্রাব সময়কালীন পরিচ্ছন্নতা বিশেষ জরুরি। নিয়মিত গোসল, জনন অঙ্গ পরিষ্কার রাখা সবসময়ই উচিত। এ সময় পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ ও প্রচুর পানি পান করতে হয়। তা না হলে শরীর দুর্বল বোধ হতে পারে। অপ্রাপ্ত বয়সে বিয়ে হলে প্রজনন স্বাস্থ্য সবচেয়ে বড় ঝুঁকির মধ্যে পড়ে। অপ্রাপ্ত বয়সে বিয়ে এবং সন্তান ধারণ মা ও শিশুর জীবনকে রোগাক্রান্ত ও ঝুঁকিপূর্ণ করে তোলে। তাই প্রাপ্ত বয়সের (১৮ বছর) আগে মেয়েদের বিয়ে দেয়া রীতিমত অপরাধ। নিয়মতান্ত্রিক, পরিচ্ছন্ন জীবনযাপন করলে যৌন রোগের ঝুঁকি থেকে মুক্ত থাকা যাবে। অর্থাৎ সুস্থ, সুন্দর, প্রফুলস্ন ও ঝুঁকিমুক্ত জীবনযাপনের জন্য প্রজনন স্বাস্থ্যরক্ষা একান্ত জরুরি।

প্রজনন স্বাস্থ্যবিধি

মানুষের সামগ্রিক স্বাস্থ্যের একটি বিশেষ অংশ হচ্ছে প্রজনন স্বাস্থ্য। সুস্থ প্রজনন স্বাস্থ্যের উপর পরবর্তী প্রজন্মের নিরাপদ জন্ম ও স্বাস্থ্য নির্ভর করে। কাজেই প্রজনন স্বাস্থ্য দেশ ও দশের স্বার্থে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এজন্য প্রজনন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা উচিত। প্রজনন স্বাস্থ্যের অন্তর্গত কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোচনা করা হলো।

১. বিয়ে ও গর্ভধারণ

মেয়েদের ১৮ বছর বয়সের আগে এবং ছেলেদের ২১ বছর বয়সের আগে বিয়ে দেওয়া যাবে না। মেয়েদের গর্ভধারণে সর্বনিম্ন বয়স ২০ বছর। অর্থাৎ ২০ বছর বয়সের আগে গর্ভধারণ করা যাবে না। এতে মা ও শিশু উভয়ই ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

২. নিরাপদ মাতৃত্ব

গর্ভধারণকালীন, প্রসবকালীন ও সন্তান প্রসব করার পর মায়ের সুস্থতা রক্ষা অত্যন্ত জরুরি। এসময়ের সুস্থতাকেই নিরাপদ মাতৃত্ব বলা হয়। নিরাপদ মাতৃত্ব শুধু শারীরিক সুস্থতাই নির্দেশ করে না। মায়ের মানসিক প্রফুল্লতা, নিরাপত্তা, যত্ন, সেবা, খাদ্য ইত্যাদিকেও বোঝায়।

৩. গর্ভকালীন যত্ন

গর্ভকালীন সময়ে মায়ের উপযুক্ত পুষ্টিকর খাদ্য, বিশ্রাম, ঘুম, ডাক্তারের নিয়মিত পরামর্শ, প্রয়োজনীয় টিকা, ওষুধ, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও আপনজনদের সহযোগিতা একান্ত জরুরি।

৪. গর্ভধারণ বিরতি

প্রজনন স্বাস্থ্য রক্ষা করতে হলে অধিক সন্তান ধারণ করা উচিত হবে না। এছাড়া ২টি সন্তানের মধ্যে ৩-৫ বছরের বিরতি দিতে হবে।

৫. প্রজননতন্ত্রের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ

প্রজননতন্ত্রের বিভিন্ন সংক্রামক ও যৌন রোগ হতে রক্ষা পেতে প্রয়োজনীয় টিকাগ্রহণ ও সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। প্রয়োজনে সেবাদানকারী সংস্থার কাছ হতে সেবা ও পরামর্শ নিতে হবে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।

জেন্ডার কাকে বলে? জেন্ডার সমতা, সাম্য, লেন্স এবং বৈষম্য কী?

সাধারণভাবে বা সঙ্কীর্ণ অর্থে জেন্ডার শব্দের অর্থ বলতে অনেকে...