রবিবার, মে ২৯, ২০২২

পাঠটীকা কী? পাঠটীকা প্রণয়নের পূর্বশর্ত এবং পাঠটীকার প্রয়োজনীতা কী?

দৈনন্দিন শ্রেণিশিক্ষা পরিচলানার প্রস্ততি ও পরিকল্পনার লিখিত বৈজ্ঞানিক রূপকে বলা হয় পাঠটীকা বা পাঠ পরিকল্পনা।

শিক্ষা আজ আর সেই সনাতনী পথে কিংবা গতানুগতিক পথে চলে না। শিক্ষাকে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে তত্ত্ব, মনস্তত্ত্ব ও বিজ্ঞানের দৃঢ়তায়। ফলে, নতুন শিক্ষাদান পদ্ধতির উদ্ভাবন হয়েছে, সৃষ্টি হয়েছে পদ্ধতি বিজ্ঞান (methodology)।

বর্তমানে শ্রেণিশিক্ষণ (classroom teaching) কার্যক্রম পরিচালনা করতে হয় উপযুক্ত পরিকল্পনা অনুসারে। একজন শিক্ষক যদি সহজ ও সঠিকভাবে শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের পাঠদান বা শিক্ষাদান করতে চান তাহলে সেক্ষেত্রে তার পাঠ পরিকল্পনা (lesson plan) প্রণয়ন করা কিংবা পাঠটীকা (lesson note) রাখা জরুরি। কারণ শিক্ষক সম্পূর্ণরূপে প্রস্তুত হয়ে শ্রেণিকক্ষে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অনুযায়ী পাঠদান করবেন। তিনি কী পড়াবেন, কীভাবে পড়াবেন, কোন পদ্ধতি অনুযায়ী পড়াবেন, তা আগে থেকেই স্থির করতে হবে।

দৈনন্দিন শ্রেণিশিক্ষা পরিচলানার প্রস্ততি ও পরিকল্পনার লিখিত বৈজ্ঞানিক রূপকে বলা হয় পাঠটীকা বা পাঠ পরিকল্পনা।

পাঠ পরিকল্পনা বা পাঠটীকা প্রণয়ন করার পূর্বশর্ত

একটি সুনির্দিষ্ট ছকে পরিকল্পনা করে শিক্ষক শ্রেণিকক্ষে পাঠদানের জন্য প্রস্তুত হবেন। একটি নির্দিষ্ট বিষয় শিক্ষাদানকে সার্থক বা ফলপ্রসূ করে তোলার জন্য শিক্ষককে আগে থেকেই কিছু চিন্তা ভাবনা করা প্রয়োজন। একে পাঠ পরিকল্পনার পূর্বশর্ত হিসেবে বিবেচনা করা হয়ে থাকে। এ শর্তগুলো নিম্নরূপ:

১. নির্দিষ্ট পাঠের যে বিশেষ অংশটি পড়ানো হবে তা নির্বাচন করতে হবে।

২. নির্দিষ্ট বিষয় সম্বন্ধে সুস্পষ্ট ধারণা অর্জনের জন্য নির্ধারিত অংশটি কয়েকবার পড়ে নিতে হবে।

৩. নির্ধারিত বিষয়টি শেখানোর উদ্দেশ্যগুলো চিহ্নিত করতে হবে।

৪. পাঠের বিশেষ বিশেষ অংশের ব্যাখ্যা ও বিশ্লেষণের জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা অর্জন করতে হবে।

৫. পাঠকে কার্যকর ও বৈচিত্র্যময় করে তোলার জন্য প্রাসঙ্গিক সহায়ক উপকরণ নির্বাচন করতে হবে। এ কাজটি অত্যন্ত সুচিন্তিত হওয়া প্রয়োজন।

৬. পাঠদানের আধুনিক পদ্ধতিগুলো সন্বন্ধে অবহিত হবেন এবং শিক্ষার্থীদের বয়স ও মানসিক সামর্থ্য বিবেচনা করে সর্বাপেক্ষা উপযোগী পদ্ধতিটি অনুসরণ করবেন।

৭. পদ্ধতি নির্বাচনের ক্ষেত্রে পাঠ পরিবেশনা, অনুশীলন এবং মূল্যায়নের কৌশলগুলো সম্বন্ধে সচেতন থাকতে হবে।

৮. পাঠ পরিকল্পনা শ্রেণি উপযোগী হতে হবে।

৯. সময়ের দিকে লক্ষ্য রেখে পাঠ পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হবে।

১০. পাঠ পরিকল্পনা হবে অংশগ্রহণমূলক; অর্থাৎ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর সক্রিয় অংশগ্রহণের প্রতিফলন থাকবে।

১১. জীবনমুখী ও বাস্তবধর্মী শিক্ষার কথাও পাঠটীকা প্রণয়নের সময় বিবেচনা করতে হবে। 

কেন পাঠটীকা প্রণয়ন করতে হবে?

যে সকল কারণে শিক্ষককে পাঠটীকা প্রণয়ন করতে হবে, সেগুলো হচ্ছে-

১. পাঠদান একটি সম্পূর্ণ মনোবৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়া বলে একে বিশৃঙ্খলভাবে উপস্থাপন করা চলে না। এজন্য একটি সুচিন্তিত কর্মপদ্ধতি অনুসরণ করা প্রয়োজন।

২. শিক্ষাক্ষেত্রে নতুন নতুন গবেষণা এবং চিন্তা-চেতনার ফলে পাঠদান পদ্ধতিতে নতুনতর ভাবধারার সংযোজন ঘটেছে।

৩. পাঠটীকার মাধ্যমে শিক্ষক ও শিক্ষার্থী সক্রিয় অংশগ্রহণ নিশ্চিত হয়।

৪. পাঠটীকা পাঠের গতিকে স্বচ্ছন্দ করে, শিক্ষার্থীর গ্রহণ ক্ষমতাকে উদ্দীপ্ত করে।

৫. পাঠটীকার মাধ্যমে নির্দিষ্ট সময় সীমার মধ্যে পাঠদান শেষ করা যায়।

৬. পাঠটীকা শিক্ষককে সৃজনশীল তৎপরতায় উজ্জীবিত করে। তিনি পদ্ধতিগত দিক থেকে নতুন নতুন কৌশল অবলম্বন করতে পারেন।

৭. পাঠটীকা শিক্ষককে অধিক পাঠে এবং বিষয়ের গভীরে প্রবেশ করতে সাহায্য করে।

৮. পাঠটীকার মাধ্যমে শিক্ষক মূল্যায়নের বিভিন্ন দিকগুলো নির্ধারণ করতে পারেন।

৯. পাঠটীকার মাধ্যমে শিক্ষক নির্দিষ্ট পাঠের উদ্দেশ্যের নিরিখে পাঠদানকে পরিচালনা করতে পারেন।

শিক্ষা প্রক্রিয়ার স্তর

হার্বাটের মনস্তাত্তিক বিশ্লেষণ অনুসারে শিক্ষা প্রক্রিয়ার বিভিন্ন স্তর ৪ টি, যথা

১. সুস্পষ্টতা (Clearness)

২. সংযোগ (Association)

৩. শ্রেণিভুক্তকরণ (Classification or Systematisation)

৪. প্রয়োগ পদ্ধতি (Method)

হার্বাটের শিক্ষাতত্ত্বের এই চারটি স্তরকে তাঁর অনুগামীরা কিছুটা পরিবর্তিত করে পাঁচটি সোপানে  দাঁড় করান। সুস্পষ্টতা (Clearness) স্তরটি শিক্ষা ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই এই স্তরটিকে ভেঙ্গে আয়োজন (Preparation) ও উপস্থাপন (Presentation) এই দুটি অংশে ভাগ করেন। 

হার্বার্টের শিক্ষাতত্ত্বকে অনুসরণ করে তাঁর অনুগামীরা পঞ্চসোপান শিক্ষাপদ্ধতির (Five Format 

Steps of Instruction) সৃষ্টি করেন। পাঁচটি সোপান বা স্তর হলো-

১. প্রস্তুতি বা আয়োজন 

২. উপস্থাপন 

৩. তুলনা 

৪. সূত্রগঠন 

৫. প্রয়োগ ও অভিযোজন

হার্বার্টের নির্দেশিত আদর্শ অনুযায়ী বর্তমানে পাঁচটি সোপানকে সংক্ষিপ্ত করে তিনটি সোপানে পরিবর্তিত করে পাঠটীকা করা হয়। এই সোপান তিনটি হলো:

১. আয়োজন 

২. উপস্থাপন 

৩. অভিযোজন 

হার্বার্টের পঞ্চসোপানের তুলনা, সুত্রগঠন-এই দুটি সোপানকে উপস্থাপন পর্যায়ে অঅন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। শ্রেণি উপযুক্ত করে পাঠটীকা রচনা করতে হবে। পাঠটীকা রচনার সময় শিক্ষার্থীদের সামাজিক, প্রক্ষোভিক ও যৌক্তিক বিকাশের স্তর বা পর্যায়ের কথা সবসময় মনে রাখতে হবে। বিজ্ঞানের বিভিন্ন অবদান, মনীষীদের বিভিন্ন বক্তব্য, ইতিহাসের বিভিন্ন ঘটনা পাঠটীকা রচনাকালে সংশ্লিষ্ট বিষয়ের সঙ্গে অবশ্যই যুক্ত হবে। শিক্ষাদানের বিভিন্ন পিরিয়ড এর ব্যাপ্তিকাল বিভিন্ন ধরনের থাকে। তাই পাঠটীকা রচনার সময় লক্ষ্য রাখতে হবে যে, শিক্ষাদানের জন্য কতখানি সময় 

পাওয়া যাবে। কোন ঋতুতে পাঠদান করা হচ্ছে, সে কথাও পাঠটীকা তৈরির সময় মনে রাখতে হবে। কারণ গ্রীষ্মকালে শিক্ষার্থীদের পাঠগ্রহণে ক্লান্তি কম সময়ে আসে। কোথায় কোন শিক্ষা সহায়ক উপকরণ ব্যবহার করা হবে তা নির্দেশিত থাকবে। বিভিন্ন প্রশ্ন, বিভিন্ন পদ্ধতির ব্যবহার, উদাহরণ ইত্যাদি কোথায় কী ব্যবহৃত হবে তা পাঠটীকায় স্থান পাবে। শিক্ষার্থীকে পাঠগ্রহণে 

কতখানি সক্রিয় করা যায় তার প্রতিফলন পাঠটীকায় পড়বে। জীবনমুখী ও বাস্তবধর্মী শিক্ষার কথাও পাঠটীকা রচনার সময় বিচার বিবেচনা করতে হবে। পাঠটীকার স্তরগুলি হলো উদ্দেশ্য, উপকরণ, আয়োজন বা প্রস্তুতি, পাঠ ঘোষণা, উপস্থাপন, অভিযোজন ও বাড়ির কাজ।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।

জেন্ডার কাকে বলে? জেন্ডার সমতা, সাম্য, লেন্স এবং বৈষম্য কী?

সাধারণভাবে বা সঙ্কীর্ণ অর্থে জেন্ডার শব্দের অর্থ বলতে অনেকে...