রবিবার, মে ২৯, ২০২২

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস: কীভাবে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমিত হয়, কতটা ঝুঁকিপূর্ণ এবং মুক্তির উপায়

সকল সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিলেই মিউকরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের আক্রমণ বা সংক্রমণ ঠেকানো সম্ভব হিবে তা এখনো শতভাগ প্রমাণিত নয়। সুতরাং, ভয়ের একটি কারণ থেকেই যায়।

বাংলাদেশের বারডেম হাসপাতালে প্রথমবারের মতো ব্ল্যাক ফাঙ্গাস (black fungus) সংক্রমিত রোগী সনাক্ত করা হয় ২১ মে, ২০২১। এ ছত্রাকে সংক্রমিত প্রথম রোগী সনাক্ত হবার পর বাংলাদেশে সাধারণ মানুষের মধ্যে বেশ আতঙ্কের জন্ম দিয়েছে। ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ছত্রাক সংক্রান্ত উপসর্গ নিয়ে একজন মারে গেছে এই একই হাসপাতাল অর্থাৎ বারডেমে। ২২ মে, ২০২১ তারিখ বাংলাদশে প্রথম কোনো রোগী ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস মোকাবেলার জন্য বাংলাদেশের সরকার ও চিকিৎসকগণ যখন নানা পদক্ষেপ নিচ্ছেন, ঠিক তখনই এখানে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হবার খবর অধিকাংশ মানুষের মাঝে নতুন করে উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে।

এটি অনেকটাই প্রমাণিত যে, ব্ল্যাক ফাঙ্গাস কোভিড-১৯ আক্রান্তদের মাঝে খুব সহজেই সংক্রমণ ঘটাতে পারে।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস
কীভাবে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমিত হয়, কতটা ঝুঁকিপূর্ণ এবং মুক্তির উপায় | Photo by Viktor Forgacs on Unsplash

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস কী?

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস হলো এক ধরণের ছত্রাকজনিত রোগ। চিকিৎসা বিজ্ঞানে বিশেষ এই রোগকে চিহ্নিত করা হচ্ছে মিউকরমাইকোসিস (mucormycosis) নামে। এই রোগে আক্রান্ত হয় তখন যখন মানুষের শরীর অপেক্ষাকৃতভাবে দুর্বল থেকে। এই সংক্রমণ হয় সাধারণত মিউকর (mucor) নামে একটি ছত্রাকের সংস্পর্শে।

কীভাবে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা মিউকোর ছত্রাকে সংক্রমিত হয়?

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা মিউকোর ছত্রাকের সংক্রমণ কখন বা কীভাবে হয় সে নিয়ে বলা খুবই মুশকিল। তবে যে তথ্য পাওয়া গেছে তাতে মোটামুটি নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, নোংরা জায়গা ও পচন ধরা ফলমূল কিংবা গাছ থেকে মিউকর ছত্রাকের সংক্রমণ ঘটতে পারে। শরীর সুর্বল হয়ে পড়লে বা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে গেলে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে সংক্রমিত হবার সম্ভাবনা থাকে। যে কেউ বা যে-কোনো বয়সের ব্যক্তি এই ছত্রাকে সংক্রমিত হতে পারে।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা মিউকরমাইকোসিস কি সংক্রামক বা ছোঁয়াচে?

না। ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা মিউকরমাইকোসিস সংক্রামক কিংবা ছোঁয়াচে রোগ নয়। এর মানে হলো এই ছত্রাক এক জনের দেহ থেকে আরেকজনের দেহে ছড়ায় না। পশুপাখি বা অন্যান্য জীববজন্তু থেকে মিউকরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাস রোগে আক্রান্তের সুযোগ নেই। কিন্তু ছত্রাকটি যেহেতু মাটি, বায়ু, উদ্ভিদে থাকে সেহেতু আমাদের জন্য এ থেকে রক্ষা পাওয়াও কঠিন। ব্ল্যাক ফাঙ্গাস আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হবার পরিসংখ্যানও আমাদের বিশেষ ভালো কোনো বার্তা দিচ্ছে না। ব্ল্যাক ফাঙ্গাস রোগে মৃত্যুর হার ৫০ শতাংশ প্রায়।

কোভিড-১৯ আক্রান্তদের মাঝে কেন ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমণ হচ্ছে?

মিউকরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে তারাই আক্রমণের শিকার হচ্ছেন যারা শারীরিকভাবে বা স্বাস্থ্যগতভাবে দুর্বল। মানবদেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকলে ব্ল্যাক ফাংগাস খুব সহজে সংক্রমণ ঘটাতে পারে। করোনাভাইরাসের (coronavirus) কারণে সৃষ্ট কোভিড-১৯ (Covid-19) রোগীদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ভয়ানকভাবে কমে যাওয়ার কারণে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সহজে আক্রমণ করতে পারছে। কোভিড-১৯ রোগীরা অনেক দিন পর্যন্ত আইসিইউতে থাকলে কিংবা তাদের উপরে স্টেরয়েডের প্রয়োগ বেশি হলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাওয়া স্বাভাবিক, যার ফলে শরীরে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ঢুকে পড়ছে।

ডায়াবেটিস ও ক্যান্সার আক্রান্তরা খুব সহযেই ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হতে পারেন

চিকিতকসকেরা বলছেন, যারা ডায়াবেটিস এবং ক্যান্সারের মতো রোগে ইতোমধ্যে আক্রান্ত হয়ে আছেন তাদেরকে যতটা সম্ভব সাবধানে থাকতে হবে। ব্ল্যাক ফাঙ্গাস এদের মধ্যে খুব সহজেই সংক্রমিত হতে পারে। যে সকল মানুষ ডায়াবেটিস ও ক্যান্সারে আকান্ত হন, স্বাভাবিকভাবেই তাঁদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম। এই কারণেই ডায়াবেটিস ও ক্যান্সার আক্রান্ত ব্যক্তিদের শরীর মিউকরমাইকোসিস ইনফেকশন ফ্রেইন্ডলি।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস নিয়ে চিকিৎসকরা কী বলছেন?

চিকিৎসকরা মিউকরমাইকোসিস নিয়ে যা বলছেন তা হলো- ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ছত্রাক মাটি ও বাতাসে বিদ্যমান থাকেই। সুস্থ মানুষের শ্লেষ্মাতেও ব্ল্যাক ফাঙ্গাস স্বাভাবিক সময়ে থাকতে পারে। বিশেষ এই ছত্রাক সাধারণত সাইনাস, মস্তিষ্ক এবং ফুসফুসকে আক্রান্ত করে থাকে। চিকিৎসকরা বলছেন, যেহেতু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের ফুসফুস দুর্বল থাকে, সেহেতু তাদেরকে ক্ষেত্রে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা মিউকরমাইকোসিস মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে ফেলতে পারে। এই রোগে খাদ্যনালী ও ত্বকও আক্রান্ত হতে পারে। তবে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস থেকে শরীরের কোনো অংশই নিরাপদ নয়।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা মিউকরমাইকোসিস কী ধরনের উপসর্গ দেখা দেয়?

 মিউকরমাইকোসিস রোগে যারা সংক্রমিত হন তাদের মধ্যে যেসব সাধারণ উপসর্গ লক্ষ্য করা যায় তা হলো:

  • মুখে ও গালে ব্যাথা হতে পারে
  • নাকের মধ্যখানে লালচে রঙয়ের হয়ে যেতে পারে
  • নাক হতে রক্ত পড়তে পারে
  • নাক বন্ধ হয়ে যেতে পারে যার কারণে শ্বাসকষ্টের সৃষ্টি পারে
  • নাকের উপরে বা নাকের আশেপাশে কালো ছোপ ছোপ দাগ দেখা যেতে পারে
  • চোখে ব্যথা করতে পারে
  • আক্রান্তদের চোখ ফুলে যেতে পারে
  • ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হলে চোখের পাতা ঝুলে পড়তে পারে
  • চোখে ঝাপসা দেখা ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের ভয়ানক একটি লক্ষণ, এ কারণে পরবর্তিতে আক্রান্ত ব্যক্তির দৃষ্টিশক্তি সম্পূর্ণরুপে চলে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে
  • শরীরের সকল অঙ্গ অবশও হয়ে যেতে পারে

কীভাবে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস থেকে সুরক্ষিত থাকা যায়?

যে সকল জায়গায় মিউকর ছত্রাকের উপস্থিত থাকে, সাধারণত সে সব জায়গা এড়িয়ে যাওয়া যায় না বললেই চলে। খুবই কঠিন ছত্রাককে এড়িয়ে চলার মতো একটি প্রচেষ্টা। তবে যে সকল মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম তারা বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করার মাধ্যমে নিজেদের মধ্যে মিউকরমাইকোসিস রোগের সংক্রমণের সম্ভাবনা কমিয়ে আনতে পারে।

অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ রোগ ব্ল্যাক ফাঙ্গাস থেকে যে সব উপায়ে নিজেদের সুরক্ষিত রাখা যায় তা হলো:

  1. আমাদের চারপাশে যে সব জায়গায় অনেক বেশি পরিমাণে ধুলোবালি ও ময়লা রয়েছে সে সব জায়গা যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলা উচিৎ। তবে এই সব জায়গায় যদি যাতায়াত না করে বা এড়িয়ে চলা সম্ভব না হয়, তাহলে এন-৯৫ (N-95) মাস্ক বা এর সমমানের কোনো প্রটেকশন ব্যবহার করা।
  2. প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে যে সকল বাড়িঘর, ইমারত বা অন্য যে-কোনো স্থাপনা পানিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকলে দুর্যোগ পরবর্তি সময়ে সেগুলোর সরাসরি সংস্পর্শ এড়িয়ে চলা উচিৎ। ছত্রাক দূরীকরণ ব্যবস্থা গ্রহণের পরই ওই সকল স্থাপনা ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা।
  3. সর্বদা খেয়াল রাখতে হবে, কোন ভাবেই শরীরের ত্বকে বা চামড়ায় যেন কোনো রকমের ইনফেকশন না হয়। অসাবধানতাবসত যদি শরীরের কোনো অংশ কেটে যায় কিংবা কোনো অংশের চামড়া উঠে যায়, তাহলে খেয়াল রাখতে হবে যেন ওই অংশ ধুলো-ময়লার সংস্পর্শে না আসে।
  4. করোনাভাইরাস সৃষ্ট কোভিড-১৯ রোগীদের ক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলা প্রয়োজন। চিকিৎসকের ব্যবস্থা অনুযায়ী ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা খুবই জরুরি।
  5.  সতর্কতার সাথে রোগীর স্টেরয়েড ব্যবহার করতে হবে কারণ স্টেরয়েডের ব্যবহার ডায়াবেটিসকে নিয়ন্ত্রণের বাইরে নিয়ে যেতে পারে, যা ক্ষতিকর। ফলে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে বা মিউকরমাইকোসিস রোগে আক্রান্ত হবার ঝুঁকি বেড়ে যেতে পারে।
  6. যে সকল রোগীকে অক্সিজেন দেওয়ার প্রয়োজন হয়, তাদেরকে অক্সিজেন দেওয়ার সময় সংশ্লিষ্ট সকল বস্তু ও এরিয়ায় পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখার বিকল্প কিছু নেই।
  7. সাধারণ মানুষ বা কোনো রোগী যখন মাস্ক ব্যবহার করবেন, খেয়াল রাখতে হবে যেন ওই মাস্ক পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্ন ছিল। এছাড়া যেখানে সেখানে মাস্ক সংরক্ষণ করাও উচিৎ নয়। অপরিচ্ছন্ন হাতে মাস্ক না পরা এবং বারেবারে মুভ করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

উপর্যুক্ত বিষয়গুলো শুধুই সতর্ক থাকার জন্য। কিন্তু এ সকল সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিলেই মিউকরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের আক্রমণ বা সংক্রমণ ঠেকানো সম্ভব হিবে তা এখনো শতভাগ প্রমাণিত নয়। সুতরাং, ভয়ের একটি কারণ থেকেই যায়।

আমাদের সকলেরই উচিৎ চোখ-কান খোলা রেখে চলা অর্থাৎ সর্বদা সতর্ক থাকা। আমরা সতর্কতা অবলম্বন করে চলাফেরা করলে যে-কোনো রোগ-বালাই থেকেই মুক্ত থাকতে পারব। ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা মিউকরমাইকোসিস করোনাভাইরাসের মতো ছোঁয়াচে না হলেও এ থেকে বাঁচা খুবই কঠিন।

তথ্যসুত্র: বারডেম, বিবিসি, আনন্দবাজার

মু. মিজানুর রহমান মিজানhttps://www.mizanurrmizan.info
মু. মিজানুর রহমান মিজান সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ, ঢাকায় মাস্টার অব এডুকেশন প্রোগ্রামের শিক্ষার্থী এবং একজন স্বাধীন লেখক। তিনি শিক্ষা গবেষণায় বেশ আগ্রহী।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

এই বিভাগের অন্যান্য নিবন্ধ

সমাজমাধ্যম

সবচেয়ে জনপ্রিয়
সবচেয়ে জনপ্রিয়

শিক্ষা কী? শিক্ষার সংজ্ঞা, ধারণা এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

শিক্ষা নিয়ে যারা কথা বলেছেন তাঁরা প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ভেবে নিয়েছেন শিক্ষাকে, নিজের মতো করে সংজ্ঞা দিয়েছেন। শিক্ষাবীদ কিংবা মনিষী, যার সংজ্ঞাই দেখা হোক না কেন, খুব একটা সন্তুষ্ট হওয়া যায় না। তাই বলে যাদের হাত ধরে শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থা আজ পর্যন্ত এসেছে তাঁদের মতো শিক্ষাবিদ বা মনিষীদের বলে যাওয়া বা লিখে যাওয়া কথাগুলোকে এড়িয়ে চলাও সম্ভব নয়।

গবেষণা: গবেষণার সংজ্ঞা, ধারণা ও প্রকারভেদ

গবেষণা হলো কোনো কিছু সম্পর্কে জানার জন্য নিয়মতান্ত্রিক ও ধারাবাহিকভাবে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া এবং একটি গবেষণা শুধু একটি প্রকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না থেকে দুই বা ততোধিক প্রকারের হতে পারে

মূল্যবোধ কাকে বলে এবং মূল্যবোধের উৎস ও প্রকারভেদ কী?

মূল্যবোধ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হচ্ছে Value এটি গঠিত হয়েছে...

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে। 

শিক্ষা: অভীক্ষার সংজ্ঞা এবং বৈশিষ্ট্য

শিক্ষাক্ষেত্রে অভীক্ষা খুবই পরিচিত একটি পদ। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান পড়েছেন...

ইতিহাস কাকে বলে? ইতিহাসের বিষয়বস্তু, উপাদান এবং ইতিহাস পাঠের প্রয়োজনীয়তা কী?

ইতিহাস পাঠ করার আগে আমাদের প্রত্যেকেরই জানা প্রয়োজন ইতিহাস কী, ইতিহাসের প্রকৃতি কীরূপ; আবার পাঠ্য বিষয় হিসেবে ইতিহাসের ভূমিকা কী। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট কালের এবং নির্দিষ্ট দেশের ইতিহাস জানার সাথে সমসাময়িক প্রাকৃতিক অবস্থা এবং পরিবেশ সম্পর্কেও ধারণা নেওয়া প্রয়োজন। এই নিবন্ধে ইতিহাসের সংজ্ঞা, বিষয়বস্তু, উপাদান এবং প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার সংজ্ঞা, পরিধি এবং গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন মানব সংগঠনের সাথে...

পরিবার কাকে বলে? পরিবারের সংজ্ঞা, ধারণা, প্রকারভেদ, কার্যাবলি ও গুরুত্ব কী?

আমরা জন্ম থেকেই পরিবারের সাথে পরিচিত। আমরা নিশ্চয়ই অবগত...

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনার নীতি বা মূলনীতি কয়টি ও কী কী?

ব্যবস্থাপনা কী? ব্যবস্থাপনা একটি বাংলা শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো...

শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল

পাঠকে ফলপ্রসূ করার জন্য শিক্ষক পরিস্থিতি অনুসারে একাধিক পদ্ধতি ও কৌশলের সংমিশ্রণে নিজের মতো করে পাঠ পরিচালনা করতে পারেন। পাঠের সাফল্য নির্ভর করে শিক্ষকের বিচক্ষণতা এবং বিষয়জ্ঞান ও শিখন পদ্ধতির যথাযথ প্রয়োগের উপর।

জেন্ডার কাকে বলে? জেন্ডার সমতা, সাম্য, লেন্স এবং বৈষম্য কী?

সাধারণভাবে বা সঙ্কীর্ণ অর্থে জেন্ডার শব্দের অর্থ বলতে অনেকে...